Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ৬ ১৪২৮ ||  ১২ সফর ১৪৪৩

রকেট সায়েন্স নিয়ে বাপ্পির ই-বুক 

অন্বয় দেবনাথ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৪০, ৪ আগস্ট ২০২১   আপডেট: ১৭:৪৪, ৪ আগস্ট ২০২১
রকেট সায়েন্স নিয়ে বাপ্পির ই-বুক 

রকেট সায়েন্স শব্দটি শুনলেই আমাদের কাছে কেমন যেন কঠিন বিষয় বলে মনে হয়। বাংলা ভাষায় সায়েন্স ফিকশন, প্রযুক্তি, বিজ্ঞানের বিভিন্ন আবিষ্কার ও পরীক্ষা নিয়ে অসংখ্য বই থাকলেও রকেট সায়েন্সের বেসিক নিয়ে এতদিন তেমন কোনো বই ছিল না। 

বিজ্ঞানপ্রেমী ও রকেট নিয়ে আসলেই যাদের জ্ঞান অর্জনের ইচ্ছা আছে, তাদের কথা মাথায় রেখে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রকাশিত হয়েছে তরুণ লেখক ও ড্রোন নির্মাতা মইনুল ইসলাম বাপ্পির লেখা বই ‘বেসিক রকেট ইঞ্জিনিয়ারিং’। বইটি সম্পাদনা এবং প্রকাশের দায়িত্ব পালন করেছে দেশের অন্যতম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্ল্যাটফর্ম ‘সায়েন্স বি’। রকেট সায়েন্স নিয়ে এটিই বাংলাদেশের প্রথম বই, যেখানে একদম বেসিক থেকে রকেট নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। ই-বুক আকারে প্রকাশিত বইটি সায়েন্স বি’র ওয়েবসাইট থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করা যাচ্ছে। 

ওয়েবসাইট ঘেটে জানা যায়, ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে বইটি প্রণয়নের কাজ শুরু হয়। লেখা এবং সম্পাদনা শেষে এই বছরের ১৭ জুলাই বইটি ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। মূলত রকেটের যান্ত্রিক ও কার্যপদ্ধতি সম্পর্কে তুলে ধরা হয়েছে। প্রকাশিত হওয়ার ১০ দিনের মাথায় ৭ হাজারেরও বেশিবার বইটি ডাউনলোড করা হয়েছে৷

বইটির রিভিউ সেকশনে রাজন নামে একজন কমেন্ট করেছেন, রকেট ইঞ্জিনিয়ারিং শুনলেই অনেকে মনে করেন বিষয়টি আসলেই অনেক জটিল। কিন্তু এই বইটি পড়ার পর এ নিয়ে বেসিক একদম সহজ হয়ে যাবে। প্রতিটি বিষয়কে পয়েন্ট আকারে তুলে ধরার জন্য বইটি আরও সহজবোধ্য লেগেছে। অসংখ্য ধন্যবাদ লেখক এবং সায়েন্স বি’কে এমন একটি বই ফ্রিতে দেওয়ার জন্য। আশা করি সায়েন্স বি ভবিষ্যতেও অসংখ্য বই পিডিএফ হিসেবে ফ্রিতে পড়ার জন্য পাবলিশ করবে।

বই সম্পর্কে লেখক মইনুল ইসলাম বাপ্পি বলেন, কম্পিউটার ও রকেট সায়েন্স মহাসাগরের তুলনায় কম বিশাল নয়। মহাজ্ঞানীরা আলাদা আলাদা বিষয়ের উপর চূড়ান্ত দক্ষতা অর্জনের মধ্য দিয়েই মহাকাশ যাত্রাকে বাস্তব করে তুলেছিলেন, যেটা একসময় কল্পনা করাও রসিকতার সমান ছিল। কিন্তু এত এত মহাকাশ গবেষণা, এত বিস্ময়য়কর তথ্য আমাদের মন ছুয়ে দিলেও আজও এসবের সাক্ষী কাছ থেকে হতে পারিনি। এখান থেকেই শিখতে হবে কিছু করার। বইটি যারা পড়বেন, তাদের মধ্যে বেশিরভাগের স্বপ্ন হয়তো NASA তে চাকরি করা, আবার কারো স্বপ্ন আমার মতো নিজ দেশেই মহাকাশ গবেষণা করা। তাদের এই স্বপ্ন পূরণ এবং জানার ও শেখার ইচ্ছাকে বইটি আরও বাড়িয়ে দিতে পারবে বলেই আশা করি।

/মাহি/ 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়