ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

নয় মাসে হুয়াওয়ের আয় ৮৬ বিলিয়ন ডলার

বিশেষ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-১৯ ৮:০০:১০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-১৯ ৯:৩০:৫৪ পিএম

হুয়াওয়ে ২০১৯ সালের এক-তৃতীয়াংশের ব্যবসায়িক ফল ঘোষণা করেছে। বছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে  হুয়াওয়ের আয়ের পরিমাণ ৮৬ বিলিয়ন ডলার। যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৪ দশমিক ৪ শতাংশ বেশি। এ সময়ে কোম্পানির নিট মুনাফার পরিমাণ ছিল ৮ দশমিক ৭ শতাংশ।

সম্প্রতি কোম্পানিটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমনটা দাবি করা হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, হুয়াওয়ে আইসিটি অবকাঠামো এবং স্মার্ট ডিভাইসগুলোর ওপর বেশি প্রাধান্য দিয়েছে। সেই সঙ্গে পণ্যের দক্ষতা এবং গুণগত মানও ঠিক রেখেছে। যা বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে হুয়াওয়ের সাংগঠনিক স্থিতিশীলতা বৃদ্ধিতে অবদান রেখেছে। 

বিশ্বব্যাপী বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক স্থাপনের কাজ দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে। হুয়াওয়ে তাদের সুপার আপলিঙ্ক, স্মার্ট এবং ট্রান্সপোর্ট নেটওয়ার্ক খুব সহজ করার মতো ইনোভেটিভ সল্যুশন চালুর কাজ অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া, ইন্ডাস্ট্রি জোট প্রতিষ্ঠায় হুয়াওয়ে ইন্ডাস্ট্রি পার্টনারের কাজ করছে। সেই সঙ্গে শিল্প উদ্ভাবনী কোম্পানিগুলোর সঙ্গে যুক্ত হয়ে ফাইভ-জি নির্ধারিত নেটওয়ার্কিংয়ের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

ইতিমধ্যে দ্রুত গতিসম্পন্ন ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক সেবা দেয়ার জন্য ৬০টির বেশি বাণিজ্যিক চুক্তি সই করেছে হুয়াওয়ে এবং ৪ লাখের বৃহৎ এমআইএমও অ্যাক্টিভ অ্যান্টেনা ইউনিট বিশ্বব্যাপী বাজারে প্রেরণ করেছে। হুয়াওয়ের অপটিক্যাল ট্রান্সমিশন, ডেটা যোগাযোগ এবং আইটি সেবাগুলো উৎপাদন ও সরবরাহ ক্রমাগত বৃদ্ধি পেয়েছে।

এন্টারপ্রাইজ ব্যবসায় হুয়াওয়ে হরাইজেন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মটি চালু করেছে। হুয়াওয়ের ব্যাপক ভিত্তিক প্রযুক্তিগত অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে এই দক্ষ প্ল্যাটফর্মটি তৈরি করা হয়েছে।

হুয়াওয়ের লক্ষ্য ছিল গ্রাহক এবং অংশীদারদের সাথে মিলিত হয়ে ডিজিটাল বিশ্ব তৈরি করা। এই প্ল্যাটফর্মটি সরকার, জনসেবা, আর্থিক সংস্থান, পরিবহন এবং বিদ্যুতের বিভিন্ন খাতকে দ্রুত ডিজিটালে রূপান্তরে সহায়তা করছে, যার আর্থিক মূল্য কয়েক ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।

চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে বিশ্বের প্রায় সাত শতাধিক শহরে ২২৮ ফরচুন গ্লোবালের ৫০০ কোম্পানি, ৫৮ ফরচুন গ্লোবালের ১০০ কোম্পানি হুয়াওয়েকে তাদের ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন পার্টনার হিসেবে নির্বাচিত করেছে।

কনজ্যুমার ব্যবসার ক্ষেত্রে হুয়াওয়ের স্মার্টফোন বেশ ভালোভাবেই নিজের অবস্থান করে নিয়েছে। চলতি বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে স্মার্টফোন আমদানি বেড়েছে প্রায় ১৮৫ মিলিয়ন ইউনিট, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ২৬ শতাংশ বেশি। পিসি, ট্যাবলেট, ওয়‌্যারেবল ডিভাইস ও স্মার্ট অডিও প্রোডাক্টের ক্ষেত্রেও হুয়াওয়ের অগ্রগতি উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার খাতে নতুনত্ব নিয়ে এই বছরেই চালু হয়েছে ভিশন স্মার্ট স্ক্রিন, যা বর্তমান বাজারব্যবস্থা ও সেবাগ্রহীতা উভয়ের কাছেই সমানভাবে সমাদৃত হয়েছে। গ্রাহকদের স্বার্থের কথা মাথায় রেখে দীর্ঘ পরিসরে হুয়াওয়ে আনতে চলেছে আরো নিখুঁত ইন্টেলিজেন্স সিস্টেম, যা সেবার মানকে আরো মসৃণ করবে।

আগের তুলনায় হুয়াওয়ের মোবাইল সার্ভিস সিস্টেমের কার্যক্রম বেড়েছে বহু গুণ, যা বর্তমানে ১৭০টির বেশি দেশে বিস্তৃত। বিশ্বব্যাপী ১.০৭ মিলিয়ন রেজিস্টার্ড ডেভেলপার বর্তমানে হুওয়ায়ের সাথে যুক্ত।


ঢাকা/হাসনাত/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন