Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

আরামিট সিমেন্টের দর বাড়ার কারণ নেই

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:১৫, ৩ মার্চ ২০২১  
আরামিট সিমেন্টের দর বাড়ার কারণ নেই

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আরামিট সিমেন্টের শেয়ারের দর টানা বাড়ার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই। কোম্পানির পক্ষ থেকে এমনটিই জানানো হয়েছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা গেছে, ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে তালিকাভুক্ত আরামিট সিমেন্টের শেয়ার দর টানা বাড়তে থাকায় বিষয়টি অস্বাভাবিক মনে করে ডিএসই। এর পেছনে কোনো কারণ আছে কি না তা জানতে কোম্পানিকে স্টক এক্সচেঞ্জের লিস্টিং রেগুলেশন ৪৮ অনুযায়ী নোটিশ পাঠায় ডিএসই। একই সঙ্গে জরুরি ভিত্তিতে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়। 
সেই পরিপেক্ষিতে কোম্পানির পক্ষ থেকে নোটিশের জবাবে বুধবার জানানো হয়েছে যে, দর বাড়ার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই। অর্থাৎ অকারণেই কোম্পানির শেয়ার দর বাড়ছে।

পর্যালোচনায় দেখা গেছে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি কোম্পানির শেয়ার ২০ টাকা ২০ পয়সায় বেচাকেনা হয়েছে। এরপর টানা বেড়ে কোম্পানির শেয়ার সর্বোচ্চ ২৬ টাকা ৮০ পয়সায় বেচাকেনা হয়েছে। যদিও এরপর একদিন সামান্য দরপতন হয়েছে কোম্পানিটির। সর্বশেষ কোম্পানির শেয়ার ২৬ টাকা ৫০ পয়সায় বেচাকেনা হয়েছে। এ কারণে ডিএসই কোম্পানিকে নোটিশ পাঠায়। 

পুঁজিবাজারে ১৯৯৮ সালে তালিকাভুক্ত হয়েছে আরামিট সিমেন্ট। কোম্পানিটি ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে অবস্থান করছে।  

 

ঢাকা/এনএফ/এসএন  

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে