ঢাকা     শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ১৭ ১৪২৯ ||  ০১ জিলহজ ১৪৪৩

প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগকে বেসরকারি খাত সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবে: এফবিসিসিআই

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৫৯, ৫ জুন ২০২১   আপডেট: ১৮:০০, ৫ জুন ২০২১
প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগকে বেসরকারি খাত সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবে: এফবিসিসিআই

সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর যে কোন উদ্যোগে বেসরকারি খাতের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।

শনিবার (৫ মে) মতিঝিল ফেডারেশন ভবনে ২০২১-২০২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটের ওপর এফবিসিসিআইয়ের সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই আশ্বাস দেন।

সেই সঙ্গে তিনি অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার, সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ন্যূনতম করের হার শূণ্য দশমিক ২৫ শতাংশ করা, আমদানি পর্যায়ে ভ্যাটের আগাম কর সম্পূর্ণ প্রত্যাহার, কমপ্লায়েন্স সৃষ্টি ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে আগামী ১ বছরের জন্য ই-কমার্সকে উৎসে করের বাইরে রাখা এবং ড্রেজিং এর জন্য ব্যবহৃত কাটার সেকশন ড্রেজারকে ক্যাপিটাল মেশিনারী হিসেবে ১ শতাংশ শুল্ক আমদানির সুযোগ দেয়ার অনুরোধ জানান।

সংবাদ সম্মেলনে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সভাপতি ব্যারিস্টার নিহাদ কবির, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সভাপতি রিজওয়ান রহমান এবং এফবিসিসিআই পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরের জন্য বর্তমান সরকারের টানা ১৩তম বারের জন্য জনগণের চাহিদাকে অগ্রাধিকার দিয়ে কল্যাণমূখী বাজেট দেয়ার কৃতিত্বের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সরকারকে বেসরকারি খাতের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান।

মো. জসিম উদ্দিন বলেন, অগ্রীম আয়কর (এআইটি) ব্যবসায়িক খরচ বাড়িয়ে দেয়ার কারনে এফবিসিসিআই থেকে বিদ্যমান ৫ শতাংশ অগ্রীম আয়কর (এআইটি) প্রত্যাহার করার কথা বলা হয়েছিল। কারণ আমরা নিশ্চিত নই যে, ব্যবসা থেকে ব্যবসায়ীরা বছর শেষে লাভবান হবেন কিনা? অথচ বাজেটে ২০ শতাংশ পর্যন্ত সর্বোচ্চ অগ্রীম আয়কর আরোপ করা হয়েছে, এতে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে অচলাবস্থার সৃষ্টি হবে। ব্যবসা পরিচালনার ব্যয় বহুগুন বৃদ্ধি পাবে। এই অগ্রীম আয়কর প্রত্যাহারের জন্য আমরা পুনরায় অনুরোধ জানাচ্ছি। সকল প্রকার উৎস কর ও অগ্রীম কর চূড়ান্ত কর হিসেবে সমন্বয় করা জরুরি।

তিনি বলেন, বাজেট বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী সরকারের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যবসায়ীদের নিয়ে কাজ করার কথা বলেছেন। সেই সঙ্গে মূল্য সংযোজন কর আইন আরো সহজীকরণের জন্য উদ্যোগ নেয়ার কথা বলেছেন। এফবিসিসিআই এ ঘোষণাকে স্বাগত জানাচ্ছে। মূল্য সংযোজন কর আইন সহজীকরণের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং এফবিসিসিআইয়ের সমন্বয়ে একটি টাস্কফোর্স গঠনের আহ্বান জানাচ্ছি। প্রস্তাবিত বাজেট আমরা আরও বিশ্লেষণ করছি। এফবিসিসিআই’র অধিভূক্ত চেম্বার বা এসোসিয়েশনের মতামতের ভিত্তিতে আমাদের বাজেট পরবর্তী বিস্তারিত প্রস্তাবনা সরকারের কাছে উপস্থাপন করবো।

এফবিসিআই সভাপতি জানান, অর্থনৈতিক কর্মকা-ের বিদ্যমান মন্দা পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক আর্থ-সামাজিক পরিবেশে তাৎক্ষনিক, স্বল্পমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য শুল্ক ও কর কাঠামো সংস্কার করে একটি জনবান্ধব, বিনিয়োগ বান্ধব এবং উৎপাদনশীল রাজস্ব ব্যবস্থা প্রবর্তন করার খুবই জরুরি।

ঢাকা/শিশির/এমএম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়