Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১ ||  শ্রাবণ ১১ ১৪২৮ ||  ১৩ জিলহজ ১৪৪২

সরকারের সুদ পরিশোধ ব্যয় ক্রমাগত বাড়ছে

কেএমএ হাসনাত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:১৪, ১২ জুন ২০২১  
সরকারের সুদ পরিশোধ ব্যয় ক্রমাগত বাড়ছে

প্রতীকী ছবি

সরকারের ঋণের সুদ পরিশোধের দায় ক্রমাগতভাবে বাড়ছে। করোনাভাইরাসের কারণে দেশের রপ্তানি কমে যাওয়া, রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার কারণে সরকারের আয় বহুলাংশে কমে গেছে। 

অন্যদিকে করোনা মোকাবিলা এবং উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখতে ব্যয় অনেক বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় ঋণের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়ছে ফলে ঋণের সুদ পরিশোধের চাপও বাড়ছে। 

এ অবস্থায় আগামী তিন অর্থ বছরে ঋণের সুদ পরিশোধ করতেই প্রয়োজন হবে ২ লাখ ৩৪ হাজার ৩০০ কোটি টাকার মত। অর্থ বিভাগের প্রকাশিত মধ্য মেয়াদি সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি বিবৃতি এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

অর্থ বিভাগের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, শুধুমাত্র অভ্যন্তরীণ সুদ পরিশোধেই প্রয়োজন হবে ২ লাখ ৫ হাজার ২৩০ কোটি টাকা। বাকি সুদ ব্যয় করা হবে বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধের জন্য।

আর্থিক বিৃবতিতে বলা হয়েছে, আগামী ২০২১-২০২২ অর্থবছরে সুদ পরিশোধে ব্যয় হবে ৬৮ হাজার ৫৯০ কোটি টাকা। তার পরের দুই অর্থবছর অর্থাৎ ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ৭৭ হাজার ৫৫ কোটি ও ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে এখাতে ব্যয় হবে ৮৮ হাজার ১৬০ কোটি টাকা। 

এর মধ্যে তিন বছরে শুধু অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ পরিশোধে ব্যয় হবে ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ৬২ হাজার কোটি, ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ৬৯ হাজার ৮০০ কোটি এবং ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে ৭১ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা।

অর্থায়নের ব্যয় বিষয়ে নীতি বিবৃতি বলা হয়েছে, মোট অর্থায়নের একটি বড় অংশ বাইরের উৎস থেকে রেয়াতি সুবিধা সম্পূর্ণ ঋণ হিসেবে পাওয়ায় সরকার অতীতে সামগ্রিক অর্থায়ন ব্যয় তুলনামূলকভাবে কমিয়ে রাখতে পেরেছে। 

বিগত পাঁচ বছরে (২০১৫-২০১৬ হতে ২০১৯-২০২০ অর্থবছর) বহিঃঅর্থায়নের বিপরীতে সুদ বাবদ ব্যয় ছিল সরকারি ব্যয়ের শূণ্য দশমিক ৯ শতাংশ এবং বহিঃঅর্থায়নের বিপরীতে অন্তনির্হিত সুদ হার ছিল গড়ে মাত্র এক দশমিক ১ শতাংশ।

এতে বলা হয়েছে, বাইরের উৎস থেকে ঋণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়া বহিঃঋণের বিপরীতে সুদ বাবদ ব্যয় সামান্য বেড়েছে। অন্যদিকে, যেহেতু নিকট অতীতে সরকার প্রায়শই ব্যয়বহুল ব্যাংক বহির্ভূত উৎস থেকে ঋণ নিয়ে অর্থায়নের চাহিদা মেটাতে হয়েছে, তাই অভ্যন্তরীণ ঋণের বিপরীতে পরিশোধিত সুদ সরকারের মোট সুদ ব্যয়ের প্রধানতম অংশ ছিল। বিগত পাঁচ বছরে অভ্যন্তরীণ ঋণের বিপরীতে সুদ বাবদ গড় ব্যয় ছিল বাজেট ব্যয়ের ১২ দশমিক ৪৪ শতাংশ এবং গড় অন্তর্নিহিত সুদ হার ছিল মাত্র ৯ দশমিক ৪২ শতাংশ।

এদিকে, আট বছরের ব্যবধানে সুদ ব্যয় ৭ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিগত বছরগুলোর দিকে তাকালে দেখা যায় প্রতিবছর সরকারের সুদ ব্যয় বেড়েই চলেছে। চলতি ২০২০-২০২১ অর্থবছরে সংশোধিত বাজেটে সুদখাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৩ হাজার ৮২৩ কোটি টাকা। মূল বাজেটে যা ছিল ৬৩ হাজার ৮০১ কোটি টাকা। সুদ ব্যয়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ সুদখাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৮ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। বৈদেশিক ঋণের সুদ ব্যয় ধরা আছে ৫ হাজার ৩২৩ কোটি টাকা।

একইভাবে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে সুদখাতে ব্যয় করা হয়েছে ৫৭ হাজার ৬৬৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে অভ্যন্তরীণখাতে সুদ ব্যয় হয়েছে ৫২ হাজার ৭৯৬ কোটি টাকা। বিদেশি ঋণের সুদ ব্যয় ৪ হাজার ৮৬৮ কোটি টাকা। 

এর আগের ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে অভ্যন্তরীণখাতে সুদ ব্যয় ছিল ৪৫ হাজার ২৭৮ কোটি টাকা। বিদেশি সুদ ব্যয় ৩ হাজার ৪৬৭ কোটি টাকা। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে অভ্যন্তরীণ সুদ ব্যয় ৩৮ হাজার ১৬০ কোটি টাকা এবং বিদেশি ঋণের সুদ ব্যয় ছিল ৩ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা। 

একইভাবে ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে এই ব্যয় যথাক্রমে ৩৮ হাজার ২৪০ কোটি টাকা এবং এক হাজার ৭১১ কোটি টাকা। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে ৩০ হাজার ৪৪ কোটি টাকা ও এক হাজার ৬২৫ কোটি টাকা। ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে অভ্যন্তরীণ সুদ ব্যয় ছিল ২৯ হাজার ৪৩৬ কোটি টাকা এবং বিদেশি ঋণের সুদ ব্যয় হয়েছে এক হাজার ৫৩৭ কোটি টাকা।

ঢাকা/সনি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়