Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ৩ ১৪২৮ ||  ০৯ সফর ১৪৪৩

‘শিল্প কারখানা বন্ধ থাকলে আন্তর্জাতিক বাজার হারাবে দেশ’

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১৮, ২৯ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৭:৫০, ২৯ জুলাই ২০২১

কঠোর লকডাউনের মধ্যে দেশের শিল্প কারখানা খুলে দিতে সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছেন  ব্যবসায়ীরা। না হলে আন্তর্জাতিক বাজার এবং ক্রেতা হারানোর পাশাপাশি প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়বে বলে দাবি করেছেন তারা। 

আরও পড়ুন: শিল্প প্রতিষ্ঠান খুলে দিতে মালিকদের অনুরোধ

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সঙ্গে জরুরি বৈঠক শেষে এই মন্তব্য করেন ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।  এ সময় তিনি নেতাদের নিজ নিজ খাতের শ্রমিকদের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় করে টিকা ব্যবস্থা করার উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান।

এ সময় বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান, বিকেএমইএ সভাপতি এ কে এম সেলিম ওসমান, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সালাম মুর্শীদি, সিদ্দিকুর রহমানসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন। 

বৈঠক শেষে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ইন্ডাস্ট্রি (শিল্প) বন্ধ থাকলে কি সমস্যা হচ্ছে- আমরা সেই বিষয়টি বলেছি।  কারণ- সাপ্লাই চেইন (সর্বরাহ ব্যবস্থা) ভেঙে যাচ্ছে, বন্দরে জট (পণ্যের) সমস্যা দেখা দিচ্ছে।  আন্তর্জাতিক বাজার হারানোর সম্ভাবনা রয়েছে আমাদের। 

জসিম উদ্দিন বলেন, আমাদের লোকাল ইন্ডাস্ট্রি (স্থানিয় শিল্পের) সাপ্লাই চেইনে সমস্যা হচ্ছে।  যেসব শিল্প ইতিমধ্যে খোলা রয়েছে- কৃষি, ফার্মাসিটি, লেদার ইন্ডাস্ট্রি খোলা রয়েছে, তাদের সাপ্লাই চেইনে সমস্যা হচ্ছে। খাদ্য পণ্যের জন্য রেপিং দরকার, কার্টুনের দরকার।

‘এই অবস্থায় তো ইন্ডাস্ট্রি এইভাবে বন্ধ রাখা যায় না। প্রধানমন্ত্রী সব সময় জীবন জীবিকাকে সাথে রেখেই এগিয়েছেন, যার কারণে আমাদের ইকোনোমিতে পজেটিভ রোল ছিল। এতকিছুর পরেও আমাদের ৫ দশমিক ২ শতাংশ গ্রোথ (জিডিপি) ছিল। সেজন্য আমরা মনে করি, ইন্ডাস্ট্রিগুলোকে খুলে দেওয়া দরকার।

এই কথাই আমাদের সবার পক্ষ থেকে উনাদের (মন্ত্রীপরিষদ) বলতে এসেছি।  নিশ্চই তারা আমাদের দাবি ইতিবচাক হিসেবে নিবেন। 

ব্যবসায়ীদের এই শীর্ষ নেতা বলেন, টিকার কথা এসেছে। এক্ষেত্রে শ্রমিকদের জন্য প্রতিটি সেক্টর (খাত) যদি দায়িত্ব নেয় যে, তারা টিকার বিষয়ে সরকারের স্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় করবে।  তাহলে আমি মনে করি, আমাদের ইকোনমি (অর্থনীতি) এগিয়ে যাবে। 

আন্তর্জাতিক বাজারের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, আমাদের বড় সমস্যা হলো- আমরা কিন্তু প্রতিযোগিতা করছি নিজেদের সাথে না।  আন্তর্জাতিক কিছু দেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করছি। আর এখন পৃথিবির সব জায়াগায় খুলে দেওয়া (লকডাউন) হয়েছে, আমাদের যারা বায়ার, কাস্টমার তারা স্বাভাবিক হয়ে গেছেন। এই সময় যদি আমরা লকডাউন করে সবকিছু বন্ধ রাখি, তাহলে বাজার হারানোর বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। 

/শিশির/এসবি/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়