ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

ভোটগ্রহণ চলছে...

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-২৫ ১:০৮:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-২৫ ১:২৪:২৮ পিএম

পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে বিদ্যালয়। মাইক বাজছে।

রয়েছে নির্বাচন কমিশন, প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট, ভোট কক্ষ, ব্যালট, ব্যালট বাক্স সবই।

ভোট দেয়ার জন্য ভোটাররা লাইনে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছেন। কেউবা ভোট দিচ্ছেন, কেউবা ভোট দিয়েছেন।

নির্বাচন সুষ্ঠ হচ্ছে কিনা তা পর্যবেক্ষণও করা হচ্ছে। কে জিতবে এই নিয়ে উৎকণ্ঠা আর উদ্বিগ্নতায় রয়েছেন প্রার্থীরা। কিন্তু উৎসবের আমেজ দেখা গেছে অভিভাবক, উৎসুক জনতা ও উপস্থিতিদের মাঝে।

শনিবার সকাল ৯টা থেকে আনন্দঘন এবং সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ চলছে।এই চিত্র দেখা গেছে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের হাড়িনাল উচ্চ বিদ্যালয়ে।

কিন্তু, এটা কোন জাতীয় কিংবা স্থানীয় সরকার নির্বাচন নয়।

শনিবার সকালে শুরু হওয়া এ নির্বাচন উচ্চ বিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন। দুপুর ২টা পর্যন্ত এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আক্তার হোসেন জানান, আজ সারা দেশেই মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদ্রাসাগুলোতে স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার নির্দেশনা রয়েছে। তার বিদ্যালয়ে নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৬৮০ জন। এর মধ্যে ২৫৩ জন ছাত্রী এবং ৪৩৭ জন ছাত্র।

গত ১৪ জানুয়ারি এই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। এতে মনোনয়ন জমা দেয়ার তারিখ ছিল ১৬ জানুয়ারি । বাছাই ১৮ জানুয়ারি এবং প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল ১৯ জানুয়ারি। ৪৬ জন প্রার্থী হলেও পরে ছয়জন প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন। এখন ৪০ জন প্রার্থীর মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রার্থীদের মধ্যে ১৫ জন ছাত্রী।

প্রধান শিক্ষক জানান, বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র মো. জিসান সরকার প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন। এই নির্বাচন কমিশন পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট। এছাড়া ছয় ভোট কক্ষে ছয়জন প্রিজাইডিং অফিসার, ছয় সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, ছয় পোলিং এজেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এনারা সবাই এ বিদ্যালয়ের ছাত্র। আর তিনি (প্রধান শিক্ষক) নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করছেন উপদেষ্টা হিসেবে। নির্বাচনে আট প্রার্থী নির্বাচিত হবেন। তবে একই শ্রেণি থেকে দুই জনের অধিক নির্বাচিত হতে পারবেন না।

তিনি আরো জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান আট কার্যক্রমের দায়িত্বে নির্বাচিত আট প্রতিনিধি থাকবেন। দায়িত্বগুলো হলো- পরিবেশ সংরক্ষণ (বিদ্যালয় আঙিনা ও টয়লেট পরিস্কার এবং বর্জ্র ব্যবস্থাপনা), পুস্তক এবং শিখন সামগ্রী, স্বাস্থ্য-ক্রীড়া ও সংস্কৃতি এবং সহপাঠ কার্যক্রম, পানি সম্পদ, বৃক্ষরোপণ ও বাগান তৈরি, দিবস ও অনুষ্ঠান উদযাপন, অভ্যর্থনা ও আপ্যায়ন, আই.সি.টি ইত্যাদি।

নির্বাচন সুষ্ঠ হচ্ছে কি-না তা পর্যবেক্ষণ করছেন- মুক্তিযোদ্ধা এস কে জবি উল্লাহ, বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. শরিয়ত উল্লাহ, মো. মোমরাজ হোসেন, মো. আলতাফ মোড়ল।

পর্যবেক্ষণ শেষে বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আলতাফ মোড়ল জানান, সুষ্ঠ ও সুন্দর পরিবেশে নির্বাচন হচ্ছে। নির্বাচিত প্রতিনিধিরা দায়িত্ব পালন করলে বিদ্যালয়ের পরিবেশ আরো সুন্দর হয়। তাছাড়া নির্বাচন সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের একটি ধারণাও হয়।

নির্বাচন উপলক্ষে আজ বিদ‌্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যনীয়। সঙ্গে রয়েছে অনেকে শিক্ষার্থীর অভিভাবক, উৎসুক লোকজনও। বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে টানানো হয়েছে প্রার্থীদের রঙ-বেরঙের পোস্টার।

প্রতিনিধিরা নিজের পক্ষে ভোট চেয়ে ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে কেউবা কাগজে হাতে লেখে আবার কেউবা কম্পিউটার কম্পোজ করে পোস্টার বানিয়েছেন। দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ৫ শতাধিক ভোট কাষ্ট হয়েছে বলে জানান প্রধান শিক্ষক মো. আক্তার হোসেন।


গাজীপুর/হাসমত/বুলাকী

     
 
রাইজিংবিডি স্পেশাল ভিডিও