Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৯ শা'বান ১৪৪২

তিন পার্বত্য জেলার মাধ্যমিক স্কুলে হচ্ছে আবাসিক হোস্টেল

নিজস্ব প্রতিবেদক  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:৩০, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ২৩:৫১, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১
তিন পার্বত্য জেলার মাধ্যমিক স্কুলে হচ্ছে আবাসিক হোস্টেল

মানসম্পন্ন শিক্ষার লক্ষ্যে দেশের তিন পার্বত্য জেলার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে হোস্টেল নির্মাণ করা হবে। এ বিষয়ে তথ্য সংগ্রহের কাজও শুরু করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) মাউশির মহাপরিচালক ড. গোলাম ফারুক চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী আবাসিক বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য আমাদের নির্দেশনা দিয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতায় তিন জেলার তথ্য সংগ্রহের কাজ চলছে।

অধিদপ্তর সূত্র জানায়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে আবাসিক সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষ্যে একটি প্রকল্প প্রস্তাব প্রণয়ন করা হয়েছে। প্রকল্পটি চূড়ান্ত করার আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় ব্যানবেইস থেকে সমীক্ষা পরিচালনা করে।

সমীক্ষার আলোকে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটি অনলাইন আলোচনা সভায় প্রাথমিক পর্যায়ে তিন পার্বত্য জেলায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কিছু সংখ্যক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে হোস্টেল নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এ বিষয়ে তিন জেলায় চিঠি দিয়েছে মাউশি। আগ্রহী স্কুলগুলোকে তথ্য দিতেও বলা হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, অগ্রাধিকার ভিত্তিতি হোস্টেল নির্মাণের চাহিদা নিরুপণের জন্য বিদ্যালয়ভিত্তিক শিক্ষার্থী সংখ্যা, যোগাযোগ ব্যবস্থা সংক্রান্ত তথ্য প্রয়োজন। এই তথ্য আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে পাঠাতে বলা হয়েছে।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর জানায়, সারাদেশে এখন কোন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আবাসিক হোস্টেল নির্মাণের কাজ চলছে না। তবে পার্বত্য তিন জেলায় হোস্টেল নির্মাণের একটি প্রকল্প আমাদের হাতে এসেছে।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) মো. আসাদুজ্জামান বলেন, দেশের অনেক জেলার সরকারি ও বেসরকারি মাধ্যমিকে আবাসিক হোস্টেল নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু দেখা যায়, এসব হোস্টেলে শিক্ষার্থী থাকে না। এর সঙ্গে শিক্ষার্থীদের অর্থনৈতিক একটি বিষয়ও জড়িত। একারণে পার্বত্য অঞ্চলে আবাসিক হোস্টেল নির্মাণ করা হবে। যেন শিক্ষার্থীরা এর সুফল পায়। শিগগিরই কাজ শুরু হবে।

কতগুলো হোস্টেল নির্মাণ করা হবে জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. গোলাম ফারুক চৌধুরী বলেন, এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তথ্য আসার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

 

ইয়ামিন/এসএন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে