ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৬ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ২১ ১৪২৯ ||  ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

‘মিশা সওদাগরের পাঁচ টাকার বদনাম নেই’

রাহাত সাইফুল  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৪২, ৯ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১৪:১১, ১০ আগস্ট ২০২২
‘মিশা সওদাগরের পাঁচ টাকার বদনাম নেই’

ঢাকাই চলচ্চিত্রের দাপুটে অভিনেতা মিশা সওদাগর। সম্প্রতি তিনি ‘‘দিন দ্য ডে’ সিনেমা দিয়ে ইন্ডাস্ট্রির কোনো লাভ নেই’’ বলে মন্তব্য করেন। অন্যদিকে বর্তমান সময়ের চিত্রনায়ক বাপ্পি চৌধুরী তাকে ‘সুবিধাবাদী’ বলেন। এ নিয়ে সরগরম হয়ে ওঠে চলচ্চিত্রপাড়া। সেই আলোচনার সূত্র ধরেই রাইজিংবিডির এই প্রতিবেদক কথা বলেন মিশা সওদাগরের সঙ্গে। 

রাহাত সাইফুল: আপনি বলেছেন অনন্তর ‘‘দিন: দ্য ডে’ সিনেমা দিয়ে ইন্ডাস্ট্রির কোনো লাভ নেই’’। 

মিশা সওদাগর: আমি বলেছি, উনি (অনন্ত জলিল) এই ১২০ কোটি টাকা বাজেটে কোনো কিছু তৈরি করেছেন। ধরুন ‘দিন দ্য ডে’র উদাহরণটা আনছি। এই ১২০ কোটি টাকায় আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে যদি একটা স্টুডিও করা যায়। উনি এত বড় ব্যবসায়ী, উনি চলচ্চিত্র ভালোবাসেন। উনি বলেছেন, টাকা-পয়সার জন্য সিনেমা করেন না। উনি বলছেন, ১২০ কোটি টাকার সিনেমা। এটা আমি বিশ্বাসও করেছি। সিনেমা তৈরি কেমন হয়েছে এ নিয়ে সমালোচনাও করিনি। পরামর্শ দিয়েছি উনি এত বড় অঙ্কের টাকা দিয়ে ফিল্ম স্টুডিও, প্রোডাকশন হাউস, ওটিটি প্ল্যাটফর্ম বানালে অভিজ্ঞ, প্রবীণ এবং এই সময়ের মেধাবী নির্মাতা, যোগ্য শিল্পী কলাকুশলীরা কাজ করতে পারবেন। এতে চলচ্চিত্রশিল্পের উন্নতি হবে। শত কোটি টাকা দিয়ে একটি সিনেমা না বানিয়ে এই অর্থে বছরে কমপক্ষে অর্ধশত সিনেমা নির্মাণ করলে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির চেহারা পাল্টে যেতে বাধ্য। এতে অনন্ত জলিল ‘কালচারাল ইম্পর্টেন্ট পারসন’ এবং চলচ্চিত্রের জীবন্ত কিংবদন্তী হয়ে উঠতে পারবেন।

রাহাত সাইফুল: আপনার এই পরামর্শের কথা আমরা শুনেছি। কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো- তার এই সিনেমা আমাদের ইন্ডাস্ট্রির জন্য কি কোনো কাজে আসবে না? 

মিশা সওদাগর: হ্যাঁ এই ১২০ কোটি টাকার প্রজেক্ট ইন্ডাস্ট্রির জন্য কোনো কাজে আসবে না। 

রাহাত সাইফুল: কিন্তু এ সিনেমা প্রসঙ্গে সোহানুর রহমান সোহান, অনুপম হায়াৎ, আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল, বদিউল আলম খোকন বলেছেন এটি ইন্ডাস্ট্রির জন্য ভালো।

মিশা সওদাগর: আমি তাদের বক্তব্য নিয়ে আলোচনায় যেতে চাই না। তারা তাদের মতো বক্তব্য দিয়েছেন।  

রাহাত সাইফুল: এই সিনেমা প্রেক্ষাগৃহে দর্শক ফেরাতে পারেনি বলে মনে করছেন?

মিশা সওদাগর: এটা আমার কাছে কোনো আলোচনাই নয়।

রাহাত সাইফুল: আপনি তো এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন…

মিশা সওদাগর: হ্যাঁ, আমি পেশাদার অভিনেতা। আমি তো পালাতেও করি। আমার কাজই হচ্ছে অভিনয় করা। উনি (অনন্ত জলিল) সৌখিন অভিনেতা। উনার পেশা হচ্ছে ব্যবসা। আমাকে টাকা দিলে তোমার অফিসের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পারফর্ম করবো- আমার তো এটাই কাজ। 

রাহাত সাইফুল: আপনি বলেছেন, সিনেমাটি আপনি দেখেননি। আপনার কোনো অভিমান আছে?

মিশা সওদাগর: না না… উনি (অনন্ত জলিল) যখন বলেছেন তখন আমি ‘পরাণ’ সিনেমা দেখছিলাম সিনেপ্লেক্সে যে কারণে যেতে পারিনি। 

রাহাত সাইফুল: সেটা না হয় সেদিন দেখতে পারেননি। পরে দেখেছেন?

মিশা সওদাগর: আমি সব সময় সিনেমা দেখি। একবার তাকে বললাম, আমার একাধিক টিকিট লাগবে। উনি বললেন, একাধিক টিকিট নেই। আসলে ওই সিনেমার সঙ্গে আমার কিছু না। 

রাহাত সাইফুল: বাপ্পি আপনাকে ‘সুবিধাবাদী’ বলেছেন…

মিশা সওদাগর: দেখো ‘পরাণ’ সিনেমার পরিচালক-প্রযোজক আমাকে দাওয়াত দিয়ে সিনেমা দেখার জন্য নিয়ে গেছে। সিনেমা দেখে আমার ভালো লেগেছে, আমি ভালো বলেছি। এখন যদি কেউ আমাকে ‘সুবিধাবাদী’ বলে তাহলে কি করার থাকে। সর্বশেষ সিনেমায়ও আমি বাপ্পিকে ধরে ধরে অভিনয় শিখিয়েছি। ওর ডাবিং অন্য কেউ করে দেয় সেগুলো আমি কাউকে বলছি না। ও আমার সন্তানতুল্য। মিশা সওদাগরের পাঁচ টাকার বদনাম নেই। বুক ফুলিয়ে এফডিসিতে ঢুকি। 

/তারা/ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়