ঢাকা     শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ২০ ১৪২৯

লিভ-ইন সম্পর্ক: মেরে নায়িকার চোয়ালের হাড় ভেঙে দেয় প্রযোজক

বিনোদন ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৮:৪৪, ৮ ডিসেম্বর ২০২২   আপডেট: ১১:১৬, ৮ ডিসেম্বর ২০২২
লিভ-ইন সম্পর্ক: মেরে নায়িকার চোয়ালের হাড় ভেঙে দেয় প্রযোজক

ভারতীয় সিনেমার পরিচিত মুখ ফ্লোরা সাইনি। তেলেগু সিনেমার মাধ্যমে রুপালি জগতে পা রাখেন এই অভিনেত্রী। তারপর নাম লেখান তামিল, কন্নড় ও হিন্দি ভাষার সিনেমায়। অভিনয় ক্যারিয়ারে পঞ্চাশের অধিক সিনেমায় কাজ করেছেন। উপহার দিয়েছেন আলোচিত ওয়েব সিরিজও।

ব্যক্তিগত জীবনে প্রযোজক গৌরাঙ্গ দোসির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে একাধিকবার খবরের শিরোনাম হয়েছেন ফ্লোরা। তারা লিভ-ইন করেছেন। ২০০৭ সালের দিকে গৌরাঙ্গের সঙ্গে ফ্লোরার সম্পর্ক চূড়ান্ত রকমের তিক্ততায় রূপ নেয়। নিউজ১৮-এর সঙ্গে আলাপকালে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন ‘গান্ধী বাত’খ্যাত এই নায়িকা।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ফ্লোরা বলেন, ‘বম্বেতে আমি আমার মায়ের সঙ্গেই থাকতাম। কিন্তু আমার প্রাক্তন প্রেমিকের কারণে বাড়ি ছাড়ি। কারণ সে চাইছিল তার সঙ্গে থেকে যেন আমি আমার ভালোবাসার প্রমাণ দিই। আমার মা আমাকে বাড়ি ছাড়তে বারণ করেছিলেন। এজন্য তিনি আমার কাজকেও ঘৃণা করতেন; তবু মায়ের কথা শুনিনি।’

প্রেমিক গৌরাঙ্গের সঙ্গে লিভ-ইন শুরুর কিছু দিনের মধ্যে ঘটে বিপত্তি। বিষয়টি স্মরণ করে ফ্লোরা বলেন, ‘শুরুতে গৌরাঙ্গ দোসি খুবই ভালো ছিল। এতটাই ভালো ব্যবহার করেছিল যে, আমার বাবা-মাও তার আচরণে বোকা বনে গিয়েছিলেন। ধীরে ধীরে তার আসল রূপ বের হতে শুরু করে। আমি বাড়ি ছেড়ে তার সঙ্গে থাকতে শুরু করার এক সপ্তাহের মধ্যে আমাকে মারধর করে গৌরাঙ্গ। আমি বুঝতে পারছিলাম না গৌরাঙ্গ কেন আমাকে মারধর করছে; আমার দৃষ্টিতে সে খুবই ভালো মানুষ ছিল।’

সম্পর্ক খারাপ হওয়ার কারণে গৌরাঙ্গের বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন ফ্লোরা। কিন্তু গৌরাঙ্গ তার মুঠোফোন কেড়ে নেন। তা জানিয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘এ অবস্থায় আমার বাবা-মাও গৌরাঙ্গের বাসা থেকে যেতে মানা করেন। আর আমিও বাবা-মায়ের কাছে ফিরে যেতে পারছিলাম না। কারণ সেচ্ছায় বাবা-মায়ের বাড়ি ছেড়েছিলাম। এদিকে গৌরাঙ্গ আমার ফোন কেড়ে নেয়; যাতে আমি কাউকে ফোন করতে না পারি। আমাকে মারধর করতো; আর আমিও ভাবতাম এটা আমারই দোষ। পরিস্থিতি এমন ছিল যে, কথা বলতে গেলেই আমাকে দোষারোপ করতো। আর তার প্রতিক্রিয়ায় মারধর করতো।’

ফ্লোরাকে হত্যার হুমকি দিয়েছিল। তা উল্লেখ করে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘এক রাতে গৌরাঙ্গকে বলি, আমার বাবা-মা কখনো আমাকে মারধর করেনি। আমি এই বাড়ি ছেড়ে চলে যাব। তারপর ব্যাগপত্র গুছিয়ে লিফটের কাছে চলে যাই। সে লিফট পর্যন্ত এসে আমাকে হুমকি দিয়ে বলে— আমি ১০ পর্যন্ত গুনব, যদি ফিরে না আসো তাহলে তোমাকে ও তোমার বাবা-মাকে খুন করব।’

‘আরেক রাতে আমাকে এতটাই মেরেছিল যে, চোয়ালের হাড় ভেঙে গিয়েছিল। গৌরাঙ্গ তার বাবার ছবি বের করে কসম করে বলে, আজ রাতেই আমি তোমাকে খুন করব। আমাকে হুমকি দিয়ে গৌরাঙ্গ তার বাবার ছবিটি রাখার জন্য অন্য ঘরে যায়। আর ওই সময়ে আমি পালিয়ে মায়ের কাছে চলে যাই; সিদ্ধান্ত নিই আর কখনো ওই বাড়িতে ফিরব না।’ বলেন ফ্লোরা। 

এ ঘটনার পর গৌরাঙ্গর বিরুদ্ধে মামলা করেন ফ্লোরা। তা জানিয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘পরের দিন সকালে বাবা-মাকে নিয়ে থানায় যাই। কিন্তু পুলিশ মামলা না নিয়ে তারা গৌরাঙ্গের সঙ্গে ফোনে কথা বলে, উল্টো পুলিশকে গৌরঙ্গ বলে, ‘মামলা করতে আমি থানায় আসব।’ সর্বশেষ বিকাল বেলায় পুলিশ আমাদের লিখিত অভিযোগ গ্রহণ করেন।’

ঢাকা/শান্ত

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়