ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

মহাশ্মশানের কবি কায়কোবাদ

হাকিম মাহি : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৭-২১ ১২:১৪:৩৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৭-২১ ১২:১৪:৩৭ পিএম

হাকিম মাহি: জাতীয় আখ্যান কাব্যগুলোর মধ্যে অন্যতম ‘মহাশ্মশান’কাব্য। তিনি মহাকবি নামের খ্যাতি এই মহাশ্মশান কাব্য রচনার জন্যই পেয়েছেন। আধুনিক বাংলা সাহিত্যের প্রথম মুসলিম কবি কায়কোবাদ। এই মহাকবির ৬৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৫১ সালের ২১ জুলাই আজকের এই দিনে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

কায়কোবাদ ১৮৫৭ সালে ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জ থানার আগলা-পূর্বপাড়া গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি বাঙালি মুসলিম কবিদের মধ্যে প্রথম সনেট রচয়িতা।

মহাকবি কায়কোবাদ মুন্সী কায়কোবাদ নামেও পরিচিত। তাঁর প্রকৃত নাম কাজেম আল কোরায়শী। তাঁর বাবা শাহামাতুল্লাহ আল কোরেশী ঢাকা জেলা জজ কোর্টের একজন আইনজীবী ছিলেন। কায়কোবাদ সেন্ট গ্রেগরি স্কুলে লেখাপড়া করেন। পিতার অকালমৃত্যুর পর তিনি ঢাকা মাদরাসাতে (বর্তমান কবি নজরুল সরকারি কলেজ) ভর্তি হন। সেখানে তিনি প্রবেশিকা পর্যন্ত পড়েন। কিন্তু পরীক্ষা দেননি। তিনি গ্রামে পোস্টমাস্টারের চাকরি নিয়ে চলে যান।

পাশাপাশি তিনি লেখালেখি করতেন। তাঁর লেখা ‘মহাশ্মশান’ অন্যতম সৃষ্টি। ১৯০৪ সালে প্রকাশিত এ মহাকাব্য তিন খণ্ডে বিভক্ত। কায়কোবাদ মুসলিমদের গৌরবময় ইতিহাস থেকে কাহিনী নিয়ে এটি রচনা করেন। ১৯৩২ সালে কলকাতায় বঙ্গীয় মুসলিম সাহিত্য সম্মেলনের প্রধান অধিবেশনে তিনি সভাপতিত্ব করেন।

অল্পবয়স থেকে কায়কোবাদের সাহিত্য-প্রতিভার স্ফুরণ ঘটে। মাত্র ১৩ বছর বয়সে তাঁর প্রথম কাব্য বিরহবিলাপ (১৮৭০) প্রকাশিত হয়। তাঁর অন্যান্য কাব্যগ্রন্থ হচ্ছে: কুসুম কানন (১৮৭৩), অশ্রুমালা (১৮৯৫),  শিব-মন্দির (১৯২২), অমিয়ধারা (১৯২৩), শ্মশান-ভস্ম (১৯২৪) ও মহরম শরীফ (১৯৩২), প্রেমের ফুল (১৯৭০), প্রেমের বাণী (১৯৭০), প্রেম-পারিজাত (১৯৭০) ইত্যাদি।

বাংলা কাব্য সাহিত্যে অনন্য অবদানের জন্য ১৯২৫ সালে নিখিল ভারত সাহিত্য সংঘ তাকে ‘কাব্যভূষণ’, ‘বিদ্যাভূষণ’ এবং ‘সাহিত্যরত্ন’উপাধি দেন। এই গুণী মানুষটি ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন।

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ জুলাই ২০১৯/হাকিম মাহি

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন