ঢাকা, সোমবার, ১৬ চৈত্র ১৪২৬, ৩০ মার্চ ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

গ্রন্থমেলায় রঙিন সাজে সেজেছে ‘কিশোর বাংলা’

ছাইফুল ইসলাম মাছুম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১৭ ২:৩৪:১১ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১৭ ২:৩৪:১১ পিএম

একুশে গ্রন্থমেলায় বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে রঙিন সাজে সেজেছে শিশু-কিশোরদের প্রিয় পত্রিকা ‘কিশোর বাংলা’র স্টল।  পত্রিকাটি সংগ্রহ করতে স্টলে ভিড় করছে শিশু-কিশোর এবং অভিভাবকেরা।  অনেক প্রবীণ মেলায় এসে আবেগাপ্লুত হচ্ছেন কৈশোরের প্রিয় ম্যাগাজিন দেখে। এক সময় সরকারিভাবে প্রকাশিত ‘কিশোর বাংলা’ ১৯৮৩ সালে বন্ধ হয়ে যায়।  পরবর্তী সময়ে ২০১৮ সাল থেকে বেসরকারিভাবে পত্রিকাটি আবার প্রকাশিত হচ্ছে।

এক সময়ের পাঠকপ্রিয় পত্রিকাটি আরো নতুনত্ব এবং নানা চমকপ্রদ আয়োজন নিয়ে এখন প্রকাশিত হচ্ছে।  খুব কম সময়ে আবার পাঠকপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে পত্রিকাটি।  মাসিক নিয়মিত সংখ্যার পাশাপাশি বিশেষ সংখ্যাও করছে তারা।  ‘কিশোর বাংলা’র বিশেষ সংখ্যাগুলোর মধ‌্যে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন সংখ্যা, ভূত সংখ্যা, এডভেঞ্চার সংখ্যা, বিজ্ঞান সংখ্যা ইত্যাদি।  বইমেলায় কিশোর বংলার স্টলে পত্রিকাটির চলতি সংখ্যাসহ পুরনো সংখ্যাগুলো বিক্রির জন্য প্রদর্শন করা হচ্ছে।  প্রতিটি সংখ‌্যা চমৎকার প্রচ্ছদ আর দারুণ অলঙ্করণ এবং সূচিসমৃদ্ধ।  পত্রিকাটির সম্পাদনা সহকারী শিখা আক্তার জানালেন, ১২টি সংখ্যা এক সঙ্গে কিনলে মূল্য ছাড় রয়েছে।  চলছে বিশেষ অফার।

মেয়েকে নিয়ে ‘কিশোর বাংলা’ সংগ্রহ করতে এসেছিলেন কেরাণীগঞ্জের ব্যবসায়ী হারুন উর রশিদ (৫২)।  তিনি জানালেন, কৈশোরে তার প্রিয় ম‌্যাগাজিন ছিল কিশোর বাংলা।  মেলায় নতুন রূপে প্রিয় পত্রিকাটি দেখে থমকে দাঁড়িয়েছেন।  মেয়েকে পরিচয় করিয়ে দিলেন কিশোর বাংলার সঙ্গে।

সরকারি কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহরিয়ার কিশোর বাংলা স্টলে এসেছেন ভাগ্নি লাবিবাকে নিয়ে।  তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী লাবিবার পছন্দের ম্যাগাজিন এটি।  কেন এই পত্রিকা পছন্দ জানতে চাইলে লাবিবা চার রঙা অলঙ্করণের প্রশংসা করে বলে, আমি বাসায় এই ছবিগুলো দেখি।  খুব ভালো লাগে।

 

 

স্টলে কথা হয় পত্রিকার যুগ্ম সম্পাদক মিয়া মনসফের সঙ্গে।  তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘শিশু-কিশোরদের প্রতিভা বিকাশে ভূমিকা রাখছে কিশোর বাংলা।  সারাদেশের শিশু-কিশোর কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি।  কিশোর বাংলা নামে ওয়েবসাইটও রয়েছে, আছে ফেইসবুক পেইজ, সেখানে শিশু-কিশোরদের নিয়ে দেশ-বিদেশের সংবাদ প্রকাশ করা হয়।’

উইকিপিডিয়ার তথ্য অনুযায়ী, কিশোর বাংলা ভারত উপমহাদেশের একমাত্র কিশোর সংবাদপত্র যা বাংলাদেশে ১৯৭৯ থেকে ১৯৮৩ পর্যন্ত প্রকাশিত হয়েছে।  তখন বাংলাদেশে অনেক শিশু-কিশোর সাহিত্য পত্রিকা থাকলেও এটিই ছিল একমাত্র কিশোর সংবাদপত্র।  পত্রিকাটির আকার ছিল ট্যাবলয়েড।  তখন চার রঙে ছাপা হতো।  পৃষ্ঠা সংখ্যা ছিল ৩২।  মূল্য ছিল ২ টাকা। পত্রিকার মাধ্যমে ইমদাদুল হক মিলন, মুহাম্মদ জাফর ইকবালসহ বহু খ্যাতিমান বাংলা সাহিত্য অঙ্গনে নিজেদের জানান দিয়েছিলেন।

‘কিশোর বাংলা’ বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর নতুন আঙ্গিকে ২০১৮ সালে পুনরায় প্রকাশিত হচ্ছে।  এখন এটি মোহাম্মদী গ্রুপ অফ কোম্পানিজ লিমিটেড থেকে প্রকাশিত হচ্ছে।  বর্তমানে পত্রিকাটির সম্পাদক মীর মোশাররেফ হোসেন।

 

ঢাকা/তারা