Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ২৪ জুলাই ২০২১ ||  শ্রাবণ ৯ ১৪২৮ ||  ১২ জিলহজ ১৪৪২

‘পথের পাঁচালী’র বিভূতিভূষণের প্রয়াণ দিবস

নিউজ ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৮:৫২, ১ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ০৮:৫৫, ১ নভেম্বর ২০২০
‘পথের পাঁচালী’র বিভূতিভূষণের প্রয়াণ দিবস

জনপ্রিয় ঔপন্যাসিক হিসেবে বাংলা সাহিত্যে দু'জন বিভূতিভূষণ রয়েছেন।  একজন বন্দ্যোপাধ্যায় আরেকজন মুখোপাধ্যায়।  বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রয়াণ দিবস আজ। 

এই অমর কথাশিল্পী ১৯৫০ সালের ১ নভেম্বর বিহারের ঘাটশিলায় মৃত্যুবরণ করেন।  শিক্ষকতার মাধ্যমেই তার পেশাগত জীবনে প্রবেশ।  জীবনের শেষ সময়েও শিক্ষকতায়ই ছিলেন।  এই লেখকের লেখালেখির জীবন ছিল স্বল্প।  মাত্র আঠাশ বছর।  এই লেখকের আয়ু ছিল মাত্র ৫৬ বছর। 

ঔপন্যাসিকের অনন্য কীর্তি ‘পথের পাঁচালী’।  এটির চলচ্চিত্রায়ন করেন বিশ্বনন্দিত চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়। ফলে এই উপন্যাসের খ্যাতির পরিধি ছড়িয়ে পড়ে।  এটিই তার প্রথম উপন্যাস, একই সঙ্গে প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থও। 

কেবল কী পথের পাঁচালী- অপরাজিত, আরণ্যক, ইছামতির মতো অসামান্য সব উপন্যাসের রচয়িতা তিনি।  সত্যজিৎ অপরাজিত এবং অশনি সংকেত উপন্যাস দুটি নিয়েও চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন। 

বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় জন্ম ১৮৯৪ সালের ১২ সেপ্টেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ২৪ পরগনা জেলার বারাকপুরে।   বিভূতিভূষণ শৈশব থেকেই মেধাবী ছিলেন।  তেইশ বছর বয়সেই বিয়ে করেন।  বিয়ের বছরখানেক বাদে স্ত্রী গৌরী মারা যান।  প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর দীর্ঘ ২২ বছর পরে আবার বিয়ে করেন ৪৬ বছর বয়সে বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলার মেয়ে রমাদেবীকে।

তার রচনাসম্ভারের মধ্যে রয়েছে ১৫টি উপন্যাস, সাতখানা কিশোর উপন্যাস, দুইশ’র বেশি ছোটগল্প।  এসবের বাইরে ভ্রমণকাহিনী, ডায়েরি, প্রবন্ধ, অনুবাদ, ব্যাকরণ বইও তিনি লিখেছেন।

তার সম্পর্কে অন্নদাশঙ্কর রায় লিখেছেন, ‘এমন প্রকৃতি-পাগল সাহিত্যিক বাংলা সাহিত্যে বিরল।  প্রকৃতিকে চোখে দেখে ভালো লাগে না কার? কিন্তু তাকে ভালোবেসে তার গভীরে অবগাহন করা অন্য জিনিস।  বিভূতিকে সেই জন্যে বছরে কয়েকমাস অরণ্যবাস করতে হতো। আর কয়েক মাস পল্লীর কোলে কাটাতে হতো।  ইছামতী নদীর কূলে।  তার জীবনের যুগল মেরু ছিল অরণ্য ও দক্ষিণায়ন।  শহরে থাকলেও তিনি শহুরে ছিলেন না।  কোনোদিন হতে চাননি। নাগরিক সভ্যতা তাকে বশ করতে পারেনি।  তার পোশাকে-আশাকে নাগরিকতার লেশ ছিল না।  বৈঠকখানায় তিনি বেমানান।  চিড়িয়াখানায় যেমন চিড়িয়া।’

ঢাকা/শাহ মতিন টিপু

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়