RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শুক্রবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৭ ||  ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

হিংসার উপত্যকা : অমিত শাহের দরবারে উপজাতি নেতৃত্ব

আগরতলা থেকে অভিজিৎ ঘোষ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:০৩, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
হিংসার উপত্যকা : অমিত শাহের দরবারে উপজাতি নেতৃত্ব

প্রত্যাশিতভাবে ভারতের লোকসভা ও রাজ্যসভায় পাস হলো নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল।কিন্তু ত্রিপুরা, আসামসহ গোটা উত্তর-পূর্বাঞ্চল জ্বলছে ক্যাবে'র বিরোধিতায়।গত কয়েকদিনে হিংসার উপত্যকায় পরিণত হয়েছে উত্তর-পূর্বের এই দুই রাজ্য।

গত ৯ ডিসেম্বরে থেকে জয়েন্ট মুভমেন্ট এগেইনস্ট সিটিজেনশিপ (জেএমএসিএবি) অ্যামেন্ডমেন্ট বিল (জেএমএসিএবি) নামের সংগঠনের অনির্দিষ্টকালের হরতালে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে ত্রিপুরার জনজীবন। ধর্মনগর থেকে সাব্রুম সব জায়গাতেই জনজীবনে ছন্দ পতন ঘটে। গত ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত আন্দোলনকারীরা সহিংস কর্মকাণ্ড চালায়। বাঙালি বাড়ি ঘরে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, মারধর, বোমা, গুলতি থেকে মার্বেল নিক্ষেপ, গাড়িতে অগ্নিসংযোগ সবই চালিয়ে যায় আন্দোলনকারীরা। রাস্তাও অবরোধ করে রাখে। ফলে বিষিয়ে উঠে গোটা রাজ্যের পরিবেশ।

গত ১১ ডিসেম্বর রাতে জেএমএসিএবি’র নেতৃত্ব সাক্ষাৎ করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের সঙ্গে। মহাকরণে দীর্ঘ সময় তাদের মধ্যে বৈঠক হয়। শেষ পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার পর হরতাল প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়। তারপরও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে নি।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গোটা রাজ্যে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত কেন্দ্রীয় বাহিনী। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট। কারণ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে হিংসার ছবি ও বিভিন্ন জাতি বিদ্বেষী মন্তব্য ছাড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় প্রাথমিকভাবে ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছিল ৪৮ ঘণ্টার জন্য। পরবর্তী সময়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ রাখতে আরো ৪৮ ঘণ্টা ইন্টারনেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য প্রশাসন।

আনুষ্ঠানিকভাবে হরতাল বন্ধের ঘোষণা দিলেও রাজধানী আগরতলা ব্যতীত রাজ্যের সর্বত্রই সৃষ্টি হয়েছে দাঙ্গার আবহ। ধলাই জেলার গন্ডাছড়া ও উত্তর জেলের কাঞ্চনপুরে দুটি বাঙালি সংগঠন অনির্দিষ্টকালের জন্য ফের হরতালের ঘোষণা দিয়েছে। ফলে পরিস্থিতি আরো বিগড়ে গেছে। টানা চারদিন জাতীয় সড়ক বন্ধ থাকায় রাজ্যে দেখা দিয়েছে তীব্র পেট্রল সংকট। পাশাপাশি প্রতিবেশি রাজ্য আসামেও হরতাল থাকায় জ্বালানি সংকট আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে।

রাজ্যের তেলিয়ামুড়া মহকুমার হদ্রাই এলাকায় উগ্র আন্দোলনকারীদের গুলিতে গুরুতর জখম হন এক যুবক। তার নাম সাগর দেবনাথ। সে বর্তমানে আগরতলার জিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার বুকে গুলির আঘাত লেগেছে।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাঙালিদের মধ্যে প্রচণ্ড ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। যদিও ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার জেএমএসিএবি’র নেতৃত্ব ও রাজ্যে শাসক দলের শরিক আইপিএফটি নেতৃত্ব দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন। এই বৈঠক যথেষ্ট ফলপ্রসু হয়েছে বলে দাবি করেন সংগঠনের কনভেনার এনটনি দেববর্মা।

তিনি বলেন,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ক্যাব নিয়ে সাবলিল আলোচনা হয়েছে। এই আলোচনা থেকে বেরিয়ে এসেছে সমাধান সূত্র। এখন রাজ্যে শান্তি সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য সবাই একজোট হয়ে কাজ করবে।


ঢাকা/এনএ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়