ঢাকা, রবিবার, ১৪ চৈত্র ১৪২৬, ২৯ মার্চ ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

পাকিস্তানিরা বাঙালিদের নিচু জাতি মনে করতো : পাক বিজ্ঞানী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১৮ ৫:৩৮:৪৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১৮ ৫:৩৮:৪৮ পিএম

পাকিস্তানের পরমাণু বিজ্ঞানী পারভেজ আমিরালি হুদভয় বলেছেন, পাকিস্তানিরা বাঙালিদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে, তাদেরকে নিচু জাতি হিসেবে বিবেচনা করেছে, তাদেরকে শোষন করেছে।

বন্দরনগরী করাচিতে সাহিত্য উৎসব ‘আদাব ফেস্টিভ্যাল’ তিনি এসব কথা বলেন। গত ৩১ জানুয়ারি শুরু হয়ে ২ ফেব্রুয়ারিতে পর্যন্ত চলে এই আয়োজন। সম্প্রতি হুদভয়ের আলোচনার ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ভাইরাল হয়।

পাকিস্তান প্রসঙ্গে হুদভয় বলেন, ‘গত ৭৩ বছর ধরেই আমরা নিজেদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছি। এখনো তা চালিয়ে যাচ্ছি। পাকিস্তান একটি সংশয়ী রাষ্ট্র। কারণ তার জন্মই হয়েছিল সংশয়ের মধ্যে।’

পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মাদ আলি জিন্নাহর সমালোচনা করে তিনি বলেন, পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার জন্য দুটি কারণ দেখানো হয়েছিল। এর একটি হচ্ছে, উপমহাদেশে থাকা দুটি পাশাপাশি জাতির মধ্যে বিদ্বেষ রয়েছে। তারা কখনো শান্তিপূর্ণভাবে বাস করতে পারবে না। এর দ্বিতীয়টি হচ্ছে মুসলমানরা একটি দেশ প্রতিষ্ঠা করবে।

জিন্নাহর সেই তত্ত্ব ভুল ছিল দাবি  করে তিনি বলেন, ‘যদি সব অঞ্চলের মুসলমানদের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য পাকিস্তান গঠন করা হতো তাহলে আজকে আমাদের বাংলাদেশকে দেখতে হতো না। বাংলাদেশ নিয়ে দাপ্তরিকভাবে আমাদের এখানে কথা বলা নিষেধ। কারণ একে ষড়যন্ত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এর চাইতে বড় ফালতু কথা আর কিছু হতে পারে না। আমরা বাঙালিদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছি, তাদেরকে নিচু জাতি হিসেবে বিবেচনা করেছি, আমরা তাদের শোষন করেছি। পরে আমরা তাদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছি। মুসলমানরা যদি শান্তিপূর্ণভাবে সবাই একসঙ্গে থাকতো তাহলে আমরা বালুচিস্তানে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন দেখতাম না। এই বিষয়েও কথা বলার অনুমতি নেই ‘

হুদভয় বলেন, ‘পাকিস্তান কেমন রাষ্ট্র হবে তা এর প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলি জিন্নাহ স্পষ্ট করতে পারেন নি। তিনি কখনো এ বিষয়ে গবেষণা করেননি, একটি প্রবন্ধও লেখেননি। তিনি বিভিন্ন সময় প্রচুর বক্তৃতা দিয়েছেন। তবে একেক সময় একেক কথা বলেছেন। ১৯৪৮ সালে করাচির বার কাউন্সিলে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেছিলেন, এটা হবে মুসলিম দেশ যেখানে ইসলামিক আইন চলবে।’

‘১৯৪৫ সালে জিন্নাহকে মাওলানা মাদানি প্রশ্ন করেছিলেন, পাকিস্তান কেমন রাষ্ট্র হবে। জবাবে জিন্নাহ বলেছিলেন,  চিন্তা করবেন না এখন। এখনো প্রচুর সময় আছে। পাকিস্তান যখন গঠন হবে তখন আমরা এটা নিয়ে ভাবব।’

পাকিস্তান সংশয়ী রাষ্ট্র হিসেবে জন্ম নিয়েছে উল্লেখ করে হুদভয় বলেন, ‘পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠন ও তা টিকিয়ে রাখার জন্য শক্তিশালি মৌলভিত্তির দরকার ছিল। এটি ফেডারেশন রাষ্ট্র হবে নাকি নন-ফেডারেশন হবে সেটা নির্ধারণ করেননি জিন্নাহ। প্রয়োজন ছিল আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অগ্রসরের এই যুগে রাষ্ট্র কিভাবে টিকে থাকবে তার আলোচনার। কিন্তু এর কোনোটাই করা হয়নি।পাকিস্তান একটি সংশয়ী রাষ্ট্র হিসেবে জন্ম নিয়েছে। ১৯৭১ সালে দ্বিজাতি তত্ত্ব যখন বঙ্গোপসাগরে যে পড়লো তখন সেই সংশয় শেষ হওয়া উচিৎ ছিল। এরপরই আমাদের দ্বিজাতি তত্ত্ব পুরোপুরি ভুলে যাওয়া উচিৎ ছিল। এটা ফালতু একটি বিষয়।’

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিরও ভূয়সী প্রশংসা করেন হুদভয়।

তিনি বলেন, ‘আমাদের জ্ঞাতিভাই বাংলাদেশের দিকে তাকিয়ে দেখুন! আমাদের চেয়ে অনেক ভালো করছে তারা। তাদের বৈদেশিক মুদ্রা তহবিল আমাদের চারগুণ। জীবনযাত্রার মান সূচকেও তারা অনেক এগিয়ে।’

ভিডিও




ঢাকা/শাহেদ