RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২২ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ৭ ১৪২৭ ||  ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

করোনার ১৭০ টিকার উন্নয়ন চলছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:০৩, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ২২:০৭, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০
করোনার ১৭০ টিকার উন্নয়ন চলছে

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ বা চিকিৎসায় বিশ্বব্যাপী গবেষকরা ১৭০টিরও বেশি টিকার উন্নয়ন নিয়ে কাজ করছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই টিকা প্রার্থীদের পর্যবেক্ষণে রেখেছে বলে রোববার দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

সাধারণত টিকার পরীক্ষার জন্য কয়েক বছর সময়ে লেগে যায়। এছাড়া পরীক্ষা শেষে টিকার বিপুল উৎপাদনের জন্য আরও সময়ের প্রয়োজন পড়ে। তবে করোনা মহামারির পর বিজ্ঞানীরা এর প্রতিরোধক টিকার উন্নয়নে সর্বশক্তি নিয়োগ করেছেন। ১২ থেকে ১৮ মাসের মধ্যে এই টিকার উন্নয়ন করার ব্যাপারে আশাবাদী বলে তারা জানিয়েছেন।  

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রকাশিত টিকা উন্নয়ন তালিকায় দেখা গেছে, এই মুহূর্তে বিশ্বে যে কয়টি প্রতিষ্ঠান করোনার টিকার তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালে রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যাল্যায় ও আস্ট্রাজেনেকা, চীনের ক্যানসিনো বায়োলোজিক্যাল ও বেইজিং ইনিস্টিটিউট অব বায়োটেকনোলজি, গামালিয়া রিসার্চ ইনিস্টিটিউ, চীনের সিনোভ্যাক, উহান ইনিস্টিটিউ বায়োলজিক্যাল প্রোডাক্টস, বেইজিং ইনিস্টিটিউট অব বায়োলজিক্যাল প্রোডাক্টস এবং যুক্তরাষ্ট্রের  মর্ডানা ও পিফজার। ট্রায়ালের তৃতীয় ধাপে রয়েছে মাত্র তিনটি প্রতিষ্ঠানের টিকা। বাকীগুলোর কোনোটি প্রথম ধাপে এবং কোনোটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল-পূর্ব ধাপে রয়েছে।

সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, অক্টোবরেই টিকা পাচ্ছে তার দেশ। মর্ডানা ও পিফজার এই টিকা সরবরাহ করবে। তবে গত সপ্তাহে মর্ডানা জানিয়েছে, আগামী বছরের আগে তাদের টিকা বাজারে আসার সম্ভাবনা নেই। আর পিফজার সরাসরি ট্রাম্পের দাবি নাকচ না করলেও জানিয়েছে, অক্টোবরে হয়তো তাদের টিকার ফলাফল হাতে আসবে। ট্রায়ালে অংশগ্রহণকারী এক স্বেচ্ছাসেবক অসুস্থ হয়ে পড়ায় চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ট্রায়াল স্থগিত করেছিল আস্ট্রাজেনেকা। তবে গত সপ্তাহে তারা আবারও ট্রায়াল শুরু করেছে। সিনোভ্যাক অবশ্য দাবি করেছে, তারা চলতি বছরেই হয়তো টিকা বাজারে আনতে পারবে।
 

ঢাকা/শাহেদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়