Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ৪ ১৪২৮ ||  ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ক্ষুব্ধ ট্রাম্প বিদায়ের আগে যেসব অঘটন ঘটাতে পারেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫০, ৮ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ০১:২৪, ৯ নভেম্বর ২০২০
ক্ষুব্ধ ট্রাম্প বিদায়ের আগে যেসব অঘটন ঘটাতে পারেন

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজয় ঘটেছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের। দেশটির নিয়ম অনুযায়ী, ২০ জানুয়ারি নতুন প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে তাকে। অর্থাৎ হোয়াইট হাউজ ছাড়তে সব মিলিয়ে তিনি ১১ সপ্তাহ সময় পাচ্ছেন। পরাজয়ে ক্ষুব্ধ ট্রাম্প চাইলে এই সময়ের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে বড় ধরনের বিপর্যয় ঘটিয়ে ফেলতে পারেন।

ভোটের পরের দিন বুধবার প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন ট্রাম্প। দেশটিতে করোনার সংক্রমণ হু হু বাড়ার পরও শীর্ষস্থানীয় সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউসিকে নির্বাচনের পর বরখাস্ত করা হবে বলে হুমকি দিয়েছিলেন তিনি। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তোলা ট্রাম্প তার হুমকি বাস্তবায়ন করলে মহামারিতে আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে তা আরেকটি বিপর্যয় সৃষ্টি করতে পারে।

রাজনৈতিক কলাম লেখক ম্যালকম ন্যান্সি বলেছেন, ‘চীনা দোকানের মধ্যে হাতে হাতুড়ি থাকলে ক্রুদ্ধ শিশু যেমন ধ্বংসযজ্ঞ চালায় ট্রাম্প ক্ষমতা হারালে তিনি তার শেষ ৯০ দিন যুক্তরাষ্ট্রকে সেভাবে তছনছ করে দিতে পারেন। আমরা সম্ভবত ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ রাজনৈতিক ক্ষোভ দেখতে পাব। তিনি হয়তো বিশাল আঘাত করে বিদায়ের সিদ্ধান্ত নিতে পারেন, হয়তো তিনি নির্বাচনের ফল মানবেন না। কে জানে কোণঠাসা স্বৈরশাসক কী করে বসে।’

ক্ষমতা থেকে বিদায়ের পর করোনা মহামারি ঠেকাতে দায়িত্বে অবহেলা, করের তথ্য গোপনসহ নানা বিষয়ে জবাবদিহিতার মুখে পড়তে পারেন ট্রাম্প। বিদায়ের আগে তিনি হয়তো দায়মুক্তি নিয়ে কোনো নির্বাহী আদেশ জারি করতে পারেন। এক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টকেও হয়তো তিনি কাজে লাগানোর চেষ্টা করতে পারেন।

ন্যান্সি বলেন, ‘তিনি নিজের দায়মুক্তির ব্যবস্থা করবেন। এ ব্যাপারে কোনো প্রশ্নই নেই। তিনি হয়তো আশা করবেন সুপ্রিম কোর্ট তাকে রক্ষাকবচ দেবে। তিনি তার জীবনে সব জিনিস নির্ধারণ করে নিয়েছিলেন এবং এখন তার বিশ্বাস আমেরিকান বিচার ব্যবস্থার মালিক তিনি।’

পরিবেশ ও শিল্প নিয়ন্ত্রণের বিরুদ্ধে নির্বাহী আদেশও জারি করতে পারেন ট্রাম্প। তবে পরাজিত ট্রাম্প হয়তো রাজনীতির মাধ্যমে কম প্রভাবিত হতে পারেন এবং তিনি নিজের স্বার্থের দিকে বেশি নজর দিতে পারেন বলে ধারণা বিশ্লেষকদের। 

ন্যান্সি অবশ্য গণ অসন্তোষের ব্যাপারে অনেক বেশি উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তার ধারণা সশস্ত্র মিলিশিয়া, শ্বেত আধিপত্যবাদীরাসহ ট্রাম্পের সমর্থকরা অস্ত্র হাতে রাস্তায় নেমে পড়তে পারেন।

তিনি বলেছেন, ‘১০০ ট্রাকের একটি বহর নিয়ে সিরিয়ার মসুল যাওয়ার মতো তারা হয়তো রাস্তায় নেমে পড়বে। এটি বিদ্রোহের মতো। আমাদের খুঁজে বের করতে হবে যে, ধ্বংসলীলার মধ্য দিয়ে তাদের উত্থান হয় কিনা এবং তারা বলে কিনা আমরা এটি মানবো না, ডোনাল্ড ট্রাম্প আমাদের লোক...।’

ঢাকা/শাহেদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ