ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ আশ্বিন ১৪২৬, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে লুটপাটের প্রমাণ

এম এ রহমান মাসুম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৮-২২ ৮:২৫:১৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৮-২২ ৮:২৫:১৫ পিএম
বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে লুটপাটের প্রমাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: শহররক্ষা বেড়িবাঁধের নির্মাণ ও অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির ৪০ দিনের প্রকল্পে লুটপাটের প্রমাণ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদক অভিযোগ কেন্দ্রে আসা অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার রাজশাহীর তাহেরপুর পৌরসভা ও শেরপুর জেলার অধীন দুই প্রকল্পে সংস্থাটির পৃথক অভিযানে এমন প্রমাণ পাওয়া যায়।

দুদক জানায়, রাজশাহীতে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলার জন্য তাহেরপুর পৌরসভা এলাকায় অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় তাহেরপুর শহররক্ষা বেড়িবাঁধের নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে দুদকের একটি দল সেখানে যায়। সরেজমিনে দেখা যায়, প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪১৫ মিটার দৈর্ঘ্যের বেড়িবাঁধের প্রকল্পের ৪০০ মিটারের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। প্রকল্প পরিদর্শনে দেখা যায়, অত্যন্ত নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ায় নির্মাণের ৩ মাস যেতে না যেতেই বাঁধের প্রায় ৬০ ভাগ নদীতে বিলীন হয়ে গিয়েছে। বাঁধের অন্যান্য অংশেও ফাটল দেখা দিয়েছে। দুদক টিম প্রকল্প সংশ্লিষ্ট নথিপত্র সংগ্রহ করেছে। পরবর্তীতে আইনি পদক্ষেপ নিবে।

এদিকে শেরপুর জেলার সদর উপজেলার চরপক্ষিমারী ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির ৪০ দিনের প্রকল্পে দুর্নীতির সত্যতা পায় দুদক টিম। নন্দীজোড় গাজী মেম্বারের বাড়ী হতে খাসপাড়া কামারপাড়া দেলোয়ারের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা মেরামতের জন্য ৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়। এতে ৮০ জন উপকারভোগীর কাজ করার কথা থাকলেও মাত্র ১৮ জনকে কাজ দিয়ে বাকি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পায়। এছাড়া আরো চার-পাঁচটি প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাছাই কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার মোট ছয়টি অভিযান পরিচালনা করা হয় বলে দুদকের জনসংযোগ দপ্তর জানিয়েছে।

রাজধানীর উত্তরা বিআরটিএতে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও ফিটনেস সার্টিফিকেট এবং নতুন নম্বর প্লেট দেয়াসহ বিভিন্ন সেবাদানে ঘুষ এবং গ্রাহক হয়রানির অভিযোগে অভিযান চালায় দুদক টিম। দুদক টিমের উপস্থিতি বুঝতে পেরে কয়েকজন দালাল দৌড়ে পালিয়ে যায়। কিছু সেবাপ্রার্থী অভিযোগ জানান, তাদের কাজ অনেকদিন যাবত পেন্ডিং রয়েছে। দিনের পর দিন ঘুরে তারা তাদের কাজ সমাধান করতে পারছেন না।  এ সময় উপস্থিত সেবা প্রার্থীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স সমস্যার সমাধান করা হয়।

অন্যদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কারাগারের ক্যান্টিনের খাদ্য দ্রব্যের নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশী রাখা এবং কাঁচামাল বাইরে বিক্রি করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে ক্যান্টিনে মূল্য তালিকার চেয়ে ২০-৪০ টাকা করে বেশি নেওয়ার প্রমাণ মিলেছে। এ সম্পর্কে জেল কর্তৃপক্ষকে জানতে চাওয়া হলে তারা ঘটনা আমলে নিয়ে দ্রুত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে মর্মে দুদক টিমকে আশ্বস্ত করে।

ভূয়া সনদের মাধ্যমে শিক্ষক পদে নিয়োগ ও সেটেলমেন্ট অফিসে জমির নকশা, রেকর্ড, পর্চা শ্রেণি পরিবর্তন বাবদ ঘুষ ও গ্রাহক হয়রানির অভিযোগে নড়াইলে আরও দুটি অভিযান পরিচালিত হয়। সেইসঙ্গে সরকারি খাসজমি দখল, নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, ধান সংগ্রহে অনিয়মসহ বিভিন্ন অভিযোগে আরো একটি অভিযান পরিচালিত হয়।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/২২ আগস্ট ২০১৯/এম এ রহমান/সাজেদ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন