ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বিডিবিএলের সাবেক জিএম কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৮ ৬:৪৮:১৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-১৮ ৬:৪৮:১৭ পিএম

জাল দলিলপত্র দিয়ে প্রায় ১৭৪ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেডের (বিডিবিএল) প্রিন্সিপাল শাখার সাবেক জেনারেল ম্যানেজার সৈয়দ নুরুর রহমান কাদরীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

সোমবার ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ শুনানি শেষে জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে আসামিকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান।

আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জামিনের আবেদন করেন। দুদকের পক্ষ থেকে জামিনের বিরোধিতা করা হয়। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

রোববার বিকেলে রাজধানীর মৎস্য ভবন এলাকা থেকে সৈয়দ নুরুর রহমান কাদরীকে গ্রেপ্তার করে দুদক।

গত ২ সেপ্টেম্বর নুরুর রহমান কাদরীসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে সংস্থাটি।

মামলার আসামিরা হলেন- এম এম ভেজিটেবল অয়েল প্রোডাক্টস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. হেফাজেতুর রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক জহির উদ্দিন, পরিচালক কফিল উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, রফিক উদ্দিন, শফিক উদ্দিন, জসিম উদ্দিন, লুসিডা ট্রেডিংয়ের মালিক মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন চৌধুরী, মেসার্স গ্লোব ইন্টারন্যাশনালের মালিক মো. মাহবুবুল আলম, বিডিবিএলের প্রিন্সিপাল শাখার সাবেক জেনারেল ম্যানেজার সৈয়দ নুরুর রহমান কাদরী ও সাবেক সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (এসপিও) দীনেশ চন্দ্র সাহা।

অনুসন্ধান প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেডের (বিডিবিএল) প্রিন্সিপাল শাখার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জাল ডকুমেন্ট ও বেনিফিসিয়ারি প্রতিষ্ঠানের বাস্তব অস্তিত্ব আছে কি না তা যাচাই না করে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে। জাল নথিপত্র জেনেও আসামিরা ক্ষমতা অপব্যবহার করে আর্থিক সুবিধা নেয়ার উদ্দেশ্যে মোট ১৭৪ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে দুদকের অনুসন্ধানে প্রমাণ মিলেছে। একই সঙ্গে আত্মসাৎ করা ওই অর্থের হস্তান্তর ও রূপান্তরের প্রমাণ মিলেছে অনুসন্ধানে।

আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারা, দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা ও মানিলন্ডারিং আইনে অভিযোগ আনা হয়।


ঢাকা/মামুন খান/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন