ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

স্লিপে স্লিপে ঘুষ আদায়

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-০২ ৯:৫০:৫৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-০৩ ৮:২৪:৩২ এএম

খুলনা বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসে স্লিপের মাধ্যমে আদায় হচ্ছে ঘুষের টাকা। পাসপোর্ট করতে অবৈধভাবে প্রতি স্লিপে ঘুষ হিসেবে আদায় হচ্ছে ২ হাজার টাকা।

অফিসের এক নৈশ প্রহরীর কাছেই পাওয়া গেল ৬৩টি পাসপোর্ট ডেলিভারি স্লিপ। যেখানে প্রতিটি স্লিপের বিপরীতে ঘুষ আদায় হচ্ছে ২ হাজার টাকা। খুলনা পাসপোর্ট অফিসে মিললো এমন অনিয়মের তথ্য-প্রমাণ।

দালালদের দৌরাত্ম্য এবং গ্রাহক হয়রানির অভিযোগে সোমবার অভিযান চালয় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) বিশেষ টিম। দুদকের জনসংযোগ দপ্তর এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

অভিযানে নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত অর্থ আদায় ও গ্রাহক হয়রানির দায়ে পাসপোর্ট অফিসের ২ আনসার সদস্যকে অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। অন্যদিকে এর সঙ্গে খুলনা বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের ৪ কর্মচারীর সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেছে দুদক।

দুদক জানায়, সরেজমিন অভিযানে দুদক টিম পাসপোর্ট অফিস চত্বরে ২ জন দালালকে অবৈধ অর্থ গ্রহণরত অবস্থায় পায়। পরবর্তী সময়ে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের সহায়তায় তাঁদের অর্থদণ্ড এবং কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। দালালদের মধ্যে বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের ২ আনসার সদস্য এবং একজন উচ্চমান সহকারীর সাথে যোগসাজশে পাসপোর্ট প্রতি ৫ হাজার ৫০০ টাকা নিয়ে পাসপোর্ট করিয়ে নেয়ার অপরাধ প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেন। যেখানে প্রকৃত ফি ৩ হাজার ৪৫০ টাকা।

দুদক আরও জানায়, পাসপোর্ট অফিসের এক নৈশ প্রহরীর কাছে ৬৩টি  ডেলিভারি স্লিপ পাওয়া যায়। পাসপোর্ট প্রস্তুত হলেও টাকার বিনিময়ে ডেলিভারি দেয়ার উদ্দেশ্যে স্লিপগুলো রাখা হয়েছে। দুদক টিম কয়েকজন সেবা গ্রহীতাকে ফোন করলে তারা জানান যে, প্রতিটি স্লিপে তাঁদের নিকট থেকে ৩ হাজার ৪৫০ টাকার পরিবর্তে ৫ হাজার ৫০০ টাকা করে গ্রহণ করা হয়। টিম পাসপোর্ট অফিসের উক্ত ৪ জন কর্মচারীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে।

খুলনার পাসপোর্ট অফিসের চরম এ অব্যবস্থাপনার বিষয়ে কমিশনে দৃষ্টি আকর্ষণ করে টিম। পরবর্তী সময়ে অনুসন্ধানের অনুমতি চাইবে বলে জানিয়েছে দুদকের জনসংযোগ দপ্তর।


ঢাকা/এম এ রহমান/মাহি

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন