RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ৯ ১৪২৭ ||  ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সেই পুলিশ সদস্যের শাশুড়িকে গ্রেপ্তারের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৮:৪২, ২৫ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
সেই পুলিশ সদস্যের শাশুড়িকে গ্রেপ্তারের দাবি

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নিজের পিস্তলের গুলিতে আত্মহত্যা করা পুলিশ সদস্য আব্দুল কুদ্দুসের স্ত্রী ও শাশুড়িকে গ্রেপ্তারের দাবি জা‌নি‌য়ে‌ছে এইড ফর মেন ফাউন্ডেশন।

শ‌নিবার জাতীয় প্রেসক্লা‌বের সাম‌নে এক মানববন্ধ‌নে সংগঠনটির নেতারা এ দা‌বি জানান।

বক্তারা বলেন, আত্মহত্যার আগে পুলিশ সদস্য আব্দুল কুদ্দুসের ফেসবুকে স্ট্যাটাস থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান যে তার স্ত্রী ও শাশুড়ি মানসিক অত্যাচারের কারণেই সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।

বক্তারা আক্ষেপ করে বলেন, আমাদের সমাজে পুরুষের প্রতি সহিংসতার ঘটনা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। নারী-পুরুষ উভয়ই নির্যাতনের শিকার হয়। তবে পুরুষ সমান আইনের আশ্রয় লাভের সুযোগ পায় না। পুরুষের মানসিক স্বাস্থ্য ও আইনি সুরক্ষা দেয়ার জন্য কোনো সরকারি প্রতিষ্ঠান নেই। পুরুষকে সুরক্ষা দেয়ার জন্য পৃথক কোন আইন নেই। এমনকি পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইনেও পুরুষের জন্য প্রতিকার চাওয়ার কোনো সুযোগ রাখা হয়নি। অথচ শুধু শারীরিক নির্যাতনেই নয়, বরং মানসিক যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হয়ে প্রতিনিয়ত প্রাণ বিসর্জন দিতে বাধ্য হচ্ছে পুরুষেরা। ডাক্তার আকাশ এবং পুলিশ শাহ আব্দুল কুদ্দুস এর জলন্ত দৃষ্টান্ত।

বক্তারা ব‌লেন, পুরুষের মানসিক স্বাস্থ্য ও আইনি সুরক্ষা না দেওয়ার কারণে যদি কোন ভুক্তভোগীকে প্রাণ বিসর্জন দিতে হয় তবে এর দায় রাষ্ট্রকেই নিতে হবে।

মানববন্ধ‌নে এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড. আব্দুর রাজ্জাক খাঁন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নাদিম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা আহবায়ক মাহিন মর্তুজা অনিক প্রমুখ উপ‌স্থিত ছি‌লেন।

গত ২৩ জানুয়ারি রাজধানীর মিরপুরে নিজ পিস্তলের গুলিতে আত্মহত্যা করেন পুলিশ সদস্য আব্দুল কুদ্দুস।

 আত্মহত্যার আগে তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করব না। আমার ভেতরের যন্ত্রণাগুলো বড় হয়ে গেছে, আমি আর সহ্য করতে পারছি না। প্রাণটা পালাই পালাই করছে...।

তবে অবিবাহিতগণের প্রতি আমার আকুল আবেদন, আপনারা পাত্রী পছন্দ করার আগে পাত্রীর মা ভালো কী না তা আগে খবর নেবেন। কারণ পাত্রীর মা ভালো না হলে পাত্রী কখনোই ভালো হবে না। ফলে আপনার সংসারটা হবে দোজখের মত। সুতরাং সকল সম্মানিত অভিভাবকগণের প্রতি আমার শেষ অনুরোধ, বিষয়টি বিশেষভাবে গুরুত্ব দিবেন। আল্লাহ হাফেজ।’



ঢাকা/মেহেদী/জেনিস

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়