ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০২ জুন ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

শিগগিরই চার্জশিট

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-২৬ ৭:২৯:৪৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-২৬ ৭:২৯:৪৫ পিএম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনার মামলার তদন্ত প্রায় শেষ দিকে। মজনুকে প্রধান আসামি করে এ মামলার চার্জশিট শিগগিরই আদালতে দেয়া হবে। ফরেনসিক ল্যাবে আলামত সংগ্রহের পরীক্ষা করে মজনুর ঘটনায় সম্পৃক্ততা পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।

রোববার সকালে সিআইডির অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক শেখ নাজমুল আলম রাইজিংবিডিকে জানান, মজনুর ডিএনএ নমুনার সঙ্গে বিভিন্ন আলামত থেকে সংগৃহীত নমুনার মিল পাওয়া গেছে। সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে এই পরীক্ষা করা হয়। সেভাবে প্রতিবেদন তদন্ত সংস্থার কাছে দেয়া হবে। পরীক্ষায় একমাত্র মজনুরই সংশ্লিষ্টতা মিলেছে। 

ডিবির (উত্তর) উপ-কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, চাজর্শিট প্রায় চূড়ান্ত। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ওয়ান–স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের (ওসিসি) প্রতিবেদন এখনো পাইনি। পেলেই আদালতে চাজর্শিট জমা দেয়া হবে। আর রিমান্ডে মজনু যে তথ্য দিয়েছেন তাতে এতটুকু আমরা নিশ্চিত হয়েছি এই ঘটনায় সেই জড়িত। এ কারণে মজনুকে আসামি করে প্রতিবেদন দেয়া হবে। একইসঙ্গে প্রতিবেদনে আদালতের কাছে কিছু সুপারিশও করা হবে।

রিমান্ডে মজনু গোয়েন্দাদের বলেছেন, প্রতিদিনের মতো সে ঘটনা স্থলে বসেছিল কোনো নারীকে শিকারের জন্য। ওই ছাত্রী আসা মাত্র ধরে বুক চেপে জঙ্গলে নিয়ে যায়। মজনু ওই ছাত্রীকে নিজের কাছেই কয়েকদিন রাখতে চেয়েছিল। একই সঙ্গে তার কাছে পাঁচশ টাকাও দাবি করে মজনু। টাকা না দিলে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা করে।

উল্লেখ্য, ৫ জানুয়ারি কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হন। পরে এ ঘটনায় মজনুকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গ্রেপ্তারের পর মজনু ডিবি হেফাজতে সাত দিনের রিমান্ডে ছিলেন। আদালতে উপস্থাপনের পর ধর্ষণে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে জবানবন্দিও দিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীও ২২ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দেন।


ঢাকা/মাকসুদ/সাইফ