ঢাকা, শনিবার, ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ০৪ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

রহস্যে ঘুরপাক খাচ্ছে তদন্ত

মাকসুদুর রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৫-৩০ ৭:২৭:১০ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৫-৩০ ৩:২৩:০৯ পিএম

ন্যাশনাল ব্যাংকের খোয়া যাওয়া ৮০ লাখ টাকা উদ্ধারে কোনো কূল কিনারা করতে পারেনি পুলিশ। এ জন্য পুলিশ একটি বিশেষ টিম করে তদন্ত করছে। তবে গাড়িতে আদৌ টাকা ছিল কি না, নাকি আগেই টাকা সরিয়ে ফেলা হয়েছিল, এই রহস্যের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে তদন্ত।

শুক্রবার (২৯ মে) বিকেলে কোতায়োলি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘তদন্তে বলার মতো এখনও নতুন কিছু পায়নি। তবে এতটুকু আমরা নিশ্চিত হয়েছি, গাড়িতে ব্যাংক কর্মকর্তাসহ যে চার জন ছিলেন তারা সতর্ক ছিলেন না। থাকলে এ ঘটনা নাও ঘটতে পারতো। এই অসতর্কতা তারা ইচ্ছাকৃতভাবে ছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গাড়ির ভেতর বস্তায় রাখা টাকাগুলোর মূল দায়িত্বে ছিলেন ব্যাংকের এক নির্বাহী কর্মকর্তা। তিনি ইসলামপুর এসে ব্যাংকের ভেতর যান। কিন্তু কেন টাকার বস্তা সঙ্গে নিলেন না তা বোধগম্য নয়।’

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা সন্দেহ করছেন, এর সঙ্গে ব্যাংকের লোকজনই জড়িত থাকতে পারে। তাদের কেউ আগে থেকে দুষ্কৃতকারীদের সঙ্গে সখ্যতা করতে পারে। পরে তারা বস্তাটি নিয়ে যেতে পারে। এরপরই মূলত গাড়িতে থাকা নিরাপত্তা কর্মীরা চিৎকার করতে থাকেন টাকার বস্তা নেই।

সেক্ষেত্রে ইসলামপুর আসার আগে, না পরে বস্তাটি খোয়া গেছে তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে। কেননা নিরাপত্তা কর্মীরা অস্ত্রধারী ছিলেন। এখান থেকে কেউ নিতে আসলে সেক্ষেত্রে তারা গুলিও করতে পারতো। কিন্তু তা হয়নি।

এসব বিষয় নিশ্চিত হতে প্রয়োজনে ওই নির্বাহী কর্মকর্তাসহ চার জনকে আবার রিমান্ডে আনা হবে উল্লেখ করে লালবাগ জোনের ডিসি মো. মুনতাসীর রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আমার কাছে ঘটনাটি অবাক লাগছে। টাকা কেন তারা ব্যাংকে না নিয়ে বাইরে গাড়িতে রাখালো। না আদৌ গাড়িতে ছিল না। এ কারণে ওই চার জনকে আবারও রিমান্ডে আনা হবে। ইসলামপুর ব্যাংকের সামনেরসহ আশপাশের চারটি ভিডিও ফুটেজ এখনও বিশ্লেষণ করা হচ্ছে বিভিন্ন অ্যাংগেল থেকে। সেক্ষেত্রে হয়তো সহসাই রহস্য ভেদ হবে।’

প্রসঙ্গত, গত ১০ মে দুপুরে কয়েক কোটি টাকা ব্যাগে ভরে পুরান ঢাকার ইসলামপুর থেকে মতিঝিলে নেওয়ার সময় গাড়ি থেকে ওই ৮০ লাখ টাকা গায়েব হয়ে যায়। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মামলার এজাহারে এসব কথাই উল্লেখ করে।

 

ঢাকা/সনি