Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ১৩ জুন ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪২৮ ||  ০১ জিলক্বদ ১৪৪২

‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:১৫, ১০ মে ২০২১   আপডেট: ১৪:২২, ১০ মে ২০২১
‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম কারাগারে

রাজধানীর মতিঝিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় দায়ের করা নাশকতার মামলায়  ‘শিশুবক্তা’ মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (১০ মে) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিটিটিসির সোশ্যাল মিডিয়া মনিটরিং টিমের পুলিশ পরিদর্শক কাজী নাসিরুল ইসলাম মতিঝিল থানায় দায়ের করা মামলায় রফিকুল ইসলামকে রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসী তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত ২১ এপ্রিল তার চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এর পরদিন রাজধানীর মতিঝিল থানায় দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তার আরও ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এ মামলায় রিমান্ড শেষে গত ৬ মে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

আদনান শান্ত নামের এক ব্যক্তি মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মতিঝিল থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

এজাহারে বলা হয়, ইউটিউব ও বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানী দেশ ও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের উস্কানিমূলক বক্তব্য ছড়াচ্ছেন। তার এসব বক্তব্য দেশের সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হচ্ছে। বিভ্রান্ত হয়ে তারা দেশের সম্পত্তির ক্ষতি করছে।

এদিকে নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে ২৫ মার্চ দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বরে ছাত্র ও যুব অধিকার পরিষদের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। এতে অন্যান্য সংগঠনের নেতাকর্মীরাও অংশ নেন। রফিকুল ইসলাম মাদানীও অংশ নেন। ওই দিন তাকে আটক করে পুলিশ। পরে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান তিনি।

পুলিশ মিছিলের গতি রোধ করতে চাইলে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার শেল ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোঁড়ে। মিছিলকারীরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে।

এ ঘটনায় মতিঝিল থানার এসআই মিন্টু কুমার মামলাটি দায়ের করেন।

উল্লেখ্য, ৭ এপ্রিল ভোরে নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার লেটিরকান্দার নিজ বাড়ি থেকে রফিকুল ইসলামকে আটক করে র‌্যাব। এরপর গাজীপুর ও ময়মনসিংহ থানার মামলায় তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়। এরপর ঢাকায় দায়ের করা মামলায় তাকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

ঢাকা/মামুন/ইভা 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়