ঢাকা     বুধবার   ২৫ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪২৯ ||  ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩

বিমান টিকিট জালিয়াতি চক্রের সদস্য গ্রেপ্তার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৫৮, ১২ মে ২০২২  
বিমান টিকিট জালিয়াতি চক্রের সদস্য গ্রেপ্তার

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের একটি দল বিশেষ অভিযান চালিয়ে বিমানের টিকিট জালিয়াতি চক্রের এক সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে। এ সময় তার কাছ থেকে জালিয়াতিতে ব্যবহৃত বিভিন্ন সরঞ্জাম জব্দ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) সকালে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, বুধবার (১১ মে) রাজধানীর কলাবাগান থানাধীন গ্রীনরোড থেকে মাহবুবুর রশিদকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে বিভিন্ন এয়ালাইন্সের ৮১টি ভুয়া টিকিট, প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ২টি মোবাইল ফোন, ২টি কম্পিউটার, ১টি কালো রঙের জিপ গাড়ি, ১২টি বিভিন্ন ব্যাংকের চেক ও একটি এটিএম কার্ড জব্দ করা হয়।

একেএম হাফিজ আক্তার বলেন, গোয়েন্দারা জানতে পারেন, বেশকিছু ট্রাভেলিং অ্যান্ড ট্যুর এজেন্সি যারা ব্যক্তি বিশেষ বা সাব-এজেন্টের মাঝে বিভিন্ন দেশে যাওয়ার জন্য বিমানের টিকিট আগাম বিক্রি করে। নির্দিষ্ট ফি দেওয়ার পরে তারা যাত্রীদের ই-টিকেটের ফুল আই-টিনারি দেয়। এতে যাত্রীর নাম, জন্মতারিখ, পাসপোর্ট নাম্বার ইত্যাদি দেওয়া থাকে এবং গন্তব্য ও ট্রানজিটের তথ্য দেওয়া থাকে। যাত্রীরা ই-টিকেট বুঝে নিয়ে নিশ্চিন্তে পাসপোর্টের ভেতরে রেখে দেয়। নির্দিষ্ট দিন তারিখে যাত্রীরা ব্যাগ ও লাগেজ নিয়ে বিমানবন্দরে হাজির হয়। ই-টিকিট ও পাসপোর্ট দেওয়ার পর এয়ারলাইন্সের লোকেরা জানায়, ই-টিকেটের বুকিংটা ঠিক ছিল, কিন্তু বুকিং দেওয়ার এক বা দুই দিন পরে পেমেন্টকৃত টাকা রিফান্ড করে তুলে নেওয়া হয়েছে। ফলে, টিকিটটি বাতিল হয়ে গেছে। যাত্রীরা তাদের মাধ্যমে বিমান টিকিট সংগ্রহ করতেন। কিন্তু, টিকিট বুকিং দেওয়ার পর ওই চক্রটি টিকিট বাতিল করে রিফান্ড করে নিতো। ফলে, প্রকৃত যাত্রীরা ভ্রমণের দিন বিপদে পড়তেন। পরবর্তী সময়ে যাত্রীরা ওই ট্রাভেল এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করলে আবার ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা ফি নিয়ে একই রকম টিকিট দেয়। অধিকাংশ সময়ে প্রমাণিত হয়েছে, সে টিকিট ভুয়া। একপর্যায়ে টিকিট এজেন্সির লোকেরা মোবাইল বন্ধ করে অফিস বদল করে লাপাত্তা হয়ে যায়।

মাকসুদ/রফিক

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়