ঢাকা     বুধবার   ২৫ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪২৯ ||  ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩

সাহিনুদ্দিন হত্যা মামলা পুনঃতদন্তের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:২১, ১২ মে ২০২২  
সাহিনুদ্দিন হত্যা মামলা পুনঃতদন্তের নির্দেশ

রাজধানীর পল্লবীতে সন্তানের সামনে ব্যবসায়ী সাহিনুদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় লক্ষ্মীপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম এ আউয়ালসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে করা মামলা পুনঃতদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নূরুল হুদা চৌধুরীর আদালত সাহিনুদ্দিনের মায়ের নারাজির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) মামলাটি পুনরায় তদন্ত করার আদেশ দেন। আগামী ১৯ জুন পুনঃতদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ ধার্য করেন আদালত।

পল্লবী থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক আব্দুর রব এসব তথ্য জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার মামলাটির তারিখ ধার্য ছিল। মামলার বাদী সাহিনুদ্দিনের মা আকলিমা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) দেওয়া চার্জশিটের বিরুদ্ধে নারাজির আবেদন করেন। আবেদনে তিনি বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে রাজ্জাক, শফিক, কামরুল ও লিটন জড়িত থাকলেও ডিবি তাদের অব্যাহতির আবেদন করেছে। সুমন জড়িত থাকলেও ডিবি তাকে গ্রেপ্তার করেনি। এজন্য পুনরায় মামলাটি তদন্তের প্রার্থনা করছি।’

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এম এ আউয়ালসহ ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক সৈয়দ ইফতেখার হোসেন।

অপর আসামিরা হলো—সুমন বেপারী, মোহাম্মদ তাহের,  মো. গোলাম কিবরিয়া খান, মোহাম্মদ মুরাদ, টিটু শেখ ওরফে টিটু, মোহাম্মদ রকি তালুকদার, নূর মোহাম্মদ হাসান, মোহাম্মদ শরীফ, ইকবাল হোসেন, মো. তরিকুল ইসলাম ইমন, তুহিন মিয়া, মো. হারুনুর রশিদ, মো. শফিকুল ইসলাম শফিক ও ইব্রাহিম সুমন। এদের মধ্যে শফিক ও ইব্রাহিম পলাতক। আওয়ালসহ ১৩ আসামি গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছে।

হত্যাকাণ্ডে সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ না পাওয়ায় ১৩ জনের অব্যাহতির আবেদন করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। এছাড়া, আরও ২ অভিযুক্ত মনির ও মানিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

উল্লেখ্য, গত বছর ১৬ মে পল্লবীতে ৬ বছরের ছেলে মাশরাফির সামনে বাবা সাহিনুদ্দিনকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। বিকেল সাড়ে ৪টায় পল্লবীর ১২ নম্বর সেকশনের ৩১ নম্বর রোডের ৩৬ নম্বর বাড়ির সামনে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। সাহিনুদ্দিন পল্লবীর ১২ নম্বর সেকশনের সিরামিক রোডের বাসিন্দা ছিলেন।

এ ঘটনায় সাহিনুদ্দিনের মা আকলিমা ২০ জনের নাম উল্লেখ করে ১৭ মে পল্লবী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামুন/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়