ঢাকা     বুধবার   ০৫ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ২০ ১৪২৯ ||  ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

১৪ জনের মামলায় চার্জশুনানি পেছালো

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪৭, ১৬ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১৪:৪৭, ১৬ আগস্ট ২০২২
১৪ জনের মামলায় চার্জশুনানি পেছালো

পিকে হালদার

৪২৬ কোটি টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রায় ৬ হাজার ৮০ কোটি টাকা লেনদেনের মামলায় প্রশান্ত কুমার হালদারসহ (পিকে হালদার) ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশুনানির তারিখ পিছিয়ে আগামী ২৯ আগস্ট ধার্য করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০ এর বিচারক মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের আদালতে মামলাটি চার্জশুনানির জন্য ধার্য ছিল। আসামিপক্ষের আইনজীবী চার্জশুনানি পেছানোর আবেদন করেন। আদালত সময় আবেদন মঞ্জুর করে চার্জশুনানির পরবর্তী এ তারিখ ঠিক করেন।

দুদক প্রসিকিউটর মীর আহাম্মদ আলী সালাম এ তথ্য জানান। ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ এ তারিখ ঠিক করেন। মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০ এ বদলির আদেশ দেন আদালত।

এদিন মামলার পলাতক ১০ আসামিকে হাজিরে গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দিন ধার্য ছিল। সেই বিজ্ঞপ্তির কপি আদালতে দাখিল করা হয়। এরপর চার্জশুনানির জন্য এই দিন ধার্য করা হয়৷ 

মামলার অন্য আসামিরা হলেন-পিকে হালদারের মা লিলাবতী হালদার, অবন্তিকা বড়াল, শংখ বেপারী, সুকুমার মৃধা, অনিন্দিতা মৃধা, পূর্ণিমা রানী হালদার, উত্তম কুমার মিস্ত্রি, অমিতাভ অধিকারী, প্রিতিশ কুমার হালদার, রাজিব সোম, সুব্রত দাস, অনঙ্গ মোহন রায় ও স্বপন কুমার মিস্ত্রি।

আসামিদের মধ্যে চারজন কারাগারে আছেন। পি কে হালদারসহ ১০ জন পলাতক রয়েছেন।

২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি প্রায় ২৭৫ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করেন সংস্থাটির সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী।

মামলার এজাহারে বলা হয়, পিকে হালদার বিভিন্ন অবৈধ ব্যবসা ও অবৈধ কার্যক্রমের মাধ্যমে জ্ঞাত আয়ের উৎসের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ ২৭৪ কোটি ৯১ লাখ ৫৫ হাজার ৩৫৫ টাকার অবৈধ সম্পদ নিজ দখলে রেখেছেন। মামলাটি তদন্ত করে চার্জশিট দাখিল করে দুদক৷চার্জশিটে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে অবৈধ উপায়ে প্রায় এক কোটি ১৭ লাখ কানাডিয়ান ডলারের সমপরিমাণ অর্থ দেশটিতে পাচারের অভিযোগ আনা হয়।

/মামুন/সাইফ/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়