ঢাকা     মঙ্গলবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ৭ ১৪২৭ ||  ০৪ সফর ১৪৪২

বন্ধু হতে কত সময় লাগে?

এস এম গল্প ইকবাল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৩০, ৬ আগস্ট ২০১৮   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
বন্ধু হতে কত সময় লাগে?

প্রতীকী ছবি

এস এম গল্প ইকবাল : বন্ধু ছাড়া জীবন কল্পনা করা যায় না। প্রত্যেকেরই জীবনে বন্ধু প্রয়োজন।

সম্প্রতি একটি গবেষণায়, বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠতে কত সময় লাগে তা নির্ণয়ের চেষ্টা করা হয়েছে। একটা সাধারণ পরিচিত মানুষ কত সময়ের মধ্যে ক্যাজুয়াল ফ্রেন্ড বা নৈমিত্তিক বন্ধু হয় এবং শেষপর্যন্ত ক্লোজ ফ্রেন্ড বা ঘনিষ্ঠ বন্ধু হতে কত সময় লাগে তা নিরূপণ করার দিকে এ গবেষণা ফোকাস করেছে। এ গবেষণাটি পরিচালনা করেন ইউনিভার্সিটি অব কানসাসের অধ্যাপক জেফ্রি হল, যা জার্নাল অব সোশ্যাল অ্যান্ড পার্সোনাল রিলেশনশিপে প্রকাশিত হয়েছে।

হল আবিষ্কার করেছেন যে, একজন সাধারণ জানাশোনা বা অল্প পরিচিত মানুষকে ক্যাজুয়াল ফ্রেন্ড বানাতে সময় লাগে প্রায় ৫০ ঘণ্টা। হলের মতে, ক্যাজুয়াল ফ্রেন্ডশিপ থেকে বন্ধুত্ব আরো গাঢ় করতে চাইলে ৯০ ঘণ্টা সময় কাটানো প্রয়োজন হবে, যেখানে ক্লোজ ফ্রেন্ড বা ঘনিষ্ঠ বন্ধু হতে চাইলে সময় অতিবাহিত করতে হবে ২০০ ঘণ্টারও বেশি। তিনি বলেন, ‘এতটুকু সময় আপনাকে দিতেই হবে, কারণ সহসা কোনো বন্ধু হয় না।’

হল অনলাইনে জরিপ চালান এবং তিনি কলেজের নবীনদের ওপরও জরিপ চালান যে, আনুমানিক কত সময়ের ব্যবধানে তাদের নতুন বন্ধুত্ব হয় ও কত সময়ের পরিসরে নতুন বন্ধু ঘনিষ্ঠ বন্ধুতে পরিণত হয়। তিনি প্রমাণ পেয়েছেন যে, কলেজের নবীনরা দ্রুত ক্লোজ ফ্রেন্ড স্টেজে পৌঁছতে পারে। কারণ তারা একে অপরকে বেশি সময় দিতে পারে।

হল বলেন, ‘যখন লোকজন বন্ধুত্বের এক ধাপ থেকে আরেক ধাপে যায়, তখন তারা বন্ধুত্বের বর্তমান ধাপে আসতে যত সময় লেগেছে তার দুই বা তিনগুণ সময় ব্যয় করে। আমি দেখেছি যে নবীনরা তাদের বন্ধুদের সঙ্গে এক মাসে মোট কর্ম ঘণ্টার এক-তৃতীয়াংশ সময় ব্যয় করে।’

এই গবেষণায় অবশ্য আপনি কার সঙ্গে অধিক সময় কাটাতে চান অথবা সময় অতিবাহিত করতে চান না তা স্থান পায়নি। হল বলেন, ‘আপনি লোকজনকে আপনার সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য জোর করতে পারেন না, কিন্তু আমন্ত্রণ জানাতে পারেন।’

যদি আপনি কারো সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে আগ্রহী হন, তবে তাকে সঙ্গ দিন, আলাপ করুন। যদি এক সঙ্গে কাজ করেন, তাহলে তার সঙ্গে লাঞ্চ করুন অথবা হালকা নাশতা করার জন্য বাইরে যান।

জীবনের প্রায় অন্যান্য সব বিষয়ের মতো বন্ধুত্বও সময়ের ব্যাপার। তাই আপনার ব্যস্ত সূচিতে বন্ধুর জন্য কিছু সময় রাখুন। সপ্তাহান্তে বন্ধুকে নিয়ে পরিকল্পনা সাজাতে পারেন।

হল বলেন, ‘ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রাখা হচ্ছে আমাদের জীবনের অন্যতম সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজ। অধিকাংশ লোক শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের আগেও এই বিষয়ে একমত হবে।’

তথ্যসূত্র : আইএনসি.



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৬ আগস্ট ২০১৮/ফিরোজ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়