ঢাকা     বুধবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ৮ ১৪২৭ ||  ০৫ সফর ১৪৪২

সিভি লেখার সময় যা মনে রাখা জরুরি

আহমেদ শরীফ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:১০, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
সিভি লেখার সময় যা মনে রাখা জরুরি

প্রতীকী ছবি

আহমেদ শরীফ : সিভি বা কারিকুলাম ভিটার প্রধান ভূমিকা হলো নিয়োগদাতার কাছে আপনাকে যোগ্যতর, দক্ষ চাকরিপ্রার্থী হিসেবে তুলে ধরা। নিয়োগদাতা যেন সিভি দেখে আপনার বিষয়ে আরো জানতে চান।

এমনকি চাকরিটার জন্য সঠিক ব্যক্তি হিসেবে বেছে নিতে নিয়োগদাতা যেন কল করেন আপনাকে, সেটাই সিভির মূল উদ্দেশ্য হওয়া উচিত। আর এই জয় ছিনিয়ে আনা সিভির যেসব গুণাবলী থাকা চাই-

* সিভির শুরুতে উপরে আপনার নাম, যোগাযোগের ঠিকানা, ফোন নম্বর স্পষ্টভাবে লিখবেন। শিরোনাম হিসেবে ‘Biodata’, ‘Curriculum vitae’ বা ‘Resume’ লিখবেন না। এটি অপ্রয়োজনীয় এবং দেখতেও বেখাপ্পা লাগে। লেখার ক্ষেত্রে ভিন্ন ধরনের ফন্ট ব্যবহার করতে পারেন। তবে বর্ণিল কালি বা ডিভাইডার পরিহার করুন। এটি নিয়োগদাতার মনোযোগ বিক্ষিপ্ত করে তুলতে পারে।

* আপনার নাম, ঠিকানার নিচে কারিকুলাম ভিটার সামারি লিখুন। কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দক্ষতা ও যোগ্যতার কথা উল্লেখ করুন এখানে। সামারি পাঁচ লাইনের বেশি বড় করা ঠিক না।

* আপনার পেশাগত অভিজ্ঞতার তথ্য সর্বশেষ থেকে প্রথম পর্যন্ত ক্রমানুসারে উল্লেখ করুন। এক্ষেত্রে আগের সব কোম্পানি, আপনার পদ ও অল্প কথায় আপনার সাফল্যগুলোর কথা জানান।

* আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা সংশ্লিষ্ট কোনো ডিগ্রির তথ্য অল্প কথায় তুলে ধরুন।

* শেষে নিজের সম্পর্কে সংক্ষেপে প্রয়োজনীয় সব ব্যক্তিগত তথ্য জানান। যেমন: জন্মদিন, বৈবাহিক অবস্থা, ধর্ম এসব।

* ভালো করে নিয়োগদাতা কোম্পানির বিষয়ে জানুন। তারপর সে অনুসারে জীবনবৃত্তান্ত তৈরি করুন।

* অ্যারিয়েল বা টাইমস রোমানের মতো পরিচিত ফন্টে, ১০/১২ পয়েন্টে জীবনবৃত্তান্ত লিখুন।

* পাতলা কাগজ নয় বরং ভালো অফসেট কাগজ ব্যবহার করুন। আর স্পষ্ট ও ঝকঝকে জীবনবৃত্তান্তের জন্য লেজার প্রিন্ট করুন।

* বিশেষত্ব দিতে (সাদা ছাড়া অন্য কোনো রঙের জন্য) হালকা রঙের কাগজ বেছে নিন।

* অতিরিক্ত ইটালিক শব্দ, শিরোনাম ও আন্ডারলাইন ব্যবহার করবেন না।

* আপনি কেন নিজেকে পদটির জন্য যোগ্য মনে করেন, তা জানাতে জীবনবৃত্তান্তের সঙ্গে ছোট একটি কভার লেটার সংযুক্ত করুন।

* প্রত্যেক কোম্পানিতে সিভি পাঠানোর সময় সেটির একটি কপি অবশ্যই আপনার কাছে রাখবেন। এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ প্রতিটি আলাদা পদ ও আলাদা কোম্পানির জন্য পৃথক সিভি তৈরি করতে হবে আপনাকে। আর বিভিন্ন কোম্পানিতে সিভি পাঠানোর পর যেকোনো একটি থেকে ইন্টারভিউয়ের জন্য আপনাকে ডাকা হলে হয়তো ভুলে যাবেন, কোন পদের জন্য মূলত কোন ধরনের সিভি লিখেছেন আপনি।

আরো পড়ুন:




রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮/ফিরোজ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়