ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

সুই ফুটালেই স্ট্রোকের রোগী ভালো হয় না

লাইফস্টাইল ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-১৪ ১১:৪৭:৪৩ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-১৪ ৩:১৫:১৩ পিএম

‘স্ট্রোক’ খুব বিপজ্জনক শারীরিক অবস্থা। মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহকারী রক্তনালী ফেটে গেলে অথবা বন্ধ হয়ে গেলে মস্তিষ্ক অক্সিজেনের অভাবে যে পরিণতির শিকার হয় সেই অবস্থার নাম স্ট্রোক। এর ফলে অনেকে প্যারালাইজড হয়ে পড়েন। অনেকের শরীরের কিছু অংশ বেঁকে যায়, মস্তিষ্ক ড্যামেজ হতে পারে এমনকি মৃত্যুও হতে পারে।

স্ট্রোকের লক্ষণ বুঝতে পারলে যত দ্রুত সম্ভব কার্যকর পদক্ষেপ নিলে বড় ক্ষতি এড়ানো যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে কয়েক ঘণ্টার পার্থক্য শারীরিক ক্ষতির মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। পার্থক্য নির্ভর করে স্ট্রোকের উপসর্গ দেখা দেয়ার পর রোগীকে দ্রুত জীবন-রক্ষাকারী সেবা দেয়া হয়েছে কিনা তার ওপর। স্ট্রোকের রোগীর ক্ষেত্রে তাই দ্রুত জীবন-রক্ষাকারী পদক্ষেপ হিসেবে একটি টোটকা চিকিৎসা অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে। অনেকেই পোস্টটি শেয়ার দিয়ে পরিচিতজনদের সতর্ক করছেন। সেখানে বলা হচ্ছে-  স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছেন, এমন ব্যক্তির আঙুলে সুই ফুটিয়ে রক্ত ঝরালে মৃত্যুঝুঁকি অনেকটা কমিয়ে ফেলা সম্ভব। এমনকি প্যারালাইসিস হওয়ার আশঙ্কাও এভাবে কমিয়ে আনা যায়।

বলা হচ্ছে, কয়েক সেকেন্ডের জন্য আগুনের শিখায় একটি সুই গরম করে নিতে হবে, যাতে জীবাণুমুক্ত হয়। এরপর রোগীর হাতের আঙুলের ডগার নরম অংশে সুই সামান‌্য ঢুকিয়ে দিতে হবে যাতে সেখান দিয়ে রক্ত বের হয়। এরপর কয়েক মিনিট অপেক্ষা করলে দেখা যাবে, ধীরে ধীরে রোগী সুস্থ হয়ে উঠছেন। যদি আক্রান্ত ব্যক্তির মুখ বিকৃত হয় তাহলে তার কানে ম্যাসাজ করতে হবে। এরপর একইভাবে কানের লতি বা নরম অংশে সুই দিয়ে রক্ত ঝরাতে হবে। তাহলেই নাকি আর মুখ বিকৃত হবে না।

এই চিকিৎসা পদ্ধতি চীনের এক চিকিৎসকের উদ্ভাবিত খুবই কার্যকর পদ্ধতি হিসেবে বলা হচ্ছে। কিন্তু অন‌্যান‌্য গবেষকরা বলছেন- স্ট্রোকের রোগীর চিকিৎসায় ভুলেও এমন করবেন না। কারণ এ ধরনের চিকিৎসার বৈজ্ঞানিক কোনো ভিত্তি নেই এবং কোনো স্বাস্থ্যবিষয়ক সংস্থা বা কর্তৃপক্ষ দ্বারা স্বীকৃতও নয়।  হাসপাতালে না নিয়ে কালক্ষেপণ করে এই ধরনের চিকিৎসা প্রদান খুবই দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ। কারণ  এতে রোগীর প্রকৃত সেবা পাওয়া আরো বিলম্বিত হবে। ফলস্বরূপ রোগী তার প্রাণ হারাতে পারেন কিংবা স্থায়ী ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন।

অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস (এপি) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, স্ট্রোক হয়েছে এমন ব্যক্তিদের আঙুলে সিরিঞ্জ বা সুই ব্যবহার করাটা তাদের সহায়তা করবে এমন কোনো মেডিকেল প্রমাণ নেই। বরং এটি আপনার  মূল্যবান সময় নষ্ট করবে। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে কাজ করা কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরোলজির অধ্যাপক ড. মিচেল এলকিন্ড বলেছেন, ‘এটি সম্পূর্ণভাবে একটি অপচিকিৎসা।’

সুই ফুটানোর এই ভুল চিকিৎসা বছরের পর বছর ধরে অনলাইনে রয়েছে। ২০০৬ সালে ই-মেইলের মাধ্যমে প্রথমে এটি ছড়ানো হয়েছিল। এ সংক্রান্ত চিকিৎসার ভিডিওটি ২০০৭ সাল থেকে অনলাইনে রয়েছে। ডা. এলকিন্ড বলেছেন, কোনো ব্যক্তির যদি গাল বেঁকে যাওয়া, বাহুতে দুর্বলতা বা অসাড়তা ও কথা বলতে সমস্যা ইত্যাদি লক্ষণ দেখা যায়, তাহলে তাকে যত দ্রুত সম্ভব হাসপাতালে নিয়ে যাওয়াটাই হবে সেরা কাজ।

এএফপি এক প্রতিবেদনে বলেছে, ‘এক যুগেরও বেশি পুরোনো গুজবটি নতুন করে আবার ফেইসবুকে ভাইরাল হয়েছে। যেখানে চীনের চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী, কানে এবং আঙুলে সুই ফুটিয়ে স্ট্রোকের শিকার হওয়া ব্যক্তির জীবন বাঁচানো যেতে পারে বলে দাবি করা হয়েছে। আমরা চীন এবং পাশ্চাত্য উভয় দেশের খ্যাতনামা চিকিৎসকদের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলেছি, তারা পরামর্শটি ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন।’

পেশাদার চিকিৎসকরা বলেছেন, এই ভ্রান্ত পরামর্শ খুবই বিপজ্জনক। নাইরোবির আগা খান বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের নিউরোলজির অধ্যাপক ডা. দিলরাজ সিং এএফপিকে বলেছেন, স্ট্রোকের রোগীর জন্য প্রতিটি সময় গুরুত্বপূর্ণ। কারণ মস্তিষ্কে হঠাৎ স্ট্রোকের আক্রমণে প্রতি মিনিটে এক মিলিয়ন স্নায়ু কোষের মৃত্যু হতে থাকে। সময়ক্ষেপণ না করে হাসপাতালে দ্রুত চিকিৎসা ভালো ফলাফল বয়ে আনতে পারে।’

পাঠক বুঝতেই পারছেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ‌্যমের সবকিছুই অন্ধের মতো বিশ্বাস করা অনেক সময় আপনার জীবনে মারাত্মক পরিণতি ডেকে আনতে পারে। যেমন এই কৌশলটি স্ট্রোকের রোগীর জীবন-রক্ষা নয়, বরং জীবন-নাশের কারণ হতে পারে বলে চিকিৎসকরা সতর্ক করছেন।


ঢাকা/তারা

     
 

ট্যাগ :