Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ০১ মার্চ ২০২১ ||  ফাল্গুন ১৬ ১৪২৭ ||  ১৫ রজব ১৪৪২

মেরুদণ্ডের ক্ষতি যেসব অভ্যাসে (শেষ পর্ব)

এস এম গল্প ইকবাল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:৩৭, ১৬ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৪:১৪, ১৬ জানুয়ারি ২০২১
মেরুদণ্ডের ক্ষতি যেসব অভ্যাসে (শেষ পর্ব)

আপনি কিভাবে দাঁড়ান, কীভাবে বসেন ও কীভাবে শুয়ে থাকেন তা আপনার মেরুদণ্ডকে প্রভাবিত করতে পারে। শারীরিক ভঙ্গি ভালো হলে সমস্যা নেই, বরং উপকারই হয়। কিন্তু শারীরিক ভঙ্গিতে ত্রুটি থাকলে মেরুদণ্ড ক্ষতিগ্রস্ত হয়। শরীরে জয়েন্টের সবচেয়ে জটিল সেট হলো মেরুদণ্ড। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, বেশিরভাগ মানুষই পিঠে ব্যথা অনুভব না করা পর্যন্ত মেরুদণ্ডের প্রতি যত্নশীল হন না। 

স্নায়ুর ক্ষতি, জয়েন্টের ক্ষয় ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য ক্ষতি এড়াতে মেরুদণ্ডের স্বাস্থ্যের প্রতি বিশেষ নজরদারি প্রয়োজন। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, আমাদের প্রতিদিনকার কিছু অভ্যাস মেরুদণ্ডকে আঘাত করে ও পিঠ ব্যথায় ভুগিয়ে থাকে। মেরুদণ্ডের ক্ষতি করতে পারে এমন কিছু অভ্যাস নিয়ে দুই পর্বের প্রতিবেদনের আজ থাকছে শেষ পর্ব।

* স্মার্টফোনের আসক্তি: স্মার্টফোনের অতি ব্যবহারে কেবল চোখ নয়, মেরুদণ্ডেরও ক্ষতি হতে পারে। নিউ ইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত মেডিসন স্কয়ার ওয়েলনেসের প্রতিষ্ঠাতা গ্রেগ শুয়ার বলেন, ‘স্মার্টফোনের আসক্তি থেকে টেক নেক হতে পারে।’ প্রযুক্তি তথা স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, ল্যাপটপ ও কম্পিউটার ব্যবহারের সময় মাংসপেশিতে চাপ পড়ে ঘাড় ও কাঁধে ব্যথা ও অনমনীয়তাকে টেক নেক বলা হয়। ডা. শুয়ার আরো বলেন, ‘স্ক্রিনের দিকে তাকাতে মাথাকে সামনের দিকে ঝুঁকালে মেরুদণ্ডের উপরের অংশ খুব বেঁকে যায়। এটা মেরুদণ্ডের ডিস্ককে টানে রাখে, যা সময়ের আবর্তনে স্লিপড ডিস্কের মতো ভয়াবহ সমস্যার কারণ হতে পারে।’ মাউন্ট এলিজাবেথ হসপিটালের অর্থোপেডিক সার্জন শুয়া শু ইয়াং এক প্রতিবেদনে লিখেছেন, মেরুদণ্ডকে চাপে বা টানে রাখে এমন যেকোনো কাজই স্লিপড ডিস্কের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

* কফি পানের অভ্যাস: কফি বা কোমল পানীয়ের ক্যাফেইন ক্যালসিয়াম শোষণ কমাতে পারে, কিন্তু হাড়ের ঘনত্ব কমানো ও ফ্র্যাকচারের ঝুঁকি বাড়ানোর ক্ষেত্রে এটা কিভাবে প্রভাব ফেলে তা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে আরো গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে। মজবুত ও সুস্থ হাড় গঠনের অন্যতম প্রধান বিল্ডিং ব্লক হলো ক্যালসিয়াম। তাই আমাদের ডায়েটে ক্যালসিয়ামের অভাব হলে হাড়ে যে সমস্যা হবে তা স্বাস্থ্য সচেতন লোকেরা সহজেই অনুমান করতে পারেন। গবেষণায় দেখা গেছে, ক্যালসিয়ামের ঘাটতি মেরুদণ্ডে ফ্র্যাকচার ও অস্টিওপোরসিসের ঝুঁকি বাড়ায়। যেহেতু ক্যাফেইন সমৃদ্ধ পানীয় পানে ক্যালসিয়াম শোষণ কমে যায়, তাই হাড়ের ভবিষ্যত চিন্তা করে কফি সীমিত করার কথা বিবেচনা করতে পারেন। খাবার থেকে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম পাচ্ছেন কিনা খেয়াল রাখুন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট সেবন করতে হবে।

* ওষুধের অতি ব্যবহার: আমাদের অনেকে শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই ওষুধ খেয়ে থাকেন, এমনকি কতটুকু গ্রহণ করতে হবে তা সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান না থাকলেও। কিন্তু গবেষণা বলছে যে ওষুধের ভুল ব্যবহারে কেবল কিডনি ও লিভার নয়, মেরুদণ্ডও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। ডা. পিসেতস্কাই বলেন, ‘এমনকিছু ওষুধ রয়েছে যা হাড়কে দুর্বল করে দিতে পারে, প্রধানত স্টেরয়েডস। এসব ওষুধের ডোজ যত বেশি হবে, আমাদের হাড় ও মেরুদণ্ডের ওপর তত বেশি প্রভাব পড়বে। আবার কিছু ওষুধ রয়েছে যা স্টেরয়েডস প্ররোচিত অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি কমাতে পারে।’ তাই কোনো ওষুধ ব্যবহারের পূর্বে চিকিৎসক থেকে জেনে নিন যে ওটা হাড়ের ঘনত্ব কমায় কিনা। কোনো ওষুধ হাড় বা মেরুদণ্ডের ওপর ক্ষতিকারক প্রভাব ফেললে তা সারিয়ে তোলার উপায় সম্পর্কেও জেনে নিন।

* হাই হিলের জুতা: ফ্যাশন আগে নাকি স্বাস্থ্য আগে? যারা হাই হিলের জুতা পরতে ভালোবাসেন তারা হয়তো ফ্যাশনের পক্ষে ভোট দিতে পারেন। নিঃসন্দেহে হাই হিলের জুতা পরিধান একটি আকর্ষণীয় ফ্যাশন, কিন্তু একথা জেনে রাখুন যে এই ফ্যাশনই মেরুদণ্ডের জন্য কাল হয়ে দাঁড়াতে পারে।হাই হিলের জুতা পরলে পা এমন একটি অ্যাঙ্গেলে চলে যায় যা মেরুদণ্ডকে টান টান অবস্থায় রাখে। এটা থেকে পিঠ ব্যথা, ঘাড় ব্যথা ও কাঁধ ব্যথার উৎপত্তি হতে পারে।

* ভারী হ্যান্ডব্যাগ: পিঠ ব্যথা একটি বহুল প্রচলিত সমস্যা হলেও এটা অনেকেরই ধারণার বাইরে থাকে যে ভারী হ্যান্ডব্যাগ বহন করার কারণেই সমস্যাটি হচ্ছে। ভারী হ্যান্ডব্যাগ ব্যবহারে পিঠের ক্ষতি প্রসঙ্গে হচ্ছে দ্য আইরিশ সিটি কাইরোপ্র্যাক্টিস সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা রবার্ট এ হেইডেন জানান, ‘শরীরের একপাশে হ্যান্ডব্যাগ বহনের ফলে হাঁটাচলার স্বাভাবিকতা বিঘ্নিত হয়। একটি বাহু স্বাভাবিকভাবে নড়তে পারে না। উভয় বাহুর অবস্থানে অসামঞ্জস্য তৈরি হয় তথা বোঝার ভারে বাহুটি নিচের দিকে নেমে যায়। এর ফলে মাংসপেশিতে প্রচুর চাপ পড়ে। এসবকিছু পিঠে স্প্যাজম তৈরি করে, অর্থাৎ মাংসপেশিতে অনৈচ্ছিক সংকোচন হয়। এটা ঘাড়, কাঁধ ও পিঠের উপরের অংশকে শক্ত করে ফেলে।’ ভারী হ্যান্ডব্যাগের মতো ভারী ব্যাকপ্যাক বহন করাও উচিত নয়। এতেও মেরুদণ্ডের ক্ষতি হয়ে থাকে।

পড়ুন: মেরুদণ্ডের ক্ষতি যেসব অভ্যাসে (প্রথম পর্ব)

ঢাকা/ফিরোজ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়