ঢাকা, শনিবার, ৪ মাঘ ১৪২৬, ১৮ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

আন্ডারপাস চালু আগামী বছর

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৭-২১ ৬:১৯:৫৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৭-২১ ৬:১৯:৫৯ পিএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : ঢাকার বিমানবন্দর সড়কে শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় নির্মিত হচ্ছে লিফট-এস্কেলেটর সুবিধার আন্ডারপাস।

এরই মধ্যে নির্মাণকাজের ৫০ শতাংশ অগ্রগতি হয়েছে। আগামী বছর থেকে ব্যবহার করা যাবে নির্মাণাধীন এ অত্যাধুনিক পথচারী আন্ডারপাস।

রোববার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। ঢাকা সেনানিবাসের সেন্ট্রাল অর্ডন্যান্স ডেপো (সিওডি) এলাকায় (শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের বিপরীতে) এলাকায় এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৪ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্রিগেড এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল এস এম আনোয়ার হোসেন, ২৫ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল মোহাম্মদ সাদেক মাহমুদ, পিএসসি এবং আইএসপিআরের পরিচালক লে. কর্নেল আবদুল্লাহ ইবনে জায়েদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে লে. কর্নেল মোহাম্মদ সাদেক মাহমুদ বলেন, ‘এটি বাংলাদেশের সম্পূর্ণ নতুন একটি প্রকল্প। বাংলাদেশে এর আগে এ ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করে অন্য কোনো প্রকল্প নির্মাণ করা হয়নি। এই আন্ডারপাস দিয়ে সামরিক ও বেসামরিক ব্যক্তিরা নিরাপদে রাস্তা পারাপার হতে পারবেন। এমনকি যারা হুইল চেয়ারে চলাচল করেন তারাও এই আন্ডারপাস ব্যবহার করতে পারবেন। অত্যাধুনিক এই আন্ডারপাসে লিফট ও এস্কেলেটর থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে আন্ডারপাসের ৫০ শতাংশ কাজ শেষ করেছি। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে বাকি কাজ শেষ হবে। আগামী বছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্ডারপাসের উদ্বোধন করবেন। উদ্বোধনের পর সর্বসাধারণের রাস্তা পারাপারের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।’

গত বছর ১২ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই আন্ডারপাস নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন। কাজটি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিবদ্ধ একটি নতুন অত্যাধুনিক প্রকল্প। প্রকল্পের কার্যক্রম গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে জরুরি ভিত্তিতে শুরু হয়।

গত বছরের ২৯ জুলাই ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ঢাকা সেনানিবাস সংলগ্ন এমইএস বাসস্টপ এলাকায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। এরপর ঢাকা বিমানবন্দর মহাসড়কে বীরসপ্তক ক্রসিং পয়েন্টের কাছে এই আন্ডারপাস নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি দিক নির্দেশনায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কোর অব ইঞ্জিনিয়ার্স কর্তৃক বাস্তবায়নের জন্য সদর দপ্তর ২৪ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্রিগেড এর ওপর প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ জুলাই ২০১৯/হাসান/সাইফ