ঢাকা, বুধবার, ৭ মাঘ ১৪২৬, ২২ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

‘ঘৃণাস্তম্ভ’ ও ‘স্মরণস্তম্ভ’ নির্মাণের দাবি ‍

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-১৩ ৮:৫১:৩১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-১৩ ৮:৫১:৩১ পিএম

একাত্তর সালে সংঘটিত জনযুদ্ধে অংশগ্রহণকারীদের স্মরণে ও বীরত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘স্মরণস্তম্ভ’ এবং যুদ্ধের বিরোধীতাকারীদের ঘৃণিত হিসেবে চিহ্নিতের লক্ষ্যে ‘ঘৃণাস্তম্ভ’ নির্মাণের দাবি জানানো হয়েছে।

সারাদেশের সকল জেলা ও উপজেলায় এই স্তম্ভ প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়ে মানববন্ধন আয়োজন করেছে প্রজন্মের চেতনা।

শুক্রবার জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে প্রজন্মের চেতনা'র আহ্বায়ক মোহাম্মদ গোলাম নবী হোসেন বলেন, ‘একাত্তর সালে মুক্তিযুদ্ধ হয়নি, হয়েছে জনযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানার জন্য একটি গ্রহণযোগ্য নাগরিক কমিশন গঠন করে প্রকৃত তথ্য সংগ্রহ করে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে।’

নাজিমুদ্দিন গেরিলা বলেন, ‘আমি চাই না আমার মৃত্যুর পর আমাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হোক। মুক্তিযোদ্ধাদের অনেক ত্যাগের বিনিময়ে এ বাংলাদেশ। আমাদের জীবদ্দশায় আমরা কোনো সুযোগ-সুবিধাপ্রাপ্ত হইনি। জুটেছে শুধুই নিগ্রহ যন্ত্রণা। তাই চাই না শুধু মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন হোক।’

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. মাহবুব হোসেন বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা সবসময় গণতন্ত্রকে হত্যা করতে চেয়েছিল। তাই তাদেরকে ঘৃণা জানানোর জন্য ‘ঘৃণাস্তম্ভ’ তৈরি করা উচিত।’

মানববন্ধনে উপস্থিত ভাস্কর রাশা বলেন, ‘স্মরণস্তম্ভ ও ঘৃণাস্তম্ভ আমাদের একটি যৌক্তিক দাবি। প্রজন্মের চেতনার মাধ্যমে আমরা বলতে চাই, প্রতিবছর যেন এই স্মরণস্তম্ভে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য শ্রদ্ধা জানানো হয় এবং ঘৃণাস্তম্ভে মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের ঘৃণা জানানো হয়।’

এসময় বক্তারা বলেন, ‘একাত্তর সালে মুক্তিযুদ্ধে দেড় লাখ যোদ্ধা অংশগ্রহণ করেছিল। এখন নাকি আড়াই লাখ মুক্তিযোদ্ধা ভাতা নিচ্ছে। এরা কোথা থেকে এলো? কীভাবে এ ভাতা নিচ্ছে?’

এসব ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক এআইজি মালেক খসরু, বীর প্রতীক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, বীর প্রতীক আনোয়ার হোসেন, সংস্কৃতিকর্মী আনোয়ার ফরিদী, ফজলুর রহমান ভুলু, সাঈদ অপু, শাজাহান কবীর সুমন, এম এম রাশেদ রাব্বি, অরন্য জুয়েল, মাসুদ আলম, জালাল হোসেন লাইজু, প্রজন্মের চেতনার সদস্য মো. ছালেক-উর-রহমান (সুমন) প্রমুখ।


ঢাকা/সাওন/সনি