ঢাকা, শনিবার, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৬ জুন ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

টাকা ছিটিয়ে সমালোচনার মুখে ডিএসসিসির কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৩ ২:১৩:১৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৩ ২:১৩:১৯ পিএম

করোনাভাইরাসের কারণে কর্মহীন নিম্ন আয়ের মানুষের উদ্দেশে টাকা ছিটিয়ে সমালোচনার মুখে  পড়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ( সিইও) শাহ মো. এমদাদুল হক।

মঙ্গলবার (১ এপ্রিল) রাজধানীর সাইন্সল্যাব, কাঁটাবন, ঢাকা কলেজসহ পাশ্ববর্তী এলাকায় সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে দরিদ্র মানুষের মধ্যে অর্থ সহায়তা দিতে যান তিনি। কিন্তু জনগণের হাতে না দিয়ে গাড়ি থেকে টাকা ছিটিয়ে দেওয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায়, একটি কালো রঙের পাজেরো গাড়ির জানালা দিয়ে টাকা ছিটিয়ে দেওয়া হচ্ছে। টাকা নেওয়ার জন্য উপচে পড়েছেন কিছু মানুষ। অপর আরেকটি ছবিতে দেখা গেছে, রাস্তায় অনেক টাকা পড়ে রয়েছে। লোকজন হুমড়ি খেয়ে টাকা কুড়িয়ে নিচ্ছেন। আবার কিছু লোক গাড়ি ঘিরে রেখেছেন।

করোনাভাইরাসের কারণে রাজধানীসহ সারা দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এ কারণে কর্মহীন হয়ে পড়েন অনেকে। তাদের সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দেয় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এরই অংশ হিসেবে অত্র এলাকায় গিয়েছিলেন সিইও।

বিষয়টি নিয়ে আব্দুল্লাহ আল তুহিন নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার ত্রাণ বিতরণ নামে তামাশা করেছেন। সরকারের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তার এমন আচরণ কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।’

ফেসবুকে আরাফাত নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘সমাজ নষ্ট হয়ে গেছে। যাদের ট্যাক্সের টাকায় দেশ চলে তাদের সঙ্গে এমন অমানবিক আচারণ!’

এ বিষয়ে ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ( সিইও) শাহ মো. এমদাদুল হক বলেন, ‘আমরা তো গত কয়েকদিন ধরে সাধারণ মানুষের মাঝে অর্থ বিতরণ করে আসছি কিন্তু কেউ তো সেগুলো নিয়ে একটি নিউজ করে নি।’

ওই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সাইন্সল্যাব থেকে ঢাকা কলেজ পর্যন্ত ওই এলাকায় দরিদ্র মানুষের মাছে অর্থ বিতরণ করেছি। ওই সময় একজন পুলিশ অফিসার  আমার সঙ্গে ছিলেন।  মানুষগুলো আমার গাড়ির ওপর  হুমড়ি খেয়ে পড়ে। তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে না  পেরে আমি আমার ড্রাইভারকে  চলে যেতে বলি। কিন্তু আমরা তো যেতে পারছিলাম না। কারণ গাড়ির চারদিকে মানুষ। তখন আমার হাতের টাকা ছেড়ে দেওয়া ছাড়া কোনো উপায় ছিল না।’

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, ‘বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি । তার ( প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ) প্রধান উদ্দেশ্য খারাপ ছিল না, তিনি ভালো কাজের জন্য সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু এত মানুষ চলে এসেছে তাদের আর ব্যবস্থাপনায় রাখা যায়নি। এ কারণ এটা হয়ে থাকতে পারে। বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখব।


ঢাকা/আসাদ/ইভা