ঢাকা, সোমবার, ২২ আষাঢ় ১৪২৭, ০৬ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

তহবিল সংগ্রহে বাংলাদেশে আসবেন প্যাট ফারমার

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৬-০৪ ৯:০৫:০৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৬-০৪ ৯:০৫:০৪ পিএম

৩ জুন ছিলো বিশ্ব দৌড় দিবস।  এ দিবসের লক্ষ্য ছিল সুস্থ দেহ আর সুন্দর মনই দিতে পারে একটি আত্মনির্ভরশীল জাতি এবং একটি সুন্দর সমাজ।  সুস্থ থাকার জন্য সব থেকে উপযুক্ত ব্যায়াম হচ্ছে নিয়মিত দৌড়ানো।

দিবসটি উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়ান ম্যারাথন অ্যাথলেট, একাধিক বিশ্বরেকর্ডের অধিকারী প্যাট ফারমার বাংলাদেশের মানুষকে একটি ভিডিও বার্তা দিয়েছেন।  বার্তায় তিনি বাংলাদেশের মানুষকে তার মহৎ উদ্যোগে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছেন।  ইউনিসেফের তহবিল সংগ্রহে তিনি বাংলাদেশে আসছেন বলেও জানিয়েছেন।

১৯৬২ সালে জন্ম নেওয়া প্যাট ফারমার উত্তর মেরু থেকে দক্ষিণ মেরু দৌড়ানো মানব ইতিহাসের অন্যতম গৌরবময় বিশ্বরেকর্ডধারী। ২০১২ সালে অস্ট্রোলিয়ান রেডক্রসের পক্ষ থেকে ফান্ড তোলার জন্য তিনি এই বিশ্বরেকর্ড গড়েন।

এছাড়া তিনি বিভিন্ন সময়ে তিনি লাইফ লাইন ক্যানসার  কাউন্সিল, রেডক্রস, ডিবেটস অস্ট্রেলিয়া এবং নানহি কালি ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন চ্যারিটি অরগানাইজেশনের পক্ষে মিলিয়ন ডলার ফান্ড সংগ্রহ করেছেন।

প্যাট ফারমারের আরেকটি পরিচয় হলো তিনি অস্ট্রেলিয়ান পার্লামেন্টের প্রাক্তন সদস্য।  তিনি তার রাজনৈতিক জীবনে যুব ও ক্রীড়ামন্ত্রী এবং শিক্ষা, বিজ্ঞান ও প্রশিক্ষণ মন্ত্রণালয়ের পার্লামেন্টারি সেক্রেটারি হিসেবে দক্ষতার সাথে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। 

বিশ্ববিখ্যাত মানবতার ফেরিওয়ালা এই আলট্রা ম্যারাথন দৌড়বিদের পরবর্তী মিশন হচ্ছে বাংলাদেশ।  তিনি টেকনাফ থেকে দৌড় শুরু করে দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৮০ কিলোমিটার এবং ৩০ দিনে ২০০০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্ব বাংলাদেশের ওপর দৌড়াবেন।  তিনি এই দৌড়ের মাধ্যমে ইউনিসেফ বাংলাদেশের জন্য ফান্ড তোলাসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের মধ্যে সুস্বাস্থ্য সুন্দর পরিবশে শিশু ও নারীর অধিকার এবং সামাজিক মূল্যবোধের জন্য প্রচারণা চালাবেন যা অতীতের মতো অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন গণমাধ্যমে গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করা হবে।

অস্ট্রোলিয়ান প্রতিষ্ঠান এআইএস মেরিন অ্যান্ড অফশোর এবং বাংলাদেশি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান Green Bangladesh Green Movemen যৌথভাবে ইউনিসেফ বাংলাদেশের তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে এই আল্ট্রা ম্যারাথনের আয়োজন করছে।  ইউনিসেফ এই ইভেন্টের মাধ্যমে তাদের নিজস্ব করপোরেট চ্যানেলে বাংলাদেশের জন্য তহবিল সংগ্রহ করবে।

২০২০ সালে, ইউনিসেফ বাংলাদেশ ৪ লাখ ৬১ হাজার ২৮০ জন লোকের জন্য পানীয়, রান্না এবং ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে নিরাপদ পানির পরিকল্পনা করে ২ লাখ ৯৩ হাজার ৭৫০ শিশু মানসম্মত যুবকরা বৃত্তিমূলক দক্ষতা প্রশিক্ষণ ব্যবহার করে।  এজন্য তাদের ২০২০ সালে ১২,৯০,৭০,০০০ মার্কিন ডলার তহবিল প্রয়োজন।

অস্ট্রেলিয়া তাদের ওডিএ প্রোগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশকে বৃহৎ আর্থিক সহায়তা দিয়ে আসছে।


হাসিবুল/সাইফ