ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭ ||  ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ফেসবুকসহ ওটিটি প্ল্যাটফর্মকে নিয়মের মধ্যে আনার তাগিদ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪৫, ৫ জুলাই ২০২০  
ফেসবুকসহ ওটিটি প্ল্যাটফর্মকে নিয়মের মধ্যে আনার তাগিদ

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ব‌লে‌ছেন, ফেসবুক-ইউটিউবসহ ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম বা ওটিটি প্ল্যাটফর্মকে নিয়মনীতি ও ট্যাক্সের মধ্যে আনা প্রয়োজন।  এটি একটি ক্রমবর্ধমান ক্ষেত্র, এখানে হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যবসা হচ্ছে।

রোববার (০৫ জুলাই) দুপু‌রে সচিবালয়ে ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোকে নিয়মনীতির মধ্যে আনা সংক্রান্ত এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় তি‌নি এ তাগিদ দেন।

সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান যুক্ত ছিলেন।

এছাড়া ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব নূর-উর-রহমান, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক, বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদসহ সভায় অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

হাছান মাহমুদ ব‌লেন, ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোকে নিয়মনীতির মধ্যে আনার জন‌্য আজ আমরা একটি সমন্বিত সভা করেছি। যারা নিয়মনীতি না মেনে, সরকারের কোনো বৈধ অনুমতি না নিয়ে, এখানে ব্যবসা করছে, তাদের ট্যাক্সের আওতায় আনা প্রয়োজন।

তি‌নি ব‌লেন, বাংলাদেশের বাস্তবতায় আমরা যা দেখছি তা হলো ওটিটি প্ল্যাটফর্ম বর্তমান যুগের একটি বাস্তবতা। এ প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে সেখানে বিনোদন থেকে শুরু করে বিভিন্ন জিনিস স্ট্রিমিং হচ্ছে। কিন্তু আমরা দেখতে পেয়েছি এ নিয়ে বিভিন্ন বিতর্ক তৈরি হচ্ছে। এক্ষেত্রে সরকার সঠিকভাবে ট্যাক্স পাচ্ছে না।

ভারতে ফেসবুক কোম্পানি হিসাবে রেজিস্টার্ড হয়েছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, যদিও বাংলাদেশে এখনো হয়নি। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ক্রমাগত প্রচেষ্টার পরিপ্রেক্ষিতে তারা এখানে একটি অফিস খোলা ও এজেন্ট নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু তারা এখনও কোম্পানি করেনি।

তিনি বলেন, এসব বিষয় একটি নিয়মনীতির মধ্যে আনা প্রয়োজন। এটি এমন একটি মাধ্যম যে মাধ্যম মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রত্যেকটি মানুষের কাছে চলে যাচ্ছে। মানুষ এ মাধ্যমটি এখন বেশি ব্যবহার করছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন,  যারা সার্ভিস প্রোভাইডার তারা বিটিআরসির কাছ থেকে লাইসেন্স নিয়েছে একটি, কিন্তু তারা অন্য ব্যবসাও করছে। আমরা এ নিয়ে ইতোমধ্যে গ্রামীণফোন ও রবির কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছিলাম, কোন লাইসেন্সের বলে তারা ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে সার্ভিস প্রোভাইডার হিসাবে অন্যদের কাছ থেকে কনটেন্ট নিয়ে লাইভ স্ট্রিমিং করছে। তারা কোন ধরনের অনুমতি নিয়ে এটা করছে?’

তি‌নি ব‌লেন, গ্রামীণফোন আমাদের একটি উত্তর দিয়েছে, সেখানে সেই ব্যাখ্যা সঠিকভাবে নেই।  এই বিষয়গুলোকে ট্যাক্সের আওতায় আনা দরকার।


রাই‌জিং‌বি‌ডি/নঈমুদ্দীন/জেডআর

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়