ঢাকা     শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৪ ১৪২৭ ||  ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ঈদযাত্রায় বাড়ানো হচ্ছে না ট্রেন

হাসান মাহামুদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:০০, ১৪ জুলাই ২০২০  

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে সারাদেশে চলছে ট্রেন। আসন্ন ঈদুল আজহাতেও সীমিত পরিসরেই ট্রেন চালু পরিকল্পনা করছে সরকার। বাড়তি কোনও আয়োজন থাকছে না। এমনকি ঈদ উপলক্ষ্যে অগ্রিম টিকিটও বিক্রি হবে না। ফলে এখনকার মতো ঈদেও বিভিন্ন রুটে ১৭টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করবে।

এ বিষয়ে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন,`ঈদ সামনে রেখে ট্রেন বাড়ানোর কোনও পরিকল্পনা আমাদের নেই। মন্ত্রণালয় ও রেলওয়ের প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু সরকার যেহেতু এখনও কোনও নির্দেশনা দেয়নি, সুতরাং এখনকার মতোই স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলবে ঈদেও।’

নুরুল ইসলাম বলেন, এই পরিস্থিতিতে সবাইকে ঘরে থাকতে বলার পর আবার যাত্রী পরিবহনের জন্য ট্রেনের সংখ্যা বাড়ালে তা মানুষকে বাইরে যেতে উৎসাহিত করা হবে।
ঈদ যাত্রায়ও সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি যথাযথ পালনের আহ্বান জানিয়েছেন মন্ত্রী।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, নিয়ম অনুযায়ী ১০ দিন আগে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট বিক্রি হয়। আসন্ন ঈদুল আজহাতেও সবাই একইভাবে অনলাইনে টিকিট কাটতে পারবেন।

দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের কারণে সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত ২৪ মার্চ সন্ধ্যা থেকে সব ধরনের যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়। শুধুমাত্র মালবাহী ট্রেন চলাচল করতো। সরকারি সিদ্ধান্ত তুলে নেওয়ার পর আবার গত ৩১ মে থেকে সীমিত আকারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্তঃনগর ট্রেন চালু করা হয়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন রুটে ১৭টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করছে। পাশাপাশি চলাচল করছে পার্সেল ট্রেন এবং আম পরিবহনের ট্রেন।

এছাড়া মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে রেল কর্তৃপক্ষ আসন্ন ঈদুল আজহায় প্রথমবারের মতো কোরবানির পশু পরিবহন করবে। রেলের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।
পশুবাহী ট্রেন পরিবহনে কিলোমিটার প্রতি মাত্র ২০ টাকা খরচ নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। পশু পরিবহন ব্যবসায়ীদের চাহিদার ভিত্তিতে ৩৪টি স্টেশন থেকে ঢাকা এবং চট্টগ্রামে ট্রেন চালানো হবে। মিটারগেজের একটি ওয়াগনে ১৬টি গরু এবং ব্রডগেজের একটি ওয়াগনে ২০ থেকে ২৫টি গরু পরিবহন করা যাবে।

রেলওয়ের অপারেশন বিভাগ সূত্র জানায়, রেলের এই নির্ধারিত ভাড়ায় একটা গরু পরিবহনে সবচেয়ে কম টাকা লাগবে দেওয়ানগঞ্জের মেলান্দহ স্টেশন থেকে গরু আনতে। এতে খরচ হবে মাত্র ৩৭৫ থেকে ৪৮৮ টাকা। গাইবান্ধা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত একটি গরু পরিবহন সবচেয়ে বেশি টাকা লাগবে। এতে খরচ হবে ৮৭৫ থেকে  ১২৩১ টাকা।

এদিকে, গত ২৪ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত অগ্রিম বিক্রি হওয়া ট্রেনের টিকিটের টাকা যাত্রীদের ফেরত দিচ্ছে রেলওয়ে। ১০ জুলাই থেকে এই টাকা ফেরত দেওয়ার কার্যক্রম চলছে। চলবে ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত। রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যাত্রীদের টিকিটের টাকা ফেরত চেয়ে নিজ নিজ স্টেশন মাস্টারের মাধ্যমে সিসিএম পূর্ব/চট্টগ্রাম বরাবর আবেদন করতে হবে। আবেদনের সাথে উপযুক্ত প্রমাণ হিসেবে ক্রয়কৃত টিকিটের মূলকপি, অনলাইনে টিকিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রিন্টেড কপির সাথে এনআইডির সত্যায়িত কপি দিতে হবে।


ঢাকা/হাসান/ফাহিম

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়