ঢাকা     রোববার   ০৯ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭ ||  ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

বায়তুল মোকাররমে করোনামুক্তি-শান্তি কামনায় দোয়া

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:২২, ১ আগস্ট ২০২০  
নামাজ শেষে মোনাজাত করছেন মুসল্লি

নামাজ শেষে মোনাজাত করছেন মুসল্লি

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহার ছয়টি জামাত রাজধানীর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এবারের ঈদ জামাতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তিদের রূহের মাগফেরাত কামনা, করোনাভাইরাস থেকে বিশ্ববাসীসহ দেশের জনগণের মুক্তি লাভ, বন্যাদুর্গত মানুষের দুঃখ-দুর্দশা লাঘব এবং সারা বিশ্বের মুসলিম উম্মাহসহ দেশ ও জাতির কল্যাণ-শান্তি কামনায় দোয়া করা হয়েছে।

শনিবার (১ আগস্ট) রাজধানীর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে সকাল ৭টা থেকে বেলা ১১টা ১০মিনিটে পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ছয়টি ঈদ জামাতে এ দোয়া কামানা করা হয়।

দেশজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী জাতীয় ঈদগাঁহতে ঈদের প্রধান জামাত বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে রাজধানীতে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে। ঈদ জামাতে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিশু-কিশোর এবং যুবক-বৃদ্ধ হাজারো ধর্মপ্রাণ মুসলমানসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নামাজ আদায় করেন।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে সকাল ৭টায় অনুষ্ঠিত ঈদ জামাতে ইমামতি করেন সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। নামাজের আগে বয়ানে তিনি বলেন, ‘সবাই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে তওবা করি। যেন আল্লাহতায়ালা আমাদের এ মহামারি থেকে মুক্তি দেন। তাই পাপ কাজ ছেড়ে তওবা করে আল্লাহর কাছে মাফ চাইতে হবে।’

ঈদুল আজহা প্রসঙ্গে মিজানুর রহমান বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের নির্দেশনা মেনে পশু কোরবানি এবং বর্জ‌্য পরিষ্কার করতে হবে। পশুর চামড়া যাতে নষ্ট না হয়, সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখার পাশাপাশি চামড়া সংরক্ষণের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। আর সারা দেশে বন্যাদুর্গতদের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে।

মোনাজাতে তিনি বলেন, আল্লাহ যারা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেছেন, তাদের আপনি শাহাদাতের মর্যাদা দান করে দিন। হে আল্লাহ, যারা অসুস্থ আছেন, দয়া করে তাদের শেফা দান করুন। এই বিমারি থেকে, রোগব্যাধি থেকে আমাদের সবাইকে হেফাজত করে দিন।

প্রথম জামাত শেষে বায়তুল মোকাররমে ঈদের আরও পাঁচটি জামাত পর্যায়ক্রমে অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করেন বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মুহিব্বুল্লাহিল বাকী নদভী। সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটের অনুষ্ঠিত তৃতীয় জামাতে ইমামতি করেন বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম মাওলানা এহসানুল হক। সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত চতুর্থ জামাতে ইমামতি করেন পেশ ইমাম মাওলানা মহিউদ্দিন কাসেম। সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠিত পঞ্চম জামাতে ইমামতি করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুহাদ্দিস হাফেজ মাওলানা ওয়ালিয়ুর রহমান খান। আর বেলা ১১টা ১০মিনিটে অনুষ্ঠিত সর্বশেষ ও ষষ্ঠ জামাতে ইমামতি করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সাবেক উপ-পরিচালক মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুর রব মিয়া।

ঈদ জামাতের বয়ানে প্রত্যেক ইমামই ঈদুল আজহার গুরুত্ব ও ফজিলত, করোনাকালের সতর্কতা অবলম্বন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং কোরবানির বর্জ্য দ্রুত অপসরণের জন্য সব মুসল্লিদের প্রতি আহ্বান জানান। আর মোনাজাতে করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি, বন্যাদুর্গতদের দুর্দশা লাঘব এবং সব মুসলিম উম্মাহ কল্যাণ ও শান্তি কামনায় দোয়া করেছেন।

 

এনটি/এসএম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়