Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১১ মে ২০২১ ||  বৈশাখ ২৮ ১৪২৮ ||  ২৮ রমজান ১৪৪২

দুই শিক্ষার্থীর মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তির দায়িত্ব নিলেন তথ‌্য প্রতিমন্ত্রী

সচিবালয় প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:০১, ১২ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ২১:৪২, ১২ এপ্রিল ২০২১
দুই শিক্ষার্থীর মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তির দায়িত্ব নিলেন তথ‌্য প্রতিমন্ত্রী

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার মো. সুমন ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তির দায়িত্ব নিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান।

সোমবার (১২ এপ্রিল) সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ে ডা. মুরাদ হাসানের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সুমন ও জিন্নাহর হাতে টাকা তুলে দেওয়া হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন পাঠান, ইউএনও শিহাব উদ্দিন আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক জহুরুল ইসলাম মানিক, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর পক্ষে কাউন্সিলর সাখাওয়াত আলম মুকুল, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির প্রমুখ।

জানা গেছে, সুমনের বাবা মিন্টু ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর বাবা সুলতান দিনমজুর। সুমন ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক‌্যাল কলেজে ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ চট্টগ্রাম মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু আর্থিক অনটনের কারণে তাদের ভর্তি নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছিল। বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. মুরাদ হাসান তার পক্ষ থেকে পৌর কাউন্সিলর সাখাওয়াত আলম মুকুল ও স্থানীয় নেতাদের দুই শিক্ষার্থীর বাড়িতে পাঠান। খোঁজ-খবর নিয়ে তাদের মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তির দায়িত্ব নেন ও লেখাপড়ার জন্য সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন ডা. মুরাদ হাসান।

মো. সুমন ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেছেন, ‘মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তির আর্থিক সঙ্গতি ছিল না। তাই ভর্তি নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলাম। আমাদের এমপি মুরাদ স্যার মেডিক‌্যালে ভর্তির দায়িত্ব নিয়েছেন এবং আমাদের পড়াশোনায় আর্থিক সহযোগিতা করারও আশ্বাস দিয়েছেন। আমরা তার প্রতি কৃতজ্ঞ।‘

এ বিষয়ে তথ‌্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, ‘আমার নির্বাচনী এলাকার দুই দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থী সুমন ও মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ টাকার অভাবে মেডিক‌্যাল কলেজে ভর্তি হতে বা পড়তে পারবে না, এটা কখনো হতে পারে না। আমি খোঁজ নিয়ে তাদের মেডিকেলে ভর্তির দায়িত্ব নিয়েছি। তাদের পরিবারের হাতে আপাতত ভর্তির জন্য ২০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। এরপরও তাদের পড়ালেখা সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য যে যে সহযোগিতা করা প্রয়োজন, আমি ব্যক্তিগতভাবে তা করব।’

ঢাকা/আসাদ/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়