Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ৪ ১৪২৮ ||  ০৯ সফর ১৪৪৩

সড়কে বাড়ছে মানুষ-যানবাহনের চাপ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৪১, ২৯ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৯:৫৯, ২৯ জুলাই ২০২১
সড়কে বাড়ছে মানুষ-যানবাহনের চাপ

ছবি: রাইজিংবিডি

কঠোর লকডাউনের সপ্তম দিনে অন্যদিনের তুলনায় যানবাহন ও মানুষের চলাচল বেড়েছে। তবে বিভিন্ন চেকপোষ্টে তল্লাশি কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। যৌক্তিক কারণ বলতে না পারলে অনেককে জরিমানা কিংবা আটক করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, গুলিস্তান, কাকরাইল, নবাবপুর, নয়াবাজার, সায়েদাবাদ, ফার্মগেট, কাকরাইল, বিজয়নগর, ফকিরাপুল, বাংলামোটর, বিজয়নগরসহ আশপাশের সড়কে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, জরুরি সেবার পরিবহন এবং রিকশার দখলে ছিল। অনেক জায়গায় দোকানপাট খোলা ছিল। লোকজনের আনাগোনাও ছিল চোখে পড়ার মতো। পাড়া-মহল্লার অলিতে-গলিতে চায়ের দোকানে ভিড় দেখা গেছে।

চেকপোস্টে খিলগাঁও  থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) রিয়াজউদ্দিন জানালেন, রাস্তায় ব্যক্তিগত গাড়ির সঙ্গে জরুরি সেবা, পণ্যবাহী পরিবহন, একইসঙ্গে রিকশা চলাচল বেড়ে গেছে। তবে চেকপোস্টে আসা প্রতিটি গাড়িকে আমরা তল্লাশি করছি। পাশাপাশি লোকজন কেন বের হয়েছেন তার যৌক্তিক কারণ জানতে চাওয়া হচ্ছে। বেশির ভাগই জরুরি প্রয়োজনে বের হচ্ছেন।

কাকরাইলে বেসরকারি চাকরিজীবী মাহতাব শাফি বলেন, অফিস খোলা। স্যার ফোন করেছেন। এ কারণে ফার্মগেট থেকে রিকশায় করে মতিঝিলে যাচ্ছি। কি করব ভাই, সরকার ঘরে থাকতে বললেও কাজের জন্য আমাকে বের হতে হয়েছে।

নয়াবাজার মোড়ে চেকপোষ্টে একইভাবে আগত যানবাহন এবং লোকজনকে তল্লাশি করছিল পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সেখানে ৮টি গাড়ির বিরুদ্ধে ট্রাফিক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। যৌক্তিক কারণ বলতে না পারায় বের হওয়া অনেককে জরিমানাও করছিল পুলিশ।

বংশাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল খায়ের বলেন, অন্য সব কাজের সঙ্গে লকডাউনের ভেতর স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে আমরা প্রতিদিনের ন্যায় রুটিন ওয়ার্ক করে যাচ্ছি। কিন্তু তারপরও রাস্তায় মানুষ ও যানবাহন বাড়ছে। তবে কেউ আইনের ব্যত্যয় ঘটালে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।'

চেকপোস্টে প্রাইভেটকারে বসা মোনালিসা বলছিলেন, বোন এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাকে দেখতেই মূলত বাসা থেকে বের হয়েছি। 

তবে কাগজপত্র দেখাতে না পারায় তাকেও পুলিশের কাছে জরিমানা গুনতে হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে আলাপে জানা গেছে, লকডাউনের প্রথম ১/২ দিন সড়কে যানবাহন কিংবা মানুষের চলাচল কম থাকলেও দিনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে জরুরি সেবার বাইরেও বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক খোলা থাকায় লোকজন অফিস কিংবা অফিসের প্রয়োজনে বের হচ্ছেন।

 করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে দুই সপ্তাহের কঠোর লকডাউন এবং স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রজ্ঞাপন জারি করে। যা আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। 

/মাকসুদ/এমএম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়