ঢাকা     শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ১৭ ১৪২৯ ||  ০১ জিলহজ ১৪৪৩

ইয়েমেনে অপহৃত ৫ জাতিসংঘ কর্মীর একজন বাংলাদেশি

কূটনৈতিক প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:১১, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১১:১৭, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২
ইয়েমেনে অপহৃত ৫ জাতিসংঘ কর্মীর একজন বাংলাদেশি

সুফিউল আনাম

ইয়েমেনে জাতিসংঘের যে ৫ জন কর্মকর্তা অপহরণের শিকার হয়েছেন তাদের একজন বাংলাদেশের সাবেক সেনা কর্মকর্তা এ কে এম সুফিউল আনাম।

নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

আরও পড়ুন: ইয়েমেনে জাতিসংঘের ৫ কর্মী অপহৃত

সুফিউল আনাম দুই দশক থেকে জাতিসংঘ কর্মরত। তিনি সংস্থাটির নিরাপত্তা ও সুরক্ষা বিভাগের ফিল্ড সিকিউরিটি কো-অর্ডিনেশন অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পাঁচ কর্মকর্তাকে উদ্ধারে জাতিসংঘের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা সম্পর্কিত বিভাগ কাজ করছে বলে জানানো হয়েছে। বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশি কর্মকর্তাকে উদ্ধারে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট বিভাগের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে।

এ ধরনের অপহরণের ক্ষেত্রে জাতিসংঘের দেওয়া তথ্যের বাইরে আর কোনো তথ্যের ওপর নির্ভর করার সুযোগ নেই। আবার উদ্ধার কার্যক্রমও কেবল জাতিসংঘই চালাতে পারে বলে জানায় বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন।

গত শনিবার ইয়েমেনে নিয়োজিত জাতিসংঘের এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানায়, দেশটিতে জাতিসংঘের ৫ কর্মীকে অপহরণ করা হয়েছে। সুফিউল ছাড়া বাকি চারজনই ইয়েমেনের নাগরিক বলে খবরে উল্লেখ করা হয়। বলা হয়েছিল, অপহরণের শিকার অন্যজন বিদেশি। তবে কারও পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

জাতিসংঘের ইয়েমেন অফিস জানিয়েছে, সেখানকার স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের মাধ্যমে আলোচনা চলছে। স্থানীয় একটি গোষ্ঠী মুক্তিপণ দাবি করেছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ও ইয়েমেনের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, শুক্রবার দক্ষিণ ইয়েমেনে একটি ফিল্ড ট্রিপ করে যখন তারা রাজধানীর দিকে ফিরছিলেন তখন মাঝপথে স্থানীয় একটি গোষ্ঠী তাদের অপহরণ করে। সেখান থেকে তাদের অজানা গন্তব্যে নিয়ে যাওয়া হয়। শনিবার তারা জাতিসংঘের ইয়েমেন দপ্তরে যোগাযোগ করে মুক্তিপণ দাবি করে।

অপহরণের শিকার সুফিউল আনামের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায়।

২০১৫ সালের শুরুর দিকে হুথি বিদ্রোহীরা ইয়েমেনের রাজধানী সানা আক্রমণ করে মানসুর হাদির সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে। ওই বছরের মার্চ থেকে ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জোট। এরপর থেকে চলমান সংঘাতে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

/হাসান/এসবি/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়