ঢাকা     রোববার   ০২ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৭ ১৪২৯ ||  ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

অর্থনীতি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:২৮, ১৪ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ২১:২৮, ১৪ আগস্ট ২০২২
অর্থনীতি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: শিক্ষামন্ত্রী

সারাবিশ্বে মহামারি, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, জ্বালানি তেলের বাজারে অস্থিরতা ও ডলারের দাম বৃদ্ধির কারণে পৃথিবীর সকল দেশেরই অর্থনীতি এখন হুমকির মুখে। আমাদের অর্থনীতি যেন কোনও হুমকির মুখে না পড়ে সে ব্যাপারে সরকার কাজ করছে। 

রোববার (১৪ আগস্ট) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের আয়োজনে ‘অশ্রুঝরা আগস্টে শোকসঞ্জাত শক্তির অন্বেষা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে যারা হত্যা করেছে তারা এখনও দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের লিপ্ত। তারা শেখ পরিবারের রক্তকে ভয় পায়। যার কারণে দশ বছরের শেখ রাসেলকেও তারা হত্যা করেছে। জাতির পিতার রক্ত বৃথা যেতে দেওয়া যাবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সকল খুনিদের বিচার এই দেশে করবেন।

শিক্ষামন্ত্রী‌ ডা. দীপু মনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শোষিতদের গণতন্ত্রের প্রতীক ছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতে পারেনি যে বাঙালিরা তাকে হত্যা করতে পারে। বিশ্বের ইতিহাসে অনেক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা আছে, তবে বঙ্গবন্ধুকে যেভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছে তা বিরল।

সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে দেশকে নিয়ে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। ১৯৮১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশের পুনর্জন্ম হয়েছিল। তিনি গণতন্ত্র মঞ্চের কথা উল্লেখ করে বলেন, আ.স.ম আব্দুর রবের মত নেতারা পূর্বেও দেশের ক্ষতি করতে চেয়েছিল। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে।

সেমিনারের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিভু রঞ্জন সরকার ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মিল্টন বিশ্বাস।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আতিকুল ইসলাম বলেন, আমি দীর্ঘ ৬৪ বছর ধরে বঙ্গবন্ধুকে কাছ থেকে দেখেছি। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে কেউ এইভাবে হত্যা করতে পারে তা কখনও ভাবিনি। দেশে ১৫ আগস্ট একদিনে হয়নি। এটা ছিল একটি সুপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান বলেন, মাত্র দুই সপ্তাহ হয়েছে দেশে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি হয়েছে। কিন্তু একটি মহল যারা দেশকে দীর্ঘ ২১ বছর পিছিয়ে দিয়েছে, তারা আবার ১৫ আগস্ট এর মতো আরেকটি ঘটনা ঘটাবার চেষ্টা করছে। তা না হলে আগস্ট মাসে আমাদের দেশের সর্বোচ্চ মেধাবী শিক্ষার্থীরা এইভাবে ছাত্রলীগ বিরোধী স্লোগান দিত না। আগস্ট মাসের বরাবরের মতো একটি শক্তি মুক্তিযুদ্ধ চেতনাকে ধ্বংস করতে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যায়।

জাতীয় কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, বঙ্গবন্ধুকে কেন হত্যা করা হয়েছে তা আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণে সংগ্রাম ও মুক্তি এ দুটি কথা কেন বলেছেন। তা আমাদের উপলব্ধি করতে হবে। সকল বিশ্ব নেতা থেকে বঙ্গবন্ধু ছিলেন সম্পূর্ণ আলাদা। এই জন্য সাম্রাজ্যবাদ পক্ষে লোকেরা বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে বিপদজনক মনে করেছেন। বঙ্গবন্ধু যদি আর ১০-১৫ বছর রাজনীতি করে যেতে পারতেন, তাহলে দক্ষিণ এশিয়া অনেক দূর এগিয়ে যেতেন। 

বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবদুর রশিদ বলেন, ১০ বছরের শিশু সন্তান শেখ রাসেলকে হত্যা করা হয়। এটা ছিল অত্যন্ত ঘৃণিত অপরাধ। যা পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই। দেশের একদল মানুষ শোকের মাস এলেই মনে হয় আগস্ট বিপ্লবী মেতে উঠে। তাই বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামকে দেশের বর্তমান চিত্র তুলে ধরার জন্য আহ্বান করছি।

বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সহ সভাপতি অধ্যাপক ড. রশিদ আসকারী বলেন, পৃথিবীর যতগুলো রাজনীতিবিদকে হত্যা করা হয় তার কোনটির সাথে ১৫ আগস্টের মতো ছিল না। বিশ্ববাজারে অস্থিরতা দেখে নিন্দুকেরা কটু কথা বলবে। কিন্তু দেশ কখনো শ্রীলঙ্কা হতে পারে না।

সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আতিকুল ইসলাম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মো. আব্দুর রশিদ ও বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী প্রমুখ।

রায়হান/ঢাকা/এনএইচ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়