Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৮ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ১২ ১৪২৮ ||  ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

Risingbd Online Bangla News Portal

টেস্ট থেকে মঈনের অবসরের ঘোষণা

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৫৮, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৪:৩৫, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
টেস্ট থেকে মঈনের অবসরের ঘোষণা

মাত্র সাত বছরেই টেস্ট ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার মঈন আলী। কিছু গণমাধ্যমের বরাতে রোববার থেকেই শোনা যাচ্ছিল আর টেস্ট খেলবেন না তিনি। পরের দিন এলো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। ‘যথেষ্ট হয়েছে, আর নয়। ক্রিকেটকে উপভোগ করতে’ টেস্টকে বিদায় বলেন দিলেন ৩৪ বছর বয়সী অলরাউন্ডার।

চেন্নাই সুপার কিংসের সঙ্গে আইপিএল খেলতে এখন সংযুক্ত আরব আমিরাতে মঈন। সেখান থেকে এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, ‘আমার বয়স এখন ৩৪। যতদিন পারি আমি খেলতে চাই এবং ক্রিকেটকে কেবল উপভোগ করতে চাই। টেস্ট ক্রিকেট চমৎকার, যখন দিন ভালো যায় তখন অন্য যে কোনো ফরম্যাটের চেয়ে এটি অনেক ভালো। এটি অনেক ফলপ্রসূ এবং মনে হবে এটা আপনি অর্জন করে নিয়েছেন।’

মঈন আরো বলেন, ‘ছেলেদের সঙ্গে মাঠে যাওয়া, চাপের অনুভূতি নিয়ে বিশ্বের সেরা দলের বিপক্ষে খেলা আমি খুব মিস করব। এছাড়া আমার সেরা বল দিয়ে কাউকে আউট করার বিষয়টিও মিস করব। আমি টেস্ট ক্রিকেট উপভোগ করেছি এবং কোনো কোনো সময় এর তীব্রতা অনেক বেশি হয়। আমি মনে করছি যথেষ্ট হয়েছে এবং যেভাবে যা করেছি তাতে আমি খুশি ও সন্তুষ্ট।’

তবে ইংল্যান্ডের জার্সিতে সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলে যাবেন মঈন। ২০১৪ সালে অভিষেকের পর ৬৪ টেস্টে ২৮.২৯ গড়ে ৫ সেঞ্চুরি ও ১৪ হাফ সেঞ্চুরিতে ২৯১৪ রান ও অফ স্পিনে পাঁচবার ইনিংসে পাঁচটিসহ সর্বমোট ১৯৫টি উইকেট নেন। ২০১৯ সালের অ্যাশেজের পর দীর্ঘদিন টেস্ট দলে অনিয়মিত ছিলেন।

সম্প্রতি ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে ফেরেন তিনি, খেলেন দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ম্যাচ। আর ৮৬ রান ও ৫ উইকেট নিলে ১৫তম অলরাউন্ডার হিসেবে ৩ হাজার ও ২০০ উইকেট নেওয়ার মাইলফলক ছুঁতেন। ম্যানচেস্টারে ওল্ড ট্র্যাফোর্ড পঞ্চম টেস্ট না হওয়ায় আক্ষেপ তার, ‘সত্যি বলতে আমি মনে করি, যথেষ্ট খেলেছি। শেষ টেস্ট খেলার আশা করছিলাম, কিছু মাইলফলক ছোঁয়ার ছিল, যখন খেলা বাতিল হলো, বুঝলাম হ্যাঁ শেষ।’

ক্যারিয়ারের শুরু থেকে বন্ধু, পরিবার ও কোচদের অকৃত্রিম ভালোবাসা আর সমর্থনের কথাও বললেন মঈন, ‘আমার কোচ হওয়ায় পিটার মুরস ও ক্রিস সিলভারউডকে ধন্যবাদ জানাই, আমার অভিষেকের জন্য পিটারের প্রতি কৃতজ্ঞ। অধিনায়ক কুকি (অ্যালিস্টার কুক) ও রুটকেও ধন্যবাদ জানাই, তাদের অধীনে আমি খেলা উপভো করেছি এবং আশা করি তারাও খুশি আমি যেভাবে খেলেছি।’

মা-বাবাকে বিশেষ কৃতিত্ব দিলেন মঈন, ‘আমার বাবা-মা এক নম্বর, আমি মনে করি তাদের সমর্থন ছাড়া এই পর্যায়ে আসতে পারতাম না। প্রত্যেক ম্যাচ তাদের জন্য খেলেছি এবং আমি জানি তারাও আমাকে নিয়ে গর্বিত। আমার ভাই ও বোনরা, আমার খারাপ সময়ে তারাই সবার আগে এগিয়ে এসেছে এবং আমার স্ত্রী ও সন্তানরা, আমার স্ত্রীর ত্যাগ এবং ধৈর্য ছিল অপরিসীম, আমি সত্যিই এজন্য কৃতজ্ঞ। আমার এই যাত্রায় তারা সবাই ছিল চমৎকার, আমি যা করেছি তার সবকিছু তাদের জন্য।’

ঢাকা/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়