Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৪ মার্চ ২০২১ ||  ফাল্গুন ১৯ ১৪২৭ ||  ১৯ রজব ১৪৪২

‘সরকারের সর্বক্ষেত্রে সাফল্য কৃতিত্বের পেছনে জাতীয় পার্টির একটা ভূমিকা আছে’

সংসদ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০২:৫৩, ২৫ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ০২:৫৩, ২৫ জানুয়ারি ২০২১
‘সরকারের সর্বক্ষেত্রে সাফল্য কৃতিত্বের পেছনে জাতীয় পার্টির একটা ভূমিকা আছে’

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বলেছেন, ‘সরকারের সর্বক্ষেত্রে সাফল্য কৃতিত্বের পেছনে জাতীয় পার্টির একটা ভূমিকা আছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের কোন নেতা কোনদিন একবারও নাম উচ্চারণ করেন না।’

রোববার (২৪ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনিত ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘উন্নয়নের প্রথম ভিত রচনা করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু মনে করতেন পরাধীন দেশে কখনো উন্নয়ন করা সম্ভব না। তাই তিনি সর্বপ্রথম বাঙালি জাতির মুক্তির জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করলেন। এরশাদ সাহেবের আমলে গ্রাম বাংলায় অভুতপূর্ব উন্নয়ন ঘটেছে সর্বত্র। দুঃখ লাগে সরকারের সর্বক্ষেত্রে সাফল্য কৃতিত্বের পেছনে জাতীয় পার্টির একটা ভূমিকা আছে কিন্তু আওয়ামী লীগের কোন নেতা কোনদিন একবারও নাম উচ্চারণ করেন না। আমরা তো হাজার বলি এই সরকারের এই কাজ হয়েছে। আমাদের তো কার্পণ্য নেই তাদের কেন এতো কার্পণ্য রাজনীতিতে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বিপুল পরিমাণ অর্থ লুটপাট হয়ে যাচ্ছে। রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সেক্টরগুলো একদম দুর্বল এবং নড়বড়ে এবং দুর্নীতি নির্ভর করেছে। ব্যাংকিং সেক্টর থেকে হাজার হাজার কোটি নিয়ে মানুষ বিদেশে পাচার করে দিচ্ছে। এই ব্যাংকের পরিচালক ওই ব্যাংক থেকে নেয়, ওই ব্যাংকের পরিচালক এই ব্যাংক থেকে নেয়। যখন একটি দল দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকে আত্মীয়-স্বজনের অভাব হয় না। শালা-সমন্ধি, তার শালা, তার শশুর বাড়ি এরা সবাই ঝাপিয়ে পড়ে ব্যাংক থেকে লোন নেবার জন্য। লোন পেয়েও তো যাচ্ছে। এই টাকা কোথায় যায় মনিটরিং হচ্ছে না।’

স্কুল-কলেজ খোলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘করোনায় গোটা বিশ্বের অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী প্রথমেই সব স্কুল কলেজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছিলেন। যদি বন্ধ না করতো একটা বিপর্যয়ের মুখে আমাদের পড়তে হতো। ফলে একটা ভয়াবহ বিপর্যয় থেকে বেঁচে গেছি। শিশুরা আক্রান্ত হলে গোটা পরিবার আক্রান্ত হতো। আমার এলাকায় সব থেকে বেশি স্কুল কলেজ। আড়াই মাসের একটি বাচ্চা দুইবার করোনায় আক্রান্ত হলো। মার্চ মাস পর্যন্ত দেখেন। করোনা কিছুটা স্থমিত হয়ে গেছে। তার মানে এই না করোনা শেষ হয়ে গেছে। মার্চ মাসের দিকে গরম আসবে তখন স্কুল কলেজ খুলে দিলে ভালো হবে। এই মুহূর্তে কারো কথায় স্কুল খুলবেন না।’

আসাদ/আমিনুল

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়