Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

জাতীয় পার্টি কখনো বিলীন হবে না: জিএম কাদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:২৫, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৯:২৭, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১
জাতীয় পার্টি কখনো বিলীন হবে না: জিএম কাদের

জাতীয় পার্টি রাজনীতির মাঠে পরগাছা হয়ে থাকবে না বলে মন্তব্য করে দলটির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, অস্তিত্বহীন রাজনৈতিক দল হিসেবে জাতীয় পার্টি কখনোই বিলীন হবে না। জাতীয় পার্টির অস্তিত্ব আছে। নিজস্ব রাজনীতি আছে। নিজস্ব রাজনীতি নিয়ে জাতীয় পার্টি সামনে এগিয়ে যাবে।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে দলটির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের-এর ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে আনন্দঘন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

জিএম কাদের বলেন, গণমানুষের মাঝে জাতীয় পার্টির গ্রহণযোগ্যতা আছে। তাই দেশ ও জনগণের স্বার্থে কথা বলবে জাতীয় পার্টি।  কোন ভয়-ভীতির কাছে জাতীয় পার্টি মাথা নত করবে না। 

তিনি নেতাকর্মীদের উদেশ্যে বলেন, দেশ ও মানুষের কথা বলতে যদি অত্যাচার ও নির্যাতন সইতে হয়, সেজন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।  প্রয়োজনে লাঠি ও গুলির সামনে সাহস নিয়ে দাঁড়াতে হবে।  নির্যাতন এলে তা মোকাবিলা করতে প্রস্তুত থাকতে হবে।

এর আগে দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে নিয়ে জন্মদিনের কেক কাটেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির আহ্বায়ক ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা শেরিফা কাদেরের তত্বাবধানে এবং সদস্য সচিব আলাউদ্দিন আহমেদ এর পরিচালনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির সদস্যরা।  পুরো অনুষ্ঠান তত্বাবধান করেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও চেয়ারম্যান এর বিশেষ সহকারী মীর আবদুস সবুর আসুদ।

এ সময় জাতীয় পার্টি মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু  বলেন, ভাষার মাসে মানুষের কথা বলার অধিকার নেই। দেশের মানুষের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। সকল রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে জাতীয় পার্টি গণমানুষের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে।

পার্টির কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, দেশের মানুষ জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে আছে। দেশের মানুষ জাতীয় পার্টিকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় দেখতে চায়। জাতীয় পার্টিই দেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবে।

কো-চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চুন্নু এমপি বলেন, জাতীয় পার্টি আগামী দিনের রাজনীতিতে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় রাজনৈতিক শক্তি। তাই দলকে আরও শক্তিশালী করতে সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

কো-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম এমপি বলেন, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের আদর্শেই গণমানুষের মুক্তি। গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টি পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্বপ্নের নতুন বাংলাদেশ গড়বে। 

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের জন্মদিনে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম, প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, মীর আব্দুস সবুর আসুদ।

জিএম কাদেরকে শুভেচ্ছা 
জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে শুভেচ্ছা জানান দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু এমপি, সাহিদুর রহমান টেপা, এস.এম. আব্দুল মান্নান, মো. মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, মো. আজম খান, সোলায়মান আলম শেঠ, অ্যাডভোকেট মো. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, আলহাজ্ব মিজানুর রহমান, আলহাজ্ব মো.  সাত্তার মিয়া, এমরান হোসেন মিয়া, মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল এমপি, সৈয়দ দিদার বখত, একেএম সেলিম ওসমান এমপি, মো. জহিরুল ইসলাম জহির, সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য আতিকুর রহমান আতিক, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য শেরিফা কাদের, রওশন আরা মান্নান এমপি, এম.এ. কুদ্দুস খান, ড. নুরুল আজহার শামীম, মনিরুল ইসলাম মিলন, সরদার শাহজাহান, অ্যাডভোকেট লাকী বেগম, ভাইস চেয়ারম্যান মো.  আরিফুর রহমান খান, নিগার সুলতানা রানী, মেজর (অব.) আব্দুস সালাম, মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক, মোস্তফা আল মাহমুদ, সুলতান আহমেদ সেলিম, এইচ.এম. শাহরিয়ার আসিফ, তারেক এ আদেল, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, আমির উদ্দিন আহমেদ ঢালু, ফখরুল আহসান শাহজাদা, মো. জসীম উদ্দিন ভূঁইয়া, মো. বেলাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক নির্মল দাস, সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু, মো. সাইফুল ইসলাম, জয়নাল আবেদিন, মো. হুমায়ন খান, একেএম আশরাফুজ্জামান খান, আনোয়ার হোসেন তোতা, আনিস উর রহমান খোকন, সৈয়দ মো. ইফতেকার আহসান হাসান, মো. সাইফুদ্দিন খালেদ, মাখন সরকার, মিজানুর রহমান, কাজী আবুল খায়ের।

কেক কেটে দলের চেয়ারম্যানকে শুভেচ্ছা জানায় জাতীয যুব সংহতি, জাতীয় মহিলা পার্টি, জাতীয় কৃষক পার্টি, জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টি, জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টি, জাতীয় তরুণ পার্টি, জাতীয় শ্রমিক পার্টি, জাতীয় পেশাজীবী পার্টি, জাতীয়  ছাত্রসমাজ, জাতীয় আইনজীবী ফেডারেশন, জাতীয় মৎস্যজীবী, জাতীয় তাঁতী পার্টি, জাতীয় মোটর শ্রমিক পার্টি, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পার্টি, জাতীয় হকার্স পার্টি, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পার্টি।

নঈমুদ্দীন/সাইফ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে