ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৯ নভেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৫ ১৪২৯ ||  ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

চূড়ান্ত আঘাতের জন্য জনগণ প্রস্তুত: রিজভী 

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:২২, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২  
চূড়ান্ত আঘাতের জন্য জনগণ প্রস্তুত: রিজভী 

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, কত আর আঘাত করবেন? চূড়ান্ত আঘাতের জন্য জনগণ প্রস্তুত হয়ে আছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বন্দুক দিয়ে জনগণের শক্তিকে দমাতে পারবেন না আপনি বা আপনার দলের লোকজন। জনগণের দিকে তাক করা আপনার পুলিশ বাহিনীর রাইফেল কখন, কোনদিকে ঘুরে যাবে- সেটা চিন্তা করে কথা বলবেন। এখনও সময় আছে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ লেবার পার্টি আয়োজিত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের দাবিতে সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় রিজভী বলেন, সারা দেশের মানুষ উত্তাল হয়ে উঠেছে। আর কোনও ব্যারিকেড দিয়ে মানুষকে রুখতে পারবেন না। পথে-ঘাটে-মাঠে-সারাদেশে এখন ব্যারিকেড তৈরি হবে। আজ যারা বিভিন্ন রকমের অরাজনৈতিক এবং ফালতু কথা বলছে, বিরোধী নেতাকর্মীদের হত্যা করার পরও নানাভাবে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে- তাদের কেউই জনগণের আক্রোশ থেকে রেহাই পাবে না।

সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী বলেন, বর্তমান দেশের যে পরিস্থিতি চলছে- এ অবস্থা আর চলতে দেওয়া যাবে না। আপনারা পুলিশ দিয়ে, নেতাকর্মীদের দিয়ে গুলি করবেন তো, করেন। সেই গুলিতে আমাদের নেতাকর্মীদের শরীর থেকে রক্ত ঝরবে। সেই রক্ত যে মাটিতে পড়বে সেই মাটি আরও তেজস্বী হবে। সেই মাটি অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিরোধে আরও অঙ্গীকারবদ্ধ হবে। দুই শাওন, নারায়ণগঞ্জের এবং মুন্সিগঞ্জের দুই তরুণ শাওন, ভোলার আব্দুর রহিম, নূরে আলমের যে রক্ত ঝরেছে নিশ্চয়ই সে রক্ত বৃথা যাওয়ার জন্য ঝরেনি। 

নির্বাচন কমিশনারদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা কী নির্বাচন করবেন? আপনাদের যদি দিনকে রাত বলে, আপনারাও তাই বলবেন। আপনাদের মতো জি হুজুর মার্কা লোকজন দিয়ে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব হবে না। নতুন তত্ত্বাবধায়ক সরকার এসে সবার গ্রহণযোগ্য একটা নির্বাচন কমিশন গঠন করবে, সেই কমিশনের অধীনেই সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। 

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তার জীবনের সব সুখ শান্তি বিসর্জন দিয়ে গণতন্ত্রের জন্য জনগণের হয়ে আজীবন সংগ্রাম করেছেন। তিনি এই সরকারের নির্যাতন সহ্য করছেন, অসুস্থ অবস্থায় এখনও বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন। তবু তিনি কিন্তু কারও কাছে মাথা নত করেননি। সেই আপসহীন নেত্রীর আদর্শের অনুসারী আমরা। আমাদের নেত্রীর সেই মাথা আরও উন্নত হবে। অপরদিকে, শেখ হাসিনা মাথা নোয়াবেন জনগণের আদালতে।

লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে বিএনপির সিনিয়র এই নেতা ছাড়াও বক্তব্য রাখেন মীর সরাফত আলী সফু, অ্যাডভোকেট নিপুণ রায়সহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

মেয়া/এনএইচ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়