Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ১৬ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ২ ১৪২৮ ||  ০৩ জিলক্বদ ১৪৪২

বিক্রেতা থেকে আম বাগানের মালিক জামাল

কাঞ্চন কুমার || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪৯, ৯ জুন ২০২১   আপডেট: ১৫:০০, ৯ জুন ২০২১
বিক্রেতা থেকে আম বাগানের মালিক জামাল

অনলাইনে আম বিক্রির পরে বাণিজ্যিকভাবে আম বাগান করে বেশ সাফল্য পেয়েছেন কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার মশান এলাকার এস এম জামাল। আড়াই বিঘা জমিতে আম চাষ করে এলাকায় সাড়া ফেলে দিয়েছেন। নিজের বাগানের আম স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি বিক্রি করছেন অনলাইন মাধ্যমে।

এস এম জামাল বলেন, ‘গত বছর থেকে করোনাকালীন সময়ে বেকার থেকে উত্তরণের উপায় হিসেবে অনলাইনে আম বিক্রি করে কিছুটা লাভবান হয়েছি। এর ধারাবাহিকতায় এলাকার একটি আড়াই বিঘার আম বাগান তিন বছরের জন্য লিজ নেই। আমার বাগানে আম্রপালি, মল্লিকা, হাঁড়ি ভাঙা ও হিমসাগর জাতের গাছ রয়েছে। গত এক বছর ধরে এই বাগান পরিচর্যা করার ফলে প্রায় প্রতিটা গাছেই আম এসেছে।

ফর্মালিন ও অন্যান্য কেমিক্যাল ব্যবহার না করে মানুষকে বিশুদ্ধ আম খাওয়ানোর উদ্দেশ্য নিয়েই এ বাগান করেছেন বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘আম্রপালি, হাঁড়িভাঙ্গা ও হিমসাগর জাতের মোট ২২৫টি আম গাছ রয়েছে। যেখানে এবছর ১৫০ থেকে ১৬০ মণ আম পাবো বলে আশা করছি। ইতোমধ্যে ১০ মন আম বাজারে এবং অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রি করেছি। বর্তমানে বাগান থেকেই ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি। এই মৌসুমে খরচ বাদে সোয়া লাখ থেকে দেড় লাখ টাকা লাভ হবে বলে আশা করছি।’  

এস এম জামাল বলেন, ‘বাণিজ্যিকভাবে আম বাগান বা কৃষি খামার করে একজন ব্যক্তি সহজেই স্বাবলম্বী হয়ে উঠতে পারেন। যার উদাহরণ আমি। আম বাগানে তেমন পরিশ্রম নেই, তবে নিয়মিত দেখাশোনা করি।’

মিরপুর উপজেলা কৃষি অফিসার রমেশ চন্দ্র ঘোষ জানান, উপজেলায় বেশ কয়েকটি আম বাগান রয়েছে। এ উপজেলার মাটি আম বাগানের জন্য বেশ উপযোগী। একারণে এখানে প্রতিনিয়ত বাণিজ্যিকভাবে আম চাষ বাড়ছে।

কুষ্টিয়া/মাহি 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়