Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২৫ ১৪২৮ ||  ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

সবুজ পাতায় সোনালি হাসি 

মোসলেম উদ্দিন, দিনাজপুর  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৪০, ১৪ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১৩:২২, ১৬ অক্টোবর ২০২১

দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় চলতি আমন মৌসুমে ধান ক্ষেতে দুলছে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন। গত বোরো মৌসুমে ধানের দাম ভালো পাওয়ায় খুশি চাষিরা। এবার জেলায় ২ লাখ ৭১ হাজার হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা কৃষি অধিদপ্তর।

দিনাজপুর জেলাকে দেশের শস্য ভান্ডার বলা হয়। বিভিন্ন ফসলে ভরপুর এ জেলা, দেশের সিংহভাগ ধান উৎপাদন হয় এখানে। কাটারিভোগ চাল দেশের প্রসিদ্ধ, এছাড়াও জিরা কাটারি, সম্পা কাটারি, চিনি কাটারি, ইরি, আমনসহ নানা প্রকার সুস্বাদু চাল এই জেলায় উৎপাদন হয়ে থাকে। 

জেলার বিভিন্ন উপজেলার আমন ধান ক্ষেত ঘুরে দেখা যায়, সবুজ ধানের ক্ষেত প্রায় সোনালী রঙ ধারণ করেছে। দখিনা বাতাস বইছে আর সেই বাতাসে সোনালী ধানের শীষ দোল খাচ্ছে। সঙ্গে দোল খাচ্ছে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন। প্রতিটি শীষে স্বচ্ছ ধান। আর এক মাস পর শুরু হবে কাটা-মাড়াই। ক্ষেতে পোকামাকড় দমনে কীটনাশক স্প্রে করছেন চাষিরা।

বিরামপুর উপজেলার কেটরাগ্রামের কৃষক বাদল মিয়া রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘গত বোরো মৌসুমে ৭ বিঘা জমিতে ইরি ধান লাগিয়ে ছিলাম। ফলন ভালো হয়েছে এবং বাজারে দামও ভালো পাইছি। এবার ওই জমিতে আমন ধান লাগিয়েছি, প্রতিটি জমিতে ধানের বেশ ভালো ফলন দেখছি। আশা করছি এবারও ভালো ফলনসহ দামটাও ভালো পাবো।’

হিলির জালালপর গ্রামের আকরাম হোসেন বলেন, ‘আল্লাহ দিলে মোর জমিত সব সময় ভালো ধান আবাদ হয়। ইরি সিজনে আড়াই বিঘা জমি ধান লাগাইছিনু, ২৫ মণ করে বিঘাপ্রতি ধান পাইছু। এবারও তাই আমন ধান আবাদ করিছু, এবারও ধান ভালো হবি। যদি ধানের দাম ভালো পাউ, তাহলে খুব সুবিধা হবে।’

দিনাজপুর জেলা কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক প্রদীপ কুমার গুহো বলেন, ‘দিনাজপুর জেলাকে উন্নত শস্য ভাণ্ডার বলা হয়। এই জেলার ১৩টি উপজেলায় চলতি আমন মৌসুমে ২ লাখ ৭১ হাজার হেক্টর জমিতে কৃষকরা আমন ধানের চাষ করেছেন। গত বোরো মৌসুমের মতো এবারও ধানের ভালো ফলন হবে এবং দামও কৃষকরা ভালো পাবেন। প্রতিটি উপজেলার কৃষি অফিসার সহ কৃষি কর্মীরা মাঠে কাজ করছেন। কৃষকের সুবিধার্থে আমরা কৃষকদের বিভিন্ন সার, বীজসহ কৃষি উপকরণ বিনামূল্যে বিতরণ করে আসছি।’

/মাহি/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়