ঢাকা     রোববার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ৫ ১৪২৭ ||  ০১ সফর ১৪৪২

করোনাভাইরাস: কিডনি রোগীরা যা করবেন

মুছা মল্লিক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:১৫, ২৩ মার্চ ২০২০   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
করোনাভাইরাস: কিডনি রোগীরা যা করবেন

কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস শুধু একটি নাম নয়, বিশ্বব্যাপী এক আতঙ্ক, উদ্বেগ-উৎকন্ঠার নাম। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে নাস্তানাবুদ সারা বিশ্ব। থামছে না মৃত্যুর মিছিল। সমস্যা তীব্র রূপ ধারণ করছে বয়স্ক এবং কিডনি রোগীদের উপর।

কিডনি রোগীদের উপর করোনার প্রভাব এবং করণীয় সম্পর্কে পরামর্শ দিয়েছেন আনোয়ার খান মডার্ণ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক, মেডিসিন এবং কিডনি রোগবিশেষজ্ঞ ডা. মো. মহিউদ্দীন। কথোপকথনে ছিলেন রাইজিংবিডির প্রদায়ক মুছা মল্লিক।

রাইজিংবিডি: বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন কিডনি রোগের রোগীদেরও করোনাভাইরাস সংক্রমণ জনিত জটিলতার উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে। এর কারণ সম্পর্কে জানতে চাই?
ডা. মো. মহিউদ্দীন: কোভিড-১৯ নামক করোনাভাইরাস মূলত শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমে মানবদেহে প্রবেশ করে। হাঁচি বা কাশির ক্ষুদ্র ড্রপলেট এই ভাইরাসের বাহক। যেকোনো বয়সের মানুষের উপর এই ভাইরাস প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম৷ তবে কিডনি রোগীদের স্বাভাবিকভাবেই অন্যদের তুলনায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় করোনাভাইরাসে তীব্র অসুস্থতার ঝুঁকি রয়েছে। যেহেতু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাই আমাদের অস্তিত্ব ধরে রাখতে বড় ভূমিকা রাখে, সুতরাং যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তারা একটু বেশি ঝুঁকির মাঝে থাকবেন এটাই স্বাভাবিক।

রাইজিংবিডি: করোনার প্রভাব থেকে একজন কিডনি রোগী কিভাবে নিজেকে নিরাপদ রাখতে পারেন?
ডা. মো. মহিউদ্দীন: স্বাভাবিকভাবে করোনা নিয়ে এত বেশি আতঙ্কের কিছু নেই তবে সচেতনতা প্রয়োজন। যেহেতু একজন কিডনি রোগী অন্য সকলের থেকে আলাদা তাই তাদের উপর বিশেষ সতর্কতা জরুরি বলে আমি মনে করি। তাছাড়া তারা যদি আইসোলেশন সেবা গ্রহণ করেন তবে বেশি ভালো হয়। কারণ এই অবস্থায় একজন রোগী যেমন করোনার প্রভাব থেকে নিরাপদ থাকবেন তেমন কিডনি ডায়ালাইসিস জনিত সমস্যা হতেও সহজ সমাধান পাবেন।

রাইজিংবিডি: কিডনী রোগীদের মাঝে কোন বয়সের উপর করোনার ঝুঁকি বেশি?
ডা. মো. মহিউদ্দীন: বয়সের বিশেষ কোনো পার্থক্য নেই। যেহেতু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তাই সাবধানতা জরুরি।

রাইজিংবিডি: একজন কিডনি রোগী কি ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করবেন?  
ডা. মো. মহিউদ্দীন: একজন সাধারণ মানুষের যেমন সচেতনতার প্রয়োজন ঠিক তেমনি প্রয়োজন একজন কিডনি রোগীর জন্য।
* সাবান দিয়ে ঘন ঘন হাত ধুতে হবে অথবা অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে।
* জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকতে হবে। অবস্থার অবনতি হলে নিকটস্থ হাসপাতালে যোগাযোগ করতে হবে।
* জনসমাগম হয় এমন স্থান এড়ানো লাগবে।
* একই সাথে নিজে হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় কনুই ভাঁজ করে নাক এবং মুখ ঢাকতে হবে অথবা টিস্যু ব্যবহার করতে হবে এবং সেটা ঢাকনাযুক্ত বিনে ফেলতে হবে।
* অপরিষ্কার হাতে চোখ, নাক, মুখ স্পর্শ করা যাবে না।
* আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে।
* যতটা সম্ভব ঘরে অবস্থান করা ভালো।
* কারো সঙ্গে হ্যান্ডশেক ও কোলাকুলি করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
* জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বিদেশ ভ্রমণ না করাই ভালো।
* বাইরের জুতো বাসায় ঢোকানো যাবে না। বাইরে পরা পোশাক নিয়মিত ধুয়ে ফেলতে হবে। বাইরে থেকে এসে ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। ঘরের ফার্নিচার, মেঝে নিয়মিত জীবাণুনাশক দ্রবণ (যেমন অ্যালকোহলযুক্ত বা ক্লোরিন-পানি) দিয়ে মুছতে হবে।

রাইজিংবিডি: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কিডনি রোগীরা কী ধরনের খাবার গ্রহণ করবেন?
ডা. মো. মহিউদ্দীন: প্রতিদিন অন্তত ৮ গ্লাস (২ লিটার) বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। তবে ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রমের ক্ষেত্রে অধিক পানি পান করা প্রয়োজন।

দানা বা বীজ জাতীয় খাদ্য খেতে হবে। যেমন: ব্রেড, নুডুলস, বাদাম ইত্যাদি। সপ্তাহে অন্তত একটি কচি ডাবের পানি পান করা ভালো। প্রতিদিন অন্তত চারটি থানকুচি পাতা খেতে হবে। শসা, তরমুজ, লাউ, বাঙ্গি, কমলা, লেবু, মাল্টা, ডালিম, বীট, গাজর, আখের রস, বার্লি, পেঁয়াজ, সাজনা ইত্যাদি পরিমাণমতো খেতে হবে।

পড়ুন- করোনাভাইরাস: মারাত্মক পরিণতির ঝুঁকি বেশি যাদের
 

 

ঢাকা/ফিরোজ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়