Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ১৭ মে ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ৩ ১৪২৮ ||  ০৪ শাওয়াল ১৪৪২

করোনা প্রতিরোধে গরম পানির ভাপ 

মুজাহিদ বিল্লাহ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৫৯, ৯ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৪:১৪, ৯ এপ্রিল ২০২১
করোনা প্রতিরোধে গরম পানির ভাপ 

করোনাভাইরাস ধরন বদলাচ্ছে। এটি এখন প্রমাণিত যে, করোনার নতুন ধরন আরো বেশি সংক্রামক। যদিও এর বিরুদ্ধে এখনও শতভাগ কার্যকর কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি। টিকা নিয়েও আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। চিকিৎসকেরা বলছেন, সচেতনতা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে অনেকটা ঝুঁকিমুক্ত থাকা সম্ভব। এ বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনাও রয়েছে। যদিও করোনার ঝুঁকি রোধে গরম পানির ভাপ বা বাষ্প একটি অস্ত্র হতে পারে বলে অনেকে মনে করেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ বিষয়ে বিভিন্ন স্বাস্থ্য-পরামর্শ দেখা যায়।

গরম পানির বাষ্প করোনার বিরুদ্ধে কীভাবে কাজ করে এ প্রসঙ্গে এনাম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সোলায়মান হোসেন বলেন, ‘এ সময় অনেকের সিজনাল ফ্লু হয়। প্রায় সময় ঠান্ডায় নাক বন্ধ হয়ে আসে। এগুলো গরম পানির বাষ্প নেওয়ার মাধ্যমে প্রতিরোধ করা যায়। আবার করোনার যে লক্ষন; খুশখুশ কাশি- গরম পানির বাষ্প নিলে কাশি থেকে আরাম পাওয়া যায়। কিন্তু এটি সরাসরি করোনাভাইরাস ধ্বংস করে কিনা গবেষণার বিষয়।’

অর্থাৎ গরম পানির ভাপ নিলে কতটা উপকার হবে তা নিশ্চিতভাবে বলা না গেলেও এর স্বপক্ষে কিছু কারণ রয়েছে। যেমন: করোনাভাইরাস ফুসফুস সংক্রমিত করে, সেখানে এটি প্রতিলিপি তৈরি করে ও বসতি গড়ে। গরম পানির ভাপ সরাসরি ফুসফুসকে টার্গেট করে। ব্রঙ্কির মধ্য দিয়ে গরম পানির ভাপ যাওয়ার সময় তাপমাত্রা কিছুটা কমলেও যতটুকু অবশিষ্ট থাকে তা করোনাভাইরাসকে দুর্বল করতে পারে। কারণ ভাপে যে তাপমাত্রা থাকে, তা করোনাভাইরাসের সারফেস প্রোটিন ধ্বংস করতে পারে। তাছাড়া এই থেরাপিতে করোনাভাইরাস ধ্বংস না হলেও সংক্রমণ প্রক্রিয়া ধীর হতে পারে। ফলে শরীর সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া দেখাতে বেশি সময় পাবে ও অ্যান্টিবডি তৈরি হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. এস এম মোস্তফা জামান বলেন, ‘আমাদের শ্বাসনালীর দুটো ভাগ। একটি আপার রেসপিরেটরি ট্র্যাক্ট। অন্যটি লোয়ার রেসপিরেটরি ট্র্যাক্ট। গরম পানির বাষ্প আপার ট্র্যাক্টে বেশি কাজ করে। অর্থাৎ এটি গলার উপরের দিকে বেশি কাজ করে। অনেক সময় গরম পানিতে অনেক কিছু মেশানো হয়, কিন্তু পরিষ্কার গরম পানি বেশি উপকারী।’

মানুষের শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসেই সীমাবদ্ধ থাকে। এর বেশি হলে মৃত্যু ঝুঁকি দেখা দেবে। এদিকে ভাইরাস পরাজিত করতে প্রয়োজন ৭০ ডিগ্রি বা তার চেয়ে বেশি তাপমাত্রা। এই তাপমাত্রা মানবশরীর কোনো অবস্থাতেই সহ্য করতে পারবে না। সুতরাং এ কথা বলা যায়, গরম পানির বাষ্পের হয়তো উপকারিতা আছে, কিন্তু করোনাভাইরাস নির্মুলে এর সরাসরি কোনো কার্যকারিতা নেই। 
 

ঢাকা/তারা

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়